Citation
তেক মুযিকের যুদ্ধ

Material Information

Title:
তেক মুযিকের যুদ্ধ
Uniform Title:
Homer. Batrachomyomachia. Bengali
Alternate title:
ভেক-মুষিকের যুদ্ধ
Creator:
হোমার
Homer
Place of Publication:
কলিকাতা
Calcutta
Publisher:
[not transcribed]
Publication Date:
Language:
Bengali

Subjects

Subjects / Keywords:
এশিয়া -- ভারত -- পশ্চিমবঙ্গ -- কলকাতা জেলা -- কলকাতা
एशिया -- भारत -- पश्चिम बंगाल -- कोलकाता जिला -- कोलकाता
Spatial Coverage:
Asia -- India -- West Bengal -- Kolkata District -- Kolkata
Coordinates:
22.566667 x 88.366667

Notes

Funding:
Arts and Humanities Research Council through the Newton Fund. Department of Business Energy and Industrial Strategy
Exhibitions:
Two Centuries of Indian Print (TCIP)
Creation/Production Credits:
Digitised for SOAS by the British Library

Record Information

Source Institution:
SOAS University of London
Holding Location:
Archives and Special Collections
Rights Management:
This item is licensed with the Creative Commons Attribution, Non-Commercial License. This license lets others remix, tweak, and build upon this work non-commercially, as long as they credit the author and license their new creations under the identical terms.
Resource Identifier:
EM2129 /45464/1 ( SOAS Classmark )
460626 ( ALEPH )

Full Text
















এডুকেশন গেজেট হইতে সমদ্বত

. কলিকাতা : ্‌

সত্যার্ণৰ যন্ত্রে মুদ্রান্ষিত হইল ।

১৮৫৮।







ভূমিকা !
স্পীড

এই উপকাব্য, পুর্বে এডুকেশন গেজেটে ক্রমশঃ গ্রকটিত
ইইয়াছিল। রচন দৃষ্টে অনেকে কৌতুকাঁনুভৰ করিয়া! গ্রন্াঁ-
কারে তদ্দর্শনের ইচ্ছা বিজ্ঞীপন করাতে তীহাদিশের অভিমত
পাঁলন করা যাইতেছে । ইউরোপীয় কৰিকুলের পিতৃস্বরূপ
আদি মহাঁকবি হোমর মভোঁদয়ের নামে এই উপকাব্যের
জনন প্রবাদ আছে, কিন্তু ঈলিয়ড্‌ ও অডেসি খ্যাত অনুপম
মহাকাব্যদ্বয়ের জনয়িতা যে এরপ ক্ষুদ্র কাব্যের প্রণেতা হই-
বেন, তদ্ধিষয়ে সংশয় উপস্থিত হইতে পারে, তবে এই এক
প্রবোধের পথ আছে, যে, যে মহীসমুদ্্র প্রবাল মৌক্তিকী-
দি রত্বনিচয়ের ও-তিমি তিমিঙ্গিলাঁদির আঁধাঁন হইয়াছেন,
সেই রত্বাকর শুক্তি শম্বুকাঁদি সাঁমান্যতম জলজন্তনিকরেরও
আকর স্বরূপ! ফলত ভাঁবুকদিগের নিকট সাগরজ শুক্তি
শহুকাদির চাঁকচিক্য এবং বিচিত্র রাগরঙ্গাদি সামীন্যতর নয়ন
মনোইকুরপ্ীনকারি নহে। ভেক মুষিকের মুলকীব্য যাহারা
পাঠ করিয়াছেন তীহাঁরা অবশ্যই তাহার মাধুর্য রসে অপুর্ব
সুখানুভব করিয়া থাকিবেন। উপস্থিত মন্ীনুবাদ ভীহাদিগের
গ্রীতিবর্ঘনার্থ গ্রন্তত নহে, ফলতঃ ইউরোপীয় মাকবিদিগের
কবিত্ব ছটাঁর প্রতিবিম্ব, এতদ্দেশীয় সাধারণ জনগণের মানসে
প্রতিবিন্বিত করাই আঁমাদিগের মুখ্য অভিপ্রেত। অনেকে
কহেন, ইউরোপীয় কবিত্ব এতদ্েশীয় ভাঁষাঁসমুহে সংগ্রহ
করা অসম্ভব কার্য, কিন্ত আমরা একথা সর্বতো ভাবে স্বীকার
করি ন1। মন্থুষ্যের মানসিক ভাবনিচয় সর্ধদেশে একই প্রকার,



তি

তবে দেশ কাঁলপাঁত্র ভেদে তাহার কথঞ্চিৎ বিপর্য্যয় হইবার
সন্তাঁবনা। ললিত নয়নের তুলনায় কোন দেশে ইন্দীবরের,
কোন দেশে বা নর্গেসের, কোন দেশে ব! নীলবর্ণ ক্ষীণরৃস্ত স্থল
কুনুমান্তরের সাদৃশ্য উল্লেখ হয়, গ্রত্যুত, লালিত্যনিলয়
নীললোচন দৃষ্টে সকল দেশীয় কবির মনে একই প্রকার,
ভাবোদয় হয় সন্দেহ নাই, তবে উপমিতি প্রভৃতি অলঙ্কার
গ্রয়োজক পদার্থ সর্বদেশে একই প্রকার জন্মে না, এই
নিমিস্ত কিঞ্চিন্মাত্র বিভেদ সন্ভত হয়, কিন্ত ষে পদার্থ সর
দেশেই বর্তমান আছে, তাহা কোন সাদৃশ্য জ্ঞাপক হইলে
সর্ঘ দেশীয় কবিরাই তাহার ব্যবহার করিয়া থাকেন, যথা,
“ম্বগলোচন” এই দৃ্টান্ত কি: ভাঁরতবষীঁয়, কি পারস্য কি
ইউরোপীয়, ভিন্ন ভিন্ন সকল দেশের কবিরা ই স্বীকার করি,
ফ্াছেন। অতএব এক দেশের কবির তব যে অপর দেশের
ভাষায় আকর্ষিত হইবার যোগ্য নহে একথায় আমরা কখনই
ম্মত নহি। এভদ্দেশীয় লৌকের! অধুনা ইউরোপীয়
ফল, মুল, শাক, শস্যাদি স্বদেশীয় রুচি অন্থসারে ন্বদেশীয়
নিয়মে পাঁক করিয়া! গ্রহণ করিতেছেন, তাহাতে শরীরের
মাত্র পোষণ হয়, কিন্ত ইউরোপীয় অশনে মাঁনসের পোষণও,
আবশ্যক, এতাঁবতা, আমাদিগের জিজ্ঞাস্য এই» ইউরোপীয়
উপাদেয় মানসিক ভোজ্য, কবিতা প্রভৃতি কি এতদ্দেশীয়
জনগণের রুচি অনুসারে এতদ্দেশীয় নিয়মে প্রন্তত করা
ষাইতে পারে না? ৃ :



ভেক মুষিকের যুদ্ধ !







স্টপ
ভেকদিগের নাম। মধু'লেহিনী |
ফুল-গণ্ড। পঙ্ক-শায়ী। ০ |
পক্ষিল। লশুনাশী। ভোগ-ব্লাস।
জলেশী | কর্দমজ। ভাঁও-বিহারী 1
নিনাদক। ন্ল-গাষী। লেহন-সাঁর।
পন্কজ। প্রুত-গতি গর্ত-পতি |.
কলম্বীক। ম্ঘব্লভ। ক্ষুর-দস্ত।
বড়বড়িয়া। কটকটিয়!। মোদক-চোঁর।
হণালাশী। তড়িদগতি |
সর্ঃজিয়। মুষিকদিগের না| মখ্চনিবাব।
উশবাঁলক। শস্যহাঁরী। (ম্হান্স-ঞ্িয় |
বারিবিলাস। পিইকাশী। “শুটী-মুখ।
প্রথম স্বর্গ ।
উর ৌ কবিতা-শক্তি তেজি দিব্যপুরী।
পুর গো আমার কাব্যে মোহন মাধুরী ॥
বিবরিব বিগ্রহ বিষম বীর রসে । |

ভূবন ভরিবে যত যৌণ যশে॥

রী



ভেক মুষিকের যুদ্ধ।

কিৰূপে মুষিকগণ মাঁতি রণ-রঙ্গে ।
করিল তয়াল যুদ্ধ ভেক-জাতি অঙ্গে ।
সে যুদ্ধ সামান্য নয় তুলনা কি তার।
দেবতা দীনবে যুদ্ধ উপমায় ছার ॥
যাঁবৎ গণনে রবি হইবে উদ্দিত ।
তাঁবৎ সে কীর্তি রবে জগতে বিদিত
একদা পড়িয়া ক্রুর বিড়ালের গ্রাসে ।
পলায় মুষিক এক অনেক আয়ীসে ॥
উ্ধশ্বাসে ধায় ত্রাঁসে গতি খরতর ।
স্বেদজল বহে দেহে তৃষাঁয় কীতর ॥
. এক সরসীর তীরে করিয়া প্রয়াঁণ।
গৌঁপ ডুবাইয়া মুবা করে জল-পাঁন ॥
মুবিকে সম্বোধি এক ভদ্র ভেক তথা ।
শির তুলি ঘোর স্বরে কহিতেছে কথা ॥
কে হে তুমি ভিন্ন-দেশী জন্ম কোন্কুলে 2.
ক্লান্ত হয়ে পড়ে কেন সরোবর কুলে 2
যথা সত্য কথা কহ হইয়া নির্ভয় |
হে মৃষিক নাহি দিও মিথ্যা পরিচয় ॥
_ মিত্রতার যোগ্য হও, কর তাহা ভাই ।
সুখ-সরোঁবর মধ্যে এসো লয়ে যাঁই ॥



তেক মুষেকর যুদ্ধ ।

প্রবেশি আমার পুরী আঁতিখ্য লইয়া ।
বিদায় হইবে পরে সাঁনন্দ হইয়া ॥
রজত সন্নিভ এই হদের উপর ।
আমার প্রভুত্ব, আমি ভেকের ঈশ্বর ॥
পঙ্কিলের বংশধর ফুল্প-গণ্ড নাম।
জলেশী জননী, ষাঁর যমুনায় ধাম ॥
তথা মম পিতা সহ পরিণয় পরে ।
আঁবিভত হই আমি তীহাঁর উদরে ॥
তোমার লক্ষণ সব দেখি বোধ হয়।
পরিচয় দিয়ে কর সংশয় বিচ্ছেদ |” .
শুনিয়! মুষিক তাঁরে কহিতেছে ভেদ ॥
“স্থুর নর কি বিহজ্গ উড়ে যত দুর ।
তত দুর মম নাম আছে তর-পুর ॥
শুনহ, যদ্যপি নহে তব জ্ঞাত-সার।
মহামহিম শ্রী শস্যহাঁরী নামীমাঁর ॥
পিষ্টকাশী পিতা মম বীর শ্রেষ্ঠ তিনি।
তাহার গেহিনী সতী শ্রীমধুলেহিনী ॥
গর্তপতি মহাঁমতি জনক তীঁহার।
মহারাজ সুতা মাতা মহা অধিকার ॥



ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।

মনোহর মঞ্চোপরে জনম আমার ।

উভয়ের স্বভাবেতে একতা বিরহ ॥

তৰ পুরী পরে খেলে তরল তরঙ্গ ।
মনুষ্যের দিব্য খাদ্যে পুষ্ট মম অঙ্গ ॥
কত যত্তে রুটা প্রিটা প্রস্তুত করিয়া ।
লুকাইয়া রাঁখে নর হীড়িতে ভরিয়া ॥
সুধার মাঁংশের বড়া, কোফ্তা কুরকেট ।
ইলিসের ডিম তাজা, রোহিতের পেট
সন্দেশ মিঠাই নানা মোরব্বা আচার ।
স্সীর ছানা পনীর প্রভৃতি উপহার ॥
দেবের দুর্গত তোগ কত শত আর।
কত কঞ্টে গুপ্ত করে ভয়েতে আমার ॥.
বুখায় আঁয়াস, আর বুখায় প্রয়াস ।
তখনি আস্বাদ লই, হল্যে অতিলাঁষ ॥
যেৰপ চতুর ইথে সেৰপ সংগ্রামে ।

কত শত বীর ঝীঁপে শস্যহারী নামে ॥
রণে ভঙ্গ দিয়ে কভু যাই নাই ভেগে।
এক মনে এক ধ্যানে রণে যাই লেগে ॥



শেক মুধিকের যুদ্ধ ।
আমার অপেক্ষা অতি দীর্ঘদেহী নর |
কিন্ত আমি কখন করিনে তারে ডর ॥
শধ্যাঁপরে স্ুখভরে নিদ্রা যাঁয় যবে ।
উুপিসাড়ে গুড়ি গুড়ি বাই আঁমি তবে ॥
কর পল্লবেতে কিম্বা পদাঙ্গুলি ধরি।
বসাইয়া দিয়ে দন্ত লহ্ছজাঁরী করি ॥
এমনি চাঁলাঁকি তাঁয় আমার জাঁহের।
ঘবমাইয়া থাঁকে নর পীয় নাকো টের ॥
তথাপিও আমাঁদের শক্র বুতর ।
তাহাদের অত্যাচারে সর্বদা কাতর ॥
বিড়াল পেচক এরা কালীন্তের কাঁল।
থাবাঁয় দাঁবাঁয় সব উল্ছুরের পাঁল ॥
বিকল করেছে তাঁহে ফীদ আর কল।
দিন দিন জ্ঞাতি গৌত্র মারে দল দল ॥
শক্ক নাই প্রাণ নাই স্তব্ধ ভাঁবে চলে ।
লুকাইয়! থাঁকে যম খাদ্য রাখি কলে |
সবে বটে আমাঁদের ভয়াঁনক অরি।
সব চেয়ে বিড়াঁল শক্ররে ভয় করি ॥
অন্ধকারে পলাইলে রক্ষা তবু নাই ।
ঘোরতর আধারে ধরিয়া মাঁরে ভাই ॥



ভেক যুষিকের যুদ্ধ ।
সে যা হোৌঁক, জলজাঁতি গঁছিড়ী ভক্ষণে 7
জীবন ধাঁরণ বল করিৰ কেমনে ॥ টু
নয়ন না তৃপ্ত হবে দেখি লাল মুলা ।
আর আর অনর্থক খাদ্য কত গুলা ॥
এ সকল ভেকদের খাদ্য প্রিয়তর |
অতিশয় হ্বণী করে মুষিক নিকর ॥
এৰপে মুষিক ষদি কহিল বচন ।
উত্তরে কহিছে তবে মণ্ুক রাজন ॥
“ ভল হে বিদেশী, কর আহারের জীক।
অণমীদের বিধি শুদ্ধ দেন নাই ডাঁক।
স্থলে জলে কেলি করি নাচিয়া বেড়াই ।
দুই ভূতে বাস, নানা খীদ্য তাঁহে পাই ॥
কিন্ত যদি আশ্চর্য্য দেখিতে ইচ্ছ। হয় ।
এসো লয়ে যাই হদে, কিছু নাই ভয় ॥ :
উঠিয়া আমার কীঁধে বস্যো স্থিরভাঁবে |
চলহ আমাঁর পুরী, নাঁনা ভৌজ্য পাবে |
এত বলি পিঠপাঁতি দিল ভেক পাড়ে ।
লাঁফ দিয়ে উন্ছুর উঠিল তাঁর ঘাড়ে ॥
দুই বাঁছু পসারিরা জড়াইয়া ধরে ।
চলিল মুষিকরীজ সুখ সরোবরে ॥



ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।

_ বিচিত্র রসেতে পুর্ণ উল্লাসিত মনে ।
কত বাঁক ছাড়াইয়া চলিল সঘনে ॥
সমুদ্রের কুলে ষেন বন্দর সকল ।

দেখি মুষিকের হয় নয়ন সফল ॥

তরল তরঙ্গোপরে যখন চলিল।

উঠিল শরীরে তাঁর সে নীল সলিল ॥
তখন হৃদয়ে তাঁর উপজিল ভয়।

যুগল নয়ন পথে অশ্রধার বয় ॥

ছিড়ে ফেলে চিকুর, চঞ্চল পদদ্বয়।
দুরু দুরু করে বুক, জীবন সংশয় ॥
প্রকট সংকট ভাঁবি দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে ।
বিফলে বাঁদন। আর ফিরে যেতে পাড়ে ॥
লা্ুলে করিয়া হাল বৃথা ঝিঁকে মারে। :
গগন ভরিল তাঁর ব্যর্থ হাঁহাকারে ॥
মৃতপ্রাঁয় হয়ে বীর জলের উপরে ।

এইৰপে কীদিতে লাগিল আঁর্তন্বরে ॥
“ হায় কেন মাঁটাখেয়ে আইলাম জলে ।
অসাধ্য সাথিতে গেলে এই দশ ফলে ॥

কোন পুরুষেতে মম, স্কলছাঁড়া নয়।
হায় বিধি কি কুরুদ্ধি হইল উদয় !



ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।
শুনিয়াছি এইৰপে তুলায়ে সীতারে।
লয়ে গেল দশীনন জলঘির পারে ॥
যেই দশা! জাঁনকীর জলধি উপর |
আমার সেৰপ? ভয়ে কীপি খর খর ॥
যা হবার হবে তাই, তাহে খেদ নাই ।
কোন মতে ভেকপুরে গেলে রক্ষা পাই ॥”
এইৰপে মুষা যবে করিছে রোদন ।
কাঁল আসি অন্য মুর্তি করিল ধারণ ॥
পাঁনী গৌঁখুরাঁর কুলে জাঁত এক বীর।
অকন্মাঁৎ জল হত্যে হইল বাহির ॥
লোহিত নয়ন দুটা ঘুরায় সঘনে ।
ফুলিল বুকের পাটা খাদ্য দরশনে ॥
তীর বেগে ধায় রেখে প্রবাহ উপর।
ভয়ে ভীত ভ্রাম্তচিত ভেক ভূমীশ্বর ॥
উন্দুরে ফেলাঁয়ে দুরে ডুবমীরে জলে ।
সাঁপ দেখে, বাঁপ ডেকে, তন্নু ঢেকে চলে |
বিশ্বীসঘ্বাতক ভেক যারে কীধে করি।
বন্ধু বলি যেতে ছিল আপন নগরী ॥
সে যত সীঁতাঁরু তাঁহা জানে সর্বলোকে।
নাঁকানী চৌবানী খায়, পেটে জল ঢোকে ॥



ভেক যুষিকের যুদ্ধ।

চরণে রাখিয়া ভার বৃথা চাহে ত্রাণ ।
ডুবে আর উঠে কীর, শ্বাস-গত প্রাণ |
আকু বাঁকু করে আঁখু ডুবে আর উঠে।
অসাড় হইল অঙ্গ মুখে রক্ত ছুটে ॥
নিরাশয় নীরাঁশয়ে হইয়া কীফর ।
মৃত্যুকালে কহে মুষাঁ, ক্রোধে গর গর ॥
“ অরে রে বিশ্বাসঘাঁতী রাঁজা ছুরাঁচার।
করিলি আমার প্রতি এই কুব্যাভার ॥
ইহার উচিত কল পাঁৰি অচিরাঁৎ।
ফেলে পলাইলি ছু করে জলসাঁৎ ॥
স্থলোপরি শক্তি তোর নাহি মম সম।
জলে জারি জুরি/ তোঁর চাতুরী বিষম ॥
ভো দেবতাঁগণ ! সাক্ষী তোমরা সকল।
কৌথারে উন্ছ্রসেনা দিস্‌ প্রতিফল ॥ ”
এই কথা বলে বীর ছাঁড়ে দীর্ঘশ্বাস
সেই সঙ্গে প্রাণ তাঁর ত্যজে দেহ বাস ॥
হেন কীলে ফুলময় সেই হৃদ তীরে ।
ভ্রমণ কারণ ম্বৃছু সাঁয়ীহ সমীরে ॥
আইল লেহন-সাঁর বয়সে কিশোর |
দেখে যুবরীজ মরে করি ঘোর শোর ॥



_ ঞভক মুবিকের যুদ্ধ ।

বিবর ভরিল সব নয়নের জলে ॥
শস্যহারী প্রিয়তমা শোকে অচেতন।
আলু থাঁলু কেশ বেশ, ধরায় শয়ন ॥

পুরনারী শস্যহীরি গুণ ব্যাখ্যা করি

বিনাইয়া কীদে সবে দিবস শর্বরী ॥
একে শৌকস্বরে পুর্ণ মুষিক মগ্ডল।

তাঁহে ক্রোধে তর্জে গর্জে সেনাঁনী সকল ॥
ঘরে ঘরে ধেয়ে যেয়ে রাঁজ দুতগণ।
প্রভাঁতে যাইতে বলে রাঁজাঁর সদন ॥



দ্বিতীয় স্বর্গ । .
পুর্ববদিগে পদ্মপাঁণি প্রকীশিলে উষা।

মুষারাজ সভায় আঁইল যত মুঝা ॥

উঠিলেন পিষ্কাঁশী শোঁকাচ্ছন্ন মনে।
সম্বৌধিয়া কহিছেন সভাঁগত গণে ॥
“ হাঁরাঁধন শস্যহারী শোকে প্রাণ দহে।

সকলের শোঁক ইথে, শুদ্ধ মম নহে ॥



ভেক সুষিকের যুদ্ধ । : ১১
বীরবর তিন পুক্র জন্মেছিল মম |
একে একে মম আগ্রে গ্রাসিলেক যম ॥
জ্যেষ্ঠ পুক্্র পুরীর অন্তরে বস্যে ছিল ।
ভয়াল বিড়াঁল বেট! তাহারে খাইল ॥
মধ্যম কুমারে নাঁশে সর্জনেশে কল।
হা করিয়া ছিল দুষ্ট, মুখে রেখে ফল ॥
লাঁফ দিয়ে প্রবেশিবে ভিতরে যেমন ।
চাঁপাঁকলে বাঁপা মোর হইল নিধন ॥

হ হা পুন্র প্রিয়তম সর্বগুণধর |
কি ক্ষণে কলের স্থন্টি কর্যেছিল নর ॥
অবশেষে ছিল মীত্র কনিষ্ঠ নন্দন।
আমার অন্ধের নড়ী, দরিদ্রের ধন ॥
তোমাদের আঁশ ভরসার সেই স্থল।
পাঁলিত পরম যত্রে মুষিক মণ্ডল ॥
ফুল্প-গণ্ড ভেক তারে ডুবাঁইল জলে ।
মরিল আমার যাঁছু, সে বেটার ছলে ॥
সাঁজ, সাজ, সাঁজ সবে, দেহ প্রতিফল |.
মারহ মণ্ডক রাঁজে+ মার ভেক দল ॥ ”
রাঁজবাক্য শুনি সবে গঞ্জ বিক্রমে ।
ধরিল সমর সঙ্জী যথা রীতি ক্রমে ॥.



১২

ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।

বেদাঁনা পীমের খোসা হইল বিনীমা।
মরা বিহঙ্গের পক্ষে বিরচিল জামা ॥
পতিঙ্গের চাঁক্তি ঢাঁলে স্থুশোঁভিত পিট | :
বাদামের খোলা হলো মাঁথীর কিরীট ॥
ছচের বল্পম হাঁতে করে ঝক্মক্।

_ সাঁজিল মুবিক সেনা, দৃশ্ট ভয়ানক ॥

মহা গগ্ডগোল উঠে ভেক সন্গিধানে।
নিকটে কিসের গোঁল কেহ নাহি জানে ॥:.
জল ছেড়ে দল বেঁধে উঠে গিয়া পাড়ে ।
জিজ্ঞীসিল কোন্‌ শক্র সিংহনাদ ছাড়ে ॥
এমন সময় তথা এলো এক বীর । .
শ্ীভীগু-বিহারী নাম মুবিক সুধীর ॥
পিষ্টকাশী রাজদ্ুত, সেই মহোদয় ।

_. ৰিপক্ষেরে ডাঁকি বীর রাজ-আজ্ঞ৷ কয়।

“অরে রে ভেকের দল শুনরে সকলে ।

আদিছে মৃবিক সেনা সংগ্রামের স্থলে ॥
মাতিয়ীছে রণ মদে দিবে প্রতিফল।
প্রতি অঙ্গে নীনা অস্ত্র করে ঝলমল ।
তোদের নির্দয় রাজ! ফুল্ল-গণ্ড যেই।

আমাদের যুবরাঁজে মারিয়াছে সেই ॥



ভেক মুষিকেন্ব য্দ্ধ। ১৩

ভাগ্যহীন রাজপুক্র, পতিত চাতরে ।
এখনো তাহার অজ ভাসে সরোবরে ॥”
_ এই কথ! বলি বীর করিল-প্রস্থান।
শুনিয়া ভেকের দল ক্রোধে কল্পবাঁন॥
_ গার্ষে ফুলে, কিন্তু সবে চিন্তিত অন্তর ॥
রাজার অধিক নিন্দা করে পরস্পর ॥
দেখিয়া এতাঁৰ তবে ফুল্ল-গণ্ড রায় ।
স্বীয় দোঝোদ্বারে কহে মগ্ডুক সভায়।

“ শুন শুন মিত্রগণ আমার বচন ।
আমি কেন সে মুবিকে করিব নিধন?
কখন্‌ মর্রিল মুষা, নহি অবগত ।
আপনার দোষে সেই হইল নিহত. ॥
বৃথা অভিমীনী ছিল মষিক কুমার ।
আপনি আঁইল জলে পাঁড়িতে সীঁতাঁর ॥
আমাদের বিদ্যা তাহ! জানিবে কেমনে ?

অরিল নির্বোধ শিশু সেইত কারণে ॥
অকারণে রাগ করে উন্দুরের দল
অনর্থ আমারে চাঁহে দিতে প্রতিফল-॥
বেমন চতুর শত্রু আসিয়াছে রেগে।





৯৪

তেক যুষিকের যুদ্ধ ।

আমি তাঁর পন্থা! বলি শুন সর্বজন ।

নিশ্চয় হইবে জয়ঃ লয় মম মন ।

যথা উচ্চতর. অতি সরোবর তীর।.
স্থিরভাঁবে নীচে তাঁর গভীর নীর ॥.
ধারে ধারে থাক সবে হয়ে সাবধান ।
আস্তুক শত্রর সেনা বরবিয়া বাঁণ ॥.
অনন্তর সন্িকট যখন. হইবে ।
নিজ নিজ সম-যোদ্ধা বাছিয়া লইবে ॥
প্রতি জন এক এক ধরিয়া উন্দূরে ।
সরোবর লক্ষ্য করি ফেলে দিবে দুরে ॥
এমনি ধরিয়ে জোরে ফেলাইবে জলে ।
ঘুরিতে ঘুরিতে যেন মরে হদতলে ॥

ও বপাৎ শব্ৰ হইবেক তায় ।,

শাত পাঁকে ঘুরিবেক সরোবর কাঁয় ॥

জয় লাভে যুদ্ধক্ষেত্রে ধাইবে সকলে |

নিশান উড়াঁয়ে দিবে সংগ্রামের স্থলে ॥৮
এত বলি ফুল-গণ্ড বসে সিংহীসনে ।

কথা শুনি দ্বিগুণ মাঁতিল ভেকগণে ॥

সবুজ পৌবধাক পরে যতেক পুবঙ্ত।

শৈবাল সীঁজৌয়। দিয়ে ঢারিলেক অঙ্গ ॥

|
ছটা



_ এক মুষিকের যুদ্ধ । ১৫

পাতাঁড়ীর পাতা ঢাঁলে শোঁতে ষঠদেশ |
কোথা কে দেখেছে হেন সংগ্রামের বেশ 2
শুক্তি শত্বকের নানা টোপর সুন্দর ।
ঝকমক্‌ ভানুকরে করে নিরন্তর ॥
লক শুল অস্ত নল খাগড়ার।

ছাইল গণ্ণন ঘন কানন আঁকীর ॥
এইৰূপে সাঁজিয়া উঠিল ভেকগণ।
আস্ত্র দেখা ইয়ে চাহে মুঝা স্থানে রণ ॥

তৃতীয় স্বর্গ



মাঁলবপ।

ছুই দল, মহাঁবল, ধরাঁতল, কীপে।
থর থর, খরতর, যুড়ি শর+ চাঁপে ॥
ঝল মল, কি উজ্জ্বল, স্থুবিমল, অস্ত্র
সেনাগণ, জুশৌভন? সন্নহন, বস্ত্র ॥
প্লবঙ্গক, ভয়ানক, মক মক; শব্দ |
মুষাঁগণ, বিঘোষণ, ভ্রিভূবন, স্তব্ধ ॥
তড়াগের, ধাঁরে ঢেরঃ মণ্ডুকের, তা 1
শেহালার, ডেরা তাঁর, খাগ্ড়ার, বা ॥



ভেক মুষিকের যুদ্ধ।_

আরে তাঁর, আঁগুসাঁর, সাঁর সাঁর, যোদ্ধা । |
উদ্ধাশির, রণবীর, অতি ধীর, বোদ্ধা ॥
রহিলেক; যত ভেক, হয়ে এক; পংক্তি।
হুহুঙ্কার, চীৎকার, যত যাঁর, শক্তি ।

ছেয়ে মাঠি, মুষা। ঠাটি, কাঁট কাট; শোঁরে |
মহা জাঁক, ডাঁক হীক, রহে থাঁক, ধোরে ॥
রণশৃঙ্গ, হল্যো ভূঙ্গ, নহে রিঙ্গ, কাষে।
কি আঁহব, মহোৎসব, ভৌ! ভে। রবঃ বাঁজে ॥
শুনি রব, সুভৈরব, মাতে সব, শুদ্ধ । ৃ
দ্রুত বেগে, যাঁয় রেগে? গেল লেগে, যুদ্ধ ॥

পয়ার।

নিনাঁদক নামে তেক দৃশ্য ভয়ঙ্কর ।
লাফ দিয়া আঁগে ভাগে পড়ে বীরবর ॥
ছাঁড়িল বিষম শুঁল দ্বিতীয় অশনি ।
পড়িল লেহন-সার বীর চুড়ামণি॥
বয়সে কিশোর অতি ছিল মুষ!-স্থৃত।
সংগ্রামে কেশরিপ্রায়ঃ নানা গুণযুত ॥
যশৌ লাঁভ লোভে বীর সকলের জীগে।
কড়াইয়! ছিল” মাঁতি নব অন্ধুরাগে ॥



ভেক মুষিকের যুদ্ধ । 5৭

বজের সমান শুল ছাঁড়ে নিনীদক।
চর্ম বর্ম ভেদ করি পশিল ফলক ॥
হাঁহাকাঁর করি মুষা পড়ে ধরাতল।
ধুলায় লুটায় তাঁর চারু কুন্তল ॥
দেখিয়া জ্ঞাতির গতি বীর গর্ভপতি |
বিপর্ষ্যয় গদা হস্তে নিল মহাঁমতি ॥
পক্কজের শিরোপরি করিল আঘাঁত।
এক ঘাঁয়ে হলো ভেক ধরায় প্রপাঁত ॥
কাঁলের কবলে সেই হাঁরাঁইল জ্ঞান ।
ক্লধিরের আৌতে প্রাণ করিল প্রয়াণ ॥
: শরাসনে কলম্বিক যুড়ি তীক্ষু তীর ।
ভাঁগু-বিহারির বক্ষ লক্ষ্য করি বীর ॥
_ ছাঁড়িল ছুর্জয় শর মের সোঁসর ।
মরিলেন শ্রীভী গু-বিহীরী বীরবর ॥
দেখি ক্রোধে ক্ষুরদন্ত হইল অস্থির ।
তিন শরে কেটে ফেলে কলবীর শির ॥
আর বাঁর অস্ত্র যুড়ি গর্জিয়া ছাঁড়িল।
বড়্বডভিয়ীর মাথা কাটিয়া পাঁড়িল ॥
অভিমানী ছিল এই ভেকের নন্দন ।
আপনার গুণ গানে রত অন্ুক্ষণ ॥



১৮

তেক মুষিকের যুদ্ধ ।

দিবা নিশি বড়বড় করণ কারণ?
শ্রীবড় বড়িয়া নাম বিখ্যাত ভূবন |
ক্ষুর দন্ত অস্ত্র তার চুকিল উদরে ।
মরিল ভেকের চুড়া কিছু কাল পরে ॥
বন্ধুর বিয়ৌগ-দেখি বীর স্বণালাশী।
ক্রোধ ভরে যুদ্ধ ক্ষেত্রে প্রবেশিল আঁসি |
হস্তে করি নিল এক প্রকাঁও কন্কর।
ভীমের করেতে যেন শোঁভিল শেখর ॥

আসন্ন কাঁলেতে আঁর কোঁথা থাঁকে গুণ?
ললাঁট লিখন বল খর্তিতে কে পাঁরে 2
জীবন ত্যজিল বীর কঙ্কর প্রহারে |
গর্তপতি-ৃত্যু শোকে হইয়া বিষুর |
দ্বিতীয় লেহনসাঁর নামে এক শর ॥
যৃণালাশী বক্ষে মারে খরতর শর।
গর্তপতি পাঁশ্খে ভেক ত্যজে কলেবর ॥
পুনরায় মুষাস্ৃত বাণ বৃষ্টি করে।
ভাঁগিল ভেকের ভাগ ভয়ীর্ত অন্তরে



ভেক মুষিকের যুদ্ধ । ১৯

সরো প্রিয় নামে তখী আইল প্লিবঙ্ষ।
ক্ষণ পরে শরে তাঁর জর জর অজ ॥
বরণে পটু নহে ভেক ভোঁজনে চতুর ।
পলাঁইল হুদ তটে হয়ে ভয়াতুর ॥
লাঁফ দিয়া যেমন পড়িল গিয়া পাঁড়ে।
অমনি লেহনসাঁর চড়ে তাঁর ঘাঁড়ে ॥
পাশ দিয়া প্রহার করিল তার পেটে।
এক চোঁটে নাঁড়ীভুঁড়ী সব গেল কেটে ॥
কুধির বহিল সেই সরোবর জলে ।

জয় জয় শব্দে মুষা বাড়িয়া চলে ॥
ভেকগণ ভঙ্গ দেখি ভর্থসিয়া ভীষণ ।
ভল্প-ভীজি এলো যুদ্ধে ভেক এক জন ॥
শৈবাঁলক নাঁম তার শেহালায় বাঁস।
মারিল মৌদক-চোঁরে আন্ত্র চন্দ্রহাস ॥
ফাঁফর হইল মুষা মুখে ছুটে ফেণা ।
মেটাই চুরির বুদ্ধি হেখা খাঁটিবে না ॥
সে দিন চুরির ধন ছিল মতিচুর।
ভেক অস্ত্রে পেট কেটে পড়িল প্রচুর ॥
মোদক-চোরের মৃত্যু করিয়া ঈক্ষণ।
অগ্রসর হল্যো আসি বীর এক জন ॥



ভেক মৃষিকের যুদ্ধ

_ তড়িতের ন্যায় তাঁর গতি খরতর ৷

সেহেতু তড়িদ্ঠাতি খ্যাত শ্রবর ॥
সলিল-বিলাস নামে তরুণ মণ্ুক।
মুষাঁর বিক্রম দেখি কাঁপে ধুক ধুক ॥
পাঁতাঁড়ীর ঢালে দেহ করি আচ্ছাদন ।
রণভূমি ত্যজি করে দুরে পলীয়ন ॥
পশ্চাতে তড়িৎ ছুটে তড়িতের প্রীয়।
ছুই ভিতে ভাগে তেক দেখিয়া তাঁহীয় ॥
আখুবংশে তড়িতের তুল্য নাহি আর।
পরিপুষ্ট দেহ তাঁর করি মাঁংসাহাঁর ॥
হাদ তটে সলিল-বিলাস বক্ষোপরে |
প্রহারিল প্রহরণ ঝন ঝন স্বরে ॥

জীবন তেজিল তেক করি ছট্ফট্‌।
রুধিরে ভাসিয়ে গেল সরসীর তট ॥

সেই কাঁলে পঞ্চে শুয়ে ছিল তার ভাই।
পঙ্কশীয়ী নাম তাঁর কোলাকুলে টাই ॥
অন্তরেতে প্রজ্বলিত ভ্রাতৃশোক তাঁপ।
পঙ্ক থেকে উঠে বীর দিয়ে এক লাফ ॥
প্রকাণ্ড কোলাঁয় দেখি পলায় তড়িৎ ।
লাঁফে লাফে পঙ্কশীয়ী চলিল ত্বরিত ॥



_ ভেক মুষিকের যুদ্ধা ২১
ছাড়িল পাঁষাঁণ খণ্ড লগ্ড ভণ্ড শির ।
নাসারন্ধ পথে হল্যো মন্তি্ক বাহির ॥
জয় জয় শব্দ উঠে ভেকের শিবিরে ।

আনন্দ ম্গলধনি করে ফিরে ফিরে ॥

৪827

শুনি জয়-নাদ, গুণি রর
কহেন মুষিকরাজ ।
এক বেটা পেঁকোঃ করে গেল ভেকো”
ছিছি এত বড় লাজ ॥
শুনিয়ে রাঁজাঁর, বাক্য এপ্রকার,

ভাননি নট টিন ॥
দিয়ে হুহুক্কীর, করি মাঁর মার,
বরিষে নারাচ জাঁল।
সমুখে যে ছিল, সকলে বিদ্ধিল,
মরে ভেক পালে পাল ॥
লশুনাশী নাম, এক গুণধাঁম,
. ছিলেন সবার আগে।



হ২ ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।

গাত্র গন্ধে তাঁর, কাছে থাকা ভার,
দেখিয়া পলায় নাগে ॥
ঘনাইল কাঁল, নারাচ বিশাল,
্‌ পশিল হৃদয় মাঁঝে।
মরে লশুনাশী, শ্রীভোঁগ বিলীসী,
নিবেদিল মুষারাঁজে ॥
কর্দমজ বীর, শৌকেতে অস্থির,
লশুনাশী স্ৃত্যু হেতু।
ঘোঁষিল ভীষণ, এ্রলয়ে যেমন,
মহাকাল রৃবকেতু ॥
'লাঁফে লাফে পিয়া, ধরে আকর্ষিয়া,
| মুবিক মঞ্চনিবাঁসে । ূ
ধরিয়া তাহীয়, হৃদে লয়ে যায়,
অচেতন মুষা ত্রাসে ॥
ঘন ঘন জলে, ডুব মারি চলে,
. নিশ্বাস হইল রোঁধ।
মারিয়া উন্নরে, শৌক গেল দুরে,
দিল ভীল প্রতিশোধ ॥
হো থাঁয় সংগ্রামে, শম্তহীরী নামে,
.. আর এক ধন্ুর্ঘর |



ভেক মুষিকের যুদ্ধ ।: 8

যাহার কারণ, হয় এই রণ,
্‌ বিক্রমে তারি সৌসর ॥
মলগাঁমী ভেকে, মারিলেক টেকে,
বিষম বললম এক |.
মরে মলগীমী, শুনি ভেকস্বামী,
রৌদন করে অনেক ॥
_ দেখি পুতগতি, অতি কুদ্ধমতি।
ডুব মারি সরোঁবরে ।
ছুই হাতে ঠঁসি, নীয়ে পক্করাশি,
উঠে গিয়ে তীরোপরে ॥
মৃষা প্রতি টাক, করি বর্ষে পাঁক,
ছাঁইল বদন তাঁর।
পুর্ণ শশধরে, আচ্ছাদন করে,
যেন জলধর হাঁর ॥
হল্যো দৃষ্টিহীন, সমর প্রবীণ,
মুষিকের ফুড়ীমণি ।
প্রকাণ্ড পাষাণ, ধরি একখান,
ঘুরায়ে ছাড়ে অমনি ॥
দৃশ্য ভয়ঙ্কর, যেমন শেখর,
মেদিনী কীপিল ভারে।



২৪

ভেক মুবিকের ঘুদ্ধ।

অধুনা সে ভার, মু দশ বার,
_ সুলিতেও নাহি পারে ॥
যেৰপ' কলিতে, মীনবারলীতে,
বলের হয়েছে হুসি।
সেইৰপ প্রায়, শক্তি ক্ষয় পায়,
_উন্দর বংশ সকাঁশ ॥
সেইত পাতর, পর্বত সোসর,
মলগামী পদে পড়ে।
ভগ্ন পদ লয়ে, সভয় হৃদয়ে,
পলীইল উভরূড়ে ॥
জয়মদে মাঁতি, ফুলাইয়াছাঁতি,
নাঁচে বীর শস্যহারী।
তাঁর নৃত্য দেখে, বিপর্যয় ডেকে,
উঠে ভেক অধিকারী ॥

শুনি সেই রব, এলো এক প্রুব,

শ্রীকট্কটিয়া নাম।

শস্যহারী বক্ষ, করি সুম্গন লক্ষ্য,

মারে বাণ গুরগ্রাম ॥
কট্‌ কট্‌ স্বরে, প্রকট সমরে,
বিকট হুঙ্কার করে।



তেক মুষিকের যুদ্ধ।
৫

রন
মণ্ডুক মি কা
্‌ বিজি | ৃ রি
রে ত রি | ্‌
চি ্ দলে ঘোর যুদ্ধ হ্য়।
র্লুধিরের ই ই,
৮:28
[পীলিকা সারি সারি চলে।
রচলে॥



শু

ভেক মুষিকের যুদ্ধ।

গৃধিনী আকারে ফিরে তেলাঁপোঁকাঁগণ।

বৃশ্চিক কবন্ধ প্রায় করয়ে ভ্রমণ ॥ |
ছুই দলে সেনাপতি মরিলে প্রচুর |
সমরে প্রবিউ ছুই রাজা বাহীছুর ॥

এক দিগে গদা হস্তে পিষউকাশী শ্বর।

অন্যদিগে ফুললণণ্ড ভেকের ঠাঁকুর ॥
হইল বিষম যুদ্ধ একই প্রহর |

ছুই মত্ত হস্তি যেন কাঁননভিতর॥
অবশেষে পিষউকাঁশী স্থির লক্ষ্য করি ।
মারিল ছুর্জয়ে গদা ভেক গুলফোপরি।
দুষ্যোঁধন উরুভঙ্গ করে যেন ভীম ।

. পলাইয়া ষাঁয় বীর ষাঁতনা অসীম ॥

সর্পাকারে রুধিরের ধাঁর! তাঁহে পড়ে ।
পিছে পিছে মুবারাঁজ ধায় উভরড়ে ॥
ভগ্ন অর্ধ পদ ঝুলে পশ্চাতে রাজার ।
অচল হইল তেক শক্তি নাহি আর ॥
উর্ধমুখ করি রাঁজা দীর্ঘ শ্বাস ছাঁড়ে।
প্রাণ পরিহার করে সরোঁবরে পাড়ে ॥

শপাা্াাাশীশপাশীিিল



ভেক সুবিকের যুদ্ধ। সুজ

ভঙ্গ ত্রিপদী।

ভেকরাঁজ পাঁইলে অত্যয়,
তাঁর পুরে মহা শোকোদয় ।
অনিবার হাহাকার, বিগলিত অশ্রুধার,
ৃ সকলের কাতর হৃদয় ॥
কীদে যত ভেক রীজ-দারা,

_ চক্ষে বহে শত শত ধারা । |
ভঙ্গ সব রাগ রঙ্গ, পঙ্কেতে লোটাঁয় অঙ্গ;
দিবানিশি হয়ে জ্ঞানহারা ॥
রাঁজজ্ঞাঁতি ছিল যত ভেক, ৃ

সবে গেল, বাঁকি মীত্র এক।
শ্বীমেঘ-বল্পভ নাম, বহুবিধ গুণধাঁম,
সিংহাঁসনে প্রীপ্ত অভিষেক ॥
সমরেতে নহেন নিপুণ,
. জপ তপে যত তার গুণ।
দুর্বল শরীর তীর, বহুকষ্টে গুণাধারু,
মৃত রাজ-চাঁপে দিল গুণ ॥ |
দুরে হত্যে করিয়া সন্ধান,
বরবিল খাঁগড়ার বাণ।



হন ভেক মুষিকের যুদ্ধ ও

ঠেকি পিষকাঁশী ঢাঁল, ধরীতিলে শর জাঁল”
ভেঙ্গে পড়ে শত শত খান ॥
দেখি মণ্ডকের মন্দগতি, ্‌
2 হাস্য করে স্ষিকের পতি। |
তাঁহার ইঙ্গিত, পেয়ে, এলো! এক বীর ধেয়ে, |
সুচীমুখ নাঁম মহামতি ॥ |
বয়সেতে নিতান্ত কিশোর, |
রর কিন্ত বলবীর্য্যে নাহি ওর।
কুলের তি তিলক শিশু, ধন্ুকে যুড়িসা ইস্ু
মার মার শর করে ঘোর ॥
দ্বিতীয় কুমার * * প্রায় বীর»
, তেজঃপুঞ্জ প্রফুল্ল শরীর । র
মহীদস্তে নিজ গু, ব্যাখ্যা করি পুনঃপুন”
উপনীত, সরোবর তীর ।
কহে “ ওরে ছার শক্র দল ্‌
, কোথা গেলি পলায়ে সকল?
আজ স্ব বিনাশিব, তেক কুল না রাখিব,
নির্ভেক করিব ধরীতল |”



০



তেক মুষিকের যুদ্ধ। ূ ২৯

ইহা বলি নাঁমিল সলিলে,
তরঙ্গ উঠিল সেই বিলে।
দেখি ত্রহ্গা খিনন হয়ে; আকাশ বিমানে রয়ে,
যুক্তি করে দেব সহ মিলে ॥

দীর্ঘ ব্রিপদী।
কহে ব্রন্গা “ একি দাঁয়, অকালে প্রলয় প্রায়;
| রুধির সমুদ্র সমুদ্ভব।
শব দেহ স্তুপে স্তূপে, দৃশ্য গিরি শ্রেণীৰূপে,
্‌ অসত্তব ভব.
এক দিবসের রণে, হেন কা ত্রিভূবনে
কভু না দেখিল কোন জনে ।

বহ্ছদিনে হেন ভাব, হয়েছিল আবির্ভাব,
দাশরথি দশীনন রণে ॥

টি তরঙ্গ বহিছে ঘন ঘন ।
হেন অন্থুভব হয়, -তেক জাঁতি হবে ক্ষয়,
কোন মতে নাহি দেখি ত্রাণ |...



2 ভেক মুষিকের খ্দ্ধ

কি দেখহ দেবগঞ্জ ! মম স্থান্টি সংহরণ,
ইহাতে আমারি অপমান ।
'যদ্যপি ভোমরা কেহ, কৃপা দৃষ্টি নাহি দেশ
অতএব ৰাঁক্য ধর; কেহ হয়ে অগ্রসর,
সেই পক্ষে হও অনুকুল ॥
সাজ গো চাযুণ্তা রঙ্গে ! দল বল লয়ে সঙ্গে”
সুৰিকের দর্পচুর্ণ কর।
তব বচন্দরজাস। ধারে, কু কভৃূকি থাকিতে
_ বর্ধরের গর্ব ঘোরতর ॥ .
অখধা হে বড়ীনন ! দেবসেনা বিমোহন,
ভেক প্রতি করুণা প্রকাশ |

নিপাতিয়ে সুচীমুখে, রক্ষা কর তুখে”
রি ম্ডুক 8, ॥

পল্কার।, |

এত, বাজ বলে বিদি হয়ে বিশ্মমতি
উত্তরে কহিছে তবে দেব সেনাপতি ॥
আন্সবধবন কর দেব বীমার বটল 1.
এই যুছ্ছে আগার হবে কৌন্‌ জল)?

া্গাহাতগারযাগনগাগাারাপা়্চাগাতা পা

উর গুলজার তালা আবাল



ভেক মুষিকের যুদ্ধ।

কাহারো না সাধ্য হবে হইতে সহাঁয়।
এযুদ্ধ সামান্য নহে প্রলয়ের প্রায় 7
এক এক মুরাঁবীর অগ্নি অবতার |
প্রবেশি সমর ক্ষেত্রে করে, না নত
আমাদের সকলের শ্রেষ্ঠ দেবরাজ |

নি ২ ৰ
সবাজিলেন দেবরাজ মেঘগণ সঙ্গে |
বহে উনপঞ্চাশ পবন নানা রক্ষে |.

'. এরাঁবতে থাকি ইন্দ্র মুষা লক্ষ্য করি । :

ছাঁড়িল বিষম বজ্‌ দেব গুরু স্মরি ॥
চমকে চপলা বালা করি চক্মক্।
উঠ্ভিল ভেকের পুরে শব্দ মক্মক্বা :.
কীপিল উন্দুর সেনা কুলিশ নির্ঘোষে |.
তথাপিও ভেক প্রতি ধায় রোষে রোৌষে ॥
দেখিয়ে সে ভাব সুচিন্তিত দেবগণ 1 7.
হেনমকাঁলে দেখ সবে দৈব নির্বন্ধন |.
উ্ভিলেক এক জাতি, ভেক-ছিতকর ॥..



২

তেক মুষিকের যুদ্ধ |

সুকঠিন বর্শধর বজ্র সমান।
লাগিলে বিপক্ষ বাণ হয় খাঁন খাঁন ॥
কুর্মীকৃতি কলেবর বক্রভাঁবে চলে | .
চারিদিগে সথুখর নখর অস্ত্রছলে ॥

যৌড়া যোড়া কাচী শোতে মুখের ছুপাশে।

স্বভাঁবতঃ মাঁংসোপরি অস্থি পরকাশে ॥

প্রতিপদে, পদে পদে গ্রন্থি বহুতর |
বক্ষস্থলে শৌভে চক্ষু কৃষ্ণ নিভাধর ॥
আটা সঁটা গঁটা গৌঁটা। দৃঢ় দেহ ধারি।
দুই পাশে আছে দশ চরণ বিস্তারি ॥
দুই দিগে ছুই মুখ দৃহ্য শৌতাঁকর ।
কর্কট নাঁমেতে খ্যাত পৃথিবী ভিতর ॥
দেবলোকে যোগ্য নাম অবশ্যই আছে।
জীবের বিরুত নাম আমাদেরি কাছে ।
এবেশে কর্কট সেনা উঠি চাঁরি ভিতে।

. ঘেরিল উন্দুর দলে তেকদের হিতে ॥

ল্যাঁজকাঁট। হয়ে ছুটে কত শত বীর ॥ .
কেহ বা হারায়ে পদ পলাঁতে না পাঁরে।
গড়া গড়ি যায় সেই সরোবর ধারে ।



ভেক মুবিকের যুদ্ধা। ২৩৩

স্তূপে স্তুপে অস্ত্র শস্ত্র পড়ে যথা তথা |.
পলায় মুবিক দল, মুখে নাহি কথা ॥
ভয়েতে বাঁড়িল ভয় ভেবাঁচেকা হয়ে ।
ভঙ্গ দিয়ে যায় নিজ নিজ প্রীণ লয়ে ॥
কেহ কেহ শ্রীন্ত হয়ে গর্ত অন্বেষিয়া ।
নিমিবে ঢুকিয়া তায় রহে লুকাইয়! ॥
হেনকাঁলে অস্তাঁচলে চলিল তপন ।
ঘোরতর তিমিরে পুরিল ত্রিভূবন |
এইৰপে এক দ্বিনে এহেন সমর |
সম্ভূত সমাপ্ত হলো বর্ণিতে বিস্তর ॥
বিথির নির্বন্ধ ইহা কে খণ্ডিতে পাঁরে।
পাত্র ভেদে এইৰপ ঘটে এসংসাঁরে ॥

সমাপ্ডতোয়ং গ্রন্থঃ |















৫





2
বি
লা
সি

জা 4

তা

নু শি
2
পবা

নী

লি
8
হি 2 রে
ইসস
রাশ ক বি?
2
দা
আজান
- রা বলা:
টা রে ০ রো ক:
টা নি পি সি 7, ৯52
রি ততঃ নি নি 2 কি০,

ই 2
নি রর
শপ রি

০
হি
৮০83 রি
লা
বি
রি

র্‌ তে
ক এ
4
কও তা

রি

টা | 2

৭
বিন ক

জি

৭
ডি

2 ১

০
দি

সি
2





1. Homer.
[Bheka-mūshiker yuddha.
Bengali poem...adapted from
the Batrachomyomachia ascribed
to Homer. ]

2. Abhayānanda Vandyopādhyāya.
[Kār kapāle ke khāy?
Bengali comedy.]

3. Rāma Vasu, and others.
[Rāma Vasu Haru Ṭhākura
prabhṛiti kavioyālādiger
gīta-saṅgraha. Bengali poems.]

4. Yādava-chandra Vidyā-ratna.
[Ṣuka-dūta-kāvya. Sanskrit
verses...With Bengali trans-
lation. ]




































3



১২৬789৮5803











পে

০৮০০



এ



মা রি টির এল ০১
রঃ ০ রা? স ০
৮ ই

দি
টি
তি ৫2
ভান রহ

টু
১

রর
নানি
হে

নিবে
রন
টা ২
228
নি রা
8 রর
ডি সর
0 ভা

টি
তে
এক
০ রা

রঃ রর

2

7558

588
রি

রী