Citation
দেবগনের মর্ত্যে আগমন

Material Information

Title:
দেবগনের মর্ত্যে আগমন
Added title page title:
Debagaṇera marttye āgamana
Added title page title:
Debaganera marttye agamana
Creator:
Rāẏa, Durgācaraṇa ( Author, Primary )
Raya, Durgacarana
Place of Publication:
Kalikātā
Publisher:
Gurudāsa Cattopādhyāẏa eṇḍa sans
Publication Date:
Language:
Bengali
Edition:
2nd edition
Physical Description:
xxiv, 792, v, iii p. : illustrations ; 19 cm

Subjects

Subjects / Keywords:
এশিয়া -- ভারত -- পশ্চিমবঙ্গ -- কলকাতা জেলা -- কলকাতা -- কলিকাতা (গ্রাম)
एशिया -- भारत -- पश्चिम बंगाल -- कोलकाता जिला -- कोलकाता -- कलकत्ता
Bengali fiction -- 19th century ( LCSH )
Satire, Bengali -- 19th century ( LCSH )
India -- Bengal -- Colonialism -- 19th century ( LCSH )
Bengali fiction -- Allegory -- 19th century ( LCSH )
Bengali fiction -- Novel -- Satire -- 19th century -- Bengal
Bengal -- Social commentary -- Colonialism and Modernity -- 19th century
Bengal -- Narrative -- Mythology and Allegory -- 19th century
Spatial Coverage:
Asia -- India -- Kalikata -- West Bengal -- Kolkata District -- Kolkata
Coordinates:
22.566667 x 88.366667

Notes

Abstract:
The arrival of the gods on the earth, being imaginary accounts by the gods of various places in India ( en )
Funding:
Arts and Humanities Research Council through the Newton Fund. Department of Business Energy and Industrial Strategy
Exhibitions:
Two Centuries of Indian Print (TCIP)
Creation/Production Credits:
Catalogued as part of the Two Centuries of Indian Print (TCIP) project led by the British Library (2016-2018).
Creation/Production Credits:
Digitised for SOAS by the British Library
General Note:
VIAF (name authority) : Rāẏa, Durgācaraṇa : URI https://viaf.org/viaf/9471022

Record Information

Source Institution:
SOAS University of London
Holding Location:
Archives and Special Collections
Rights Management:
This item is licensed with the Creative Commons Attribution, Non-Commercial License. This license lets others remix, tweak, and build upon this work non-commercially, as long as they credit the author and license their new creations under the identical terms.
Resource Identifier:
EM2010 /35567 ( SOAS Classmark )
10220375 ( ALEPH )

Full Text
ঞ এলি... | &





















২



77777 7
1 €/7//7% র্

7777777 1777 ৃ 1 17777571777
টিগি/777777575771 / টিটি 7 ঠ //% 9777 /
৫৮ র্‌ গর 14 2৫ . 14 রি রর





27772






টাতা3/-08/8ঞা৮ ৬৫,

[0959.68093* [19:৮556 569018779,, 85068--2

ট৪3০৮* 1 ১



50100 01 021ছ1খা/- িও9 সা10/৩ 5100165
[010191510 01 1-017001)



0111176: 1100://19.9095-90-480011715
010116: 020-7898 4197 (৪119/517210116)

16 1001 2009









মটচি

এ

দেবগণের ম্যে আগমন

“দ্বারকানাথ বিদ্াভৃষণ কর্তৃক সম্পাদিত
কন্পক্রম হইতে উদ্ধৃত

লুল ীজ্ল্লন্স ল্রাম্স



২০৩।১।১, কর্ণওয়াঁলিস্‌ সী, কলিকাতা

তিন টাকা








ছে্ভীজ ভন2কজন্লঞো

শভ্রিন্টার-আীনন্রেত্দর নাথ কোন.

22-
4১1] 01505 [5967590 (01078.1001191019, জনিত ও জবান




শ্-₹ জল

০ ও্বক্কাশ-সনম্সমীদক্ সশ্ডিভজজ্

৮দ্বারকানাথ বিস্ভাভূষণ

হাশর অউক্দিকত্ে

গুরুত্ব!

“দেবগণের মর্ত্যে আগমন” এক্ষণে প্রচারিত হইল। কিন্ত ছুঃখের
বিষয়, আপনার প্রিয় দেবগণ কোথায় আপনাকে উৎসর্গ করিব__না
দেবগণের হস্তে আপনাকে উৎসর্ণ করিয়াছি! আপনি যেমন যত্রসহকারে
দেবগণকে কল্পদ্রমে আশ্রয় দিয়াছিলেন, আশা! করি, দেবগণও সেইরূপ
আপনাকে যতের সহিত নন্দন-কাননে আশ্রয় দিয়াছেন। আপনি
অমরাবতীতে সুখে আছেন ভাবিয়া আমরা নিশ্চিন্ত আছি। আপনি

তথ হইতে আশীর্বাদ করুন ।

আশীর্বাদাকাজ্ী-__
কুপ্র্ণভ্্রঞস রী






সূচীপত্র

অসল্াত্ভী ।-ইন্দ্রালয়, ইন্দ্-বরুণ-সংবাঁদ, মত্ত্যের রাজী, ব্যোমষান
ও ব্যোমজীহাজ, বজ্র-পরিচালক, অমরাবতী ও কৈলাস, তুলনায়
সমালোচনা, জলের কল, ভারতের কয়েকটি দ্রষ্টব্যস্থান, বাম্পীর়
শকট । পৃঃ ১৫
্ল্কুলোকি 1--মানস-সরোবর১:. ব্রক্গা, ব্হ্গা-ইন্দ্র-বরুণ-নংবাদ,
বেদ-ব্যাসস্থরধুনী-সংবাদ, কলের গাঁড়ী | পৃঃ ৫৭
2বকুইউ।-_নারারণ-ইন্্র-বরুণ-সংবাদ, নারায়ণীর আশঙ্কা ৷ পৃঃ ৮--১০
£কছনীস্ন 1 হর-নারারণ-ইন্দ্র-বরুণ-সংবাদ,কাত্তিক-গণেশ। পৃঃ ১০--১২
হনব 1--হরিদ্বার-দৃপ্ত, ভাগীরথীর মর্ত্যে আগমন, কুস্তমেলা, ব্রন্ধা-
কুপ্ড, মায়াপুরী, বিষু্পদ্চিন্ন -ও গঙ্গামৃত্তি, নারায়ণশিলা, কুশাবর্তের
ঘাট, তীর্থের মত্ত, দক্ষগৃহ, শিব-রহিত_ যজ্ঞ, দক্ষেশ্বর; সাতাকুণ্ত,
স্থান-মাহাত্ম্য, বার্ধক্যে জীবিষ্বোগ-শোক, হুশুগ্রালন, ভীম্গদা,
কু্রভক্ষেতেল্র শঙ্খ অপ্তধারা; জক্ীক্কেস্প কলক্ষ্প-।
হাভনা দক্রিক্াা্রন্মেল্র স্রঞ্খ, নীল-পর্বত, নীলধারা,
গৌরীশঙ্কর, বিল্লোকেশ্বর, পিছোড়নাথ) এক্কা, : একার ঘোড়া ও
কেরাণী, কটলি-খাল |. পৃঃ ১২--২১ -
সাভালাপিঞ্টুক্র 1--স্বগীয়-সুদ্রা-বিভ্রাট্‌ দ্রেশীয় টাকা ও না ডাক-
রণার্‌, ডাক, পোষ্টকার্ড, ্টীলপেন, ওয়েটিংরুম, জেপ্টেল্ম্যানের অর্থ,
হাটের গুণ । পৃঃ ২১--২৫
দিলনী ।--ইন্দ্রপ্রস্থ, ধৃতরাষ্ট্রের কেল্লা! ইন্দ্প্রস্তের জা নাতি
কেল্লা, পাগুবগণের আশ্রম, রাঁজস্য-ষক্ঞস্থান, আগমযোড়ের ঘাট,
সিয়ারগড়, ইন্দ্রপথ, হুমো বা হুমায়ুন কে ?--দিলী নাম কেন?






19০



লোহার পিল্পে বা ভীমের ছড়ি, লালকোট, কেন্লারায় পৃথুরাজকা',
অনঙ্গপাল দ্রিঘা, ভূতখানা, কুতবইস্লামের মনস্জিদ্, কুতবমিনার-
কথা, জাহনপান্ন! বা সাতকেন্ল! দেয়ানদরজা, জাহানারার কবর,
নিজামকুপ, ফিরোজদাহের ছড়ি, বোর্কা, সাতপুলার_ বাধ) হুমাযুনের
কবর, নবাবী গোরস্থান, সাজাহানা বাদ; বিবিধ গেট, টাদ্নীচক, যুন্মা
মস্জিদ্‌, ভারতের টারা১ সজাহান বাসার -রাজবাটী_-ও কেল্লা
দেওয়ান-ই-খাপ, যয়ুর-তক্ত, স্ত্রীলোক ও বাদসা; নবাবী অন্দর,
বাবুদের বিবি, হামাম বা স্নানগৃহ, .কালোষ়াৎ আলিমদ্দিনের- থাল,
হাজারিবাগ, নাদীরের-ভারত-আক্রমণ কথা) কোহিনুর কথা, -গাজি-
মদ্দিনের কলেজ, রোহিলা-উপদ্রব, লাইব্রেরী, যাদুঘর, কুইন্স. গার্ডেন,
দিল্লীতে দেওয়ানী, দিল্লীকা। লাড্ডু, ফয় তা দেওয়া, টিকিট: কেনা,
বাভিনগ্গডডিল্ল ন্িলক্রঞ্প, মৃত্তিকার ভুর্গঃ কলেজ, মথুরার ট্রে,
ব্রজবাসী বা বুন্দাবনের পাণ্ডা ॥. -পৃঃ.২৫--৩৯

স্হ্ুুলরা ।--কংসের: কেল্লা; কংসটোলার- বিবরণ) দেবকীর কারাগার,
দেবকী ও শ্রীুষ্ণ-মুতি, দেব ও দৈত্য, যমুনা, পৃতনাকাহিনী, পৃতনা-
ঘাট, বিশ্রাম-ঘাট, যমুনার কচ্ছপ, কচ্ছণে কাম্ড়ীনর -ওউধধ) এখানে
এত কচ্ছপ কেন ?--বুন্দাবনের ভিক্ষুক, শেঠেদের ঠাকুরবাড়ী,
শোণার তালগাছ |. পৃঃ ৩৯--৪২

হল্ড্বীবন্ম |-চৈতন্ দাস বাঁবাজীর- কুঞ্জ, : বাবাজীর : ধর্মম-ব্যুৎপত্তি,
গোবিন্দজীর- ভগ্র মন্দির, গোরিন্দজীর নুতন মন্দির, গোঁবিন্বজী-কথা,
ললিতা, দ্বারকার ছ্বারকানাথ, জয়পুরের রাজার দান, বৈরাগীদের
প্রকাঁর, পদ্মষোনির আফিং ও গাই, ছুঃখিনী বঙ্গ-রমণী, ছোঁড়াদের
কাণ্ড, বুন্দাবনের মন্দির-কথা,. গোগীনাথ--কেশীঘাট, বকান্ুরঘাট,
বন্রহরণ-বুক্ষ) বন্ত্রহরণ কি? কেলি-কদন্ব; ব্রহ্মকুণ্ড, গোপেশ্বর, হরিদান
গোস্বামী, তপোবন, পুলিন, লাঁলাবাবুর : বৈষ্ণব-ধর্মম গ্রহণ, লালাবাবুর













০০১৩০855292






কথা, লালাবাবুর সৎকাধ্য, গোঁবদ্ধন রংজী, নিধুবন, ললিতাকুণ্ড;
বুন্দাবনী চাদর, রাধাকান্ত দেবের কীর্তি, রূপগোস্বামীর আশ্রম, ভরত-
পুরের মন্দির, মদনমোহন, চৈতন্টের পদচিহ্ন, রূপসনাতনের বৈরাগ্য,
নিকুঞ্জবন, মাখন-গাছ, বস্কৃবিহারী,. গোবদ্ধন_ পর্বত, গোবদ্ধনদেব,
বুকভাঙ্গু, বুন্দাবন-নামোৎ্পত্তি, বুন্দাকাহিনী, মানভঞ্জন, ছুলন ও ঝুলন,
বৈরাগীর কদাচার কাম্যবন, নন্দনবন, নন্দ-যশোদা-মুত্তি, ৫গীকুক্ন,
গোঁকুলনাথ, বুন্বাবন-বৃত্বাস্ত, কুণ্ড, কুঞ্জ, স্থানীয় পণ্যদ্রব্য, বহুবিবাহ,
ইঃ আইঃ রেল_উ লা) পৃঃ ৪২৫৯ ্‌
আগ্রা ।-আগ্রার কেল্লা, হোটেল, ব্যাসদেবের জন্মস্থান, যসুনাঁসেতু,
টেনস্‌ ব্রিজ, এমদাঁদ-বাগ, রামবাগ, যমুনার খেদ, কপিলার বন্ধন,
কালীবাড়ী, কেন্লা, বোখাঁরা-গেট, নহবত-খানা, দেওয়ান-ই-খাঁস,
সন্মনবুর্জ, শিশমহল,- মছলিভবন, স্ুড়জগ, দেওয়ানখানা, সোমনাথের
দ্বার, মতি মস্জিদ্‌) মন্বর-সিংহাসন-কথা, জাহাঙ্গীরের স্নানপাত্র,
মহাভারতের কালের কামান, সুড়ঙ্গ, দেবগণের আত্মকথা, তাজমহল,
মমতাজ মহল, তাঁজের ইতিহাস, টা পণদ্রব্য১ আদালত, কলেজ
প্রভৃতি । পুঃ ৬০»-৬৮
্কামপ্নুক্র ।--দতীচৌড়ার ঘাট, বাব মাঁকাঁল ঠাকুর, ছুর্নীমুণ্তি
কটলিখার খাল, জল চালিত মক্নদার কল, : হত্যাগৃহ-কাহিনী, সিপাহী
বিদ্রোহের কারণ, নানাসাহেব, হত্যাকুপ, বিদ্রোহে বাঙ্গালীর উপর
অত্যাচার, বাঙ্গালীর চাকরী, বারিক, চর্মদ্রব্য, শৃদ্রের ধৃষ্টতা ব্রান্মণত্ব।
পৃঃ ৬৮৭৭ | ৃ
কলক্ট্ক্িগ। লক্ষ্মণীবতী, বিজয়সিংহের রাঁজবাটা,. আজিমাঁবাদের : বাজার,
কেশব বাগ, নবাব ওয়াজিদ্আলি সাহ, নবাবের হোলিখেলা, নবাবের,
কৌতুক, ছত্র-মস্জিদ, মতিমহল, বেলিগার্ড, লরেন্সের কবর, আলম
বাগ, সেকেন্ত্রা বাগ, বাদস। বাগ, নবাবের ন্নানাগার, রৌশন্‌







উদ্দৌলার কুঠি, গাঁজিউদ্দিন হয়দারের কবর, লক্ষৌয়ে বাইনাচ, স্ুর-
দ্রাসের সেতার-বাঁদন, কাঁলকা ও কেদারের নৃত্য, বারাণসীবাগ,
মর্মমর-বর্ম? ল! মাটিনীয়! কলেজ, ক্যানিং কলেজ, লক্ষৌর পাণতামাঁক,
ভৈরবনাথ, সাতাইশ রকম চিজ্‌, আগ! মীরের দেউড়ী, ইন্নিজ্যা-
ল্তুপোতেল্র গা, তথায় আছে কি? ব্রহ্মাকুণ্ড, ললিতাদেবী,
তোতা» রামচক্দ্রের জন্মবেদী, হন্ুমান্জী, ম্পান্তশুস্ম,
রামঘাট, স্বর্গ ঘাট, অযোধ্যার শিব ও কালী ।. পৃঃ ৭৭-_-৯০
হ্ীস্নী।--সিক্রোল্-_গঙ্গাপুক্র, সিক্রোল_ কলেজ, পুস্তকালয়, উইল-
ফোর্ডের কবর, গঙ্গার জন্ত ব্রহ্মার খেদ, মণিকণ্িকা, চক্রতীর্থ,
মরাঘাট, কাশীতে সর্বাগ্রে কুমারী-ভোজন কেন;--চণ্ডীপুজার কারণ,
দিবোদাসের কথা, বিশ্বেশ্বর, ব্রহ্মা-নারায়ণ-শিব-অন্নপুর্ণা-সংবাদ, কলের
গাড়ীর কথা, তীর্থে প্রথম দিন, বরুণ ও ম্যালেরিয়া) “ম্থুরির” জারি,
কাশী পশ্চিমের ফরাসভাঙ্গী, . ব্রহ্মা ও. অন্নপূর্ণা, রাজরাজেশ্বরী-ঘাট,
কাল-ভৈরব.ও তাহার উৎপত্তি, অব্যয় কে ?-_-কাণী সৃষ্টির কারণ,
আরতি, পুরাতন ভগ্ন মন্দির, মুসলমান উপদ্রবের ফল, জ্ঞানবাগী. কি?
_-অন্নপূর্ণার হাতে হাতা ও থাঁল! কেন ?-_ক্রিলোচন, সঙ্কটা, ব্জ-
বিধবা ও ম্ন্ুর বিধি, কলঙ্ক-কথা গীত (টগ্পা )__-কুলটার কাশী-
মাহাআ্যু-কীর্ভন, গীত. (টগ্লা )--কুলটার দেবলীলা-কীর্তন,, অন্নপুর্ণা-
নারায়ণ-সংবাদ, বিশ্বেশ্বরের মন্দিরের নির্মাতা কে? কান্ধুর বেণু
শিবের শিঙ্গ1, কাশীর ভাঙ্গন নাই কেন? স্থানীয় পণ্যদ্রব্য, প্রাচীন ও
আধুনিক কাশী, ছূর্গাবাড়ী, দগ্ডপাণিকেম্বরের উৎপভির কারণ,
কাণীতে স্নানযাত্রা, যুব! ভিক্ষুক, কাশীতে নারায়ণ, আদি-কেশব ও
কমলা, ভূপালেশ্বর চক্ষুক্মান্অন্ধ, কেদারনাথের উৎপত্তি, স্থানীয়
পণ্যব্রব্য, জোস্তেশ্বর শিব ও জ্যোষ্টা গৌরী কাহা দ্বারা স্থাপিত ?--
বীরেশ্বরের স্থাপন-কর্তী_. কে 1_ দ্েবগণের বিদায়-পর্ব--পারমিশন্‌













লেটার, কথাবার্তায় ইংরেজি বুকৃনি, বিদায়, অগস্ত্যে্বর ও অগস্ত্য-
কুণ্ত, তৈলঙ্গ স্বামী, পিশাচ-মোচন তীর্থ, রাজঘাট, ব্যানকাশী-নিন্মাণের
উদ্দেশ্ঠ, অ্রাস্মলগ্গক্র রামনবমী, - বুন্দাবনে শেঠেদের দেবালয়ের
বিবরণ, বারাণণীর স্থুল বৃত্তান্ত, গুণ্ডা, মান-মন্দির, -বাপুদেব শান্ত্রী,
মিত্রপরিবার-পরিচন্, রাজা শিবপ্রসাদ, প্রয়াগ বাত্রা, - মহাতীর্থের
আভাষ, দেবগণের শেক্হাণ্ড শেক্হাগু-প্রথা, মিরজাপুর টোনস্‌
ব্রিজ, যমুনা! ব্রিজ ও ষ্টেনেস্‌ ব্রিজ । পৃঃ ৯০--১৩১ ৃ
প্রননা্ান্বাদত ।--ফকিরাবাদ, বেণীতীর, চক, প্রয়াগের পরামাণিক,
কেল্লীর ইতিবৃত্ত, আকবর হিন্দু ?-_পাতীলগুরী, অক্ষয়বট ও শিব,
আকবরের প্রাসাদ, ভীমের গদা; ভ্রিবেণী, ঘাটের কাণ্ড, নাপিতের
ইাকাই, হনুমান্‌ ব্রিজ্রোতা, নৌকায় ভিক্ষা, পদ্রার মা) আলোপীবাগ,
আলোগী দেবী, উৎপত্তির কারণ, বেণীঘাট, বিষ্ুমুত্তি, বেণীমাধব,
হবাচক্র্রের রাজবাটা, হবাচন্দ্রের শাসন-প্রণালী, রাজা বাসকি, বাসকির
ঘাট, শিবকোটা, যমুনাআোতত্রয়, দিললীযাত্রা, -প্রয়াগ; সেতুর তিনটা
ভাগ, যমুনা ত্রিকালিদর্শিনী, খসরুবাগ, সরাই, . যুল্মা মস্জিদ, বৈছের
উপবীত, এল্ফ্রেড্‌ পার্ক, থর্ণহিল্‌ মেমোরিয়্যাল্‌, হাইকোর্ট, মিয়াস
কলেজ, পদোর কান্না, এলাহাবাদের সংক্ষিপ্ত বিবরণ । পৃঃ ১৩১--১৪৭
স্কিভ্কাপ্ুুক ।-_মিরজাপুরের কেল্লা, চক, বিশ্রীম-ঘাট, নৌকার
প্রকারভেদ, বাহাছুরী কাঠ, সন্ন্যাসীর হাত-সাফাই |: পৃঃ ১৪৭--১৭৩,
নিলজ্য্যাভ্কল !-_-যোগমায়া, বিন্ধ্য-শিখরে - যোগমায়া, বিন্ব্যবাসিনীর :
উৎপত্তি কথা, সুড়ঙ্গ, দেবীর গাত্রবক্্, সংহার-মায়া, মহাকালী_ কি
মুত্তি?__নাথজীর সমাধি ও আসন-_চুল্বা্র, চুনারের কেল্লা,
স্থানীয় পণ্যন্রব্য, গ্াভিতপ্ুু্েল্ কহ ক্যান্টনমেণ্ট,

কর্ণওয়ালিসের কবর । পৃঃ ১৪৯--১৫২ 3.
আল ।--বক্সারের কথা, কাশিম-আলির - প্রাসাদ, নিরাদিতন







15 &

তপোবন, গৌতমের তপোঁবন, অহ্ল্যা-পাঁষাঁণী, অহল্যা-পাঁষাণী হয়
কেন ?- ইন্ত্রলীল1,. বন-ঠাঙ্গীন কি?-_বিধাতার: দৌষ কি?
গবর্ণমেন্টের অশ্বশালা, শোণ বিজ, ব্ঁক্কিঞ্টুল্র- গয়ালী ও
চৌবে | পৃঃ ১৫৩--১৬১ ৰ

গা ।-_গয়া জুগম হওয়ায় ব্রহ্মার উদ্বেগ, গয়ার শ্রেষ্ঠত্ব, বৃন্দাবনের চৌবে-
পরিচয়-প্রথা) মধুগয়া ও সিংহগয়1, গয়্ার উৎপত্তি, গদাধরের মন্দিরে
পিও দেয় কেন ?__মর্ত্যের কোথায় কুলট! নাই? ফ্ত) অন্তঃসলিল!
কেন?__দীতাকুণ্ড, রাম-লক্ষষণ ও সীতা-ুত্তি, ফন্তুশ্রান্ধ, ব্রাহ্মণ, তুলসী
ও ফন্তু, ফন্তুপ্পান-মন্ত্র বিষুমন্দির-পিগুদান-প্রক্রিয়া, পিগুদান-মন্্র,
বিষুমন্দিরের নির্মাতা কে ?-_গদাধর, রামশিলাঃ ব্রহ্মযোনী, গয়ায়
বেশ্তা ও লম্পট; প্রেতশিলা; সুফল; বোধিবুক্ষ; গয়ালীর উৎপত্তি,
সফল পীড়ন; পূর্বোক্ত বেগ্তা ও-লম্পটের কাণ্ড) গয়়ার বিবরণ» গয়ায়
বুদ্ধদেব, স্থানীয় পণ্্রব্য; ভীমসেনের পিগুদান, ব্রহ্মা-কর্তৃক গয়ায়
গোদান। পুঃ ১৬১--১৭৩

কপাল] 1--বাকিপুর, দানাপুর পাটন1 বা আজিমবাদ, পাটলিপুজ্রের
ইতিহাস; নন্দ-চন্ত্রগুপ্ত-অশোকের রাজবাটা,চাণক্য-ও রাক্ষসঃভীমসেন,
হাজিপুর; গজ-কচ্ছপের যুদ্ধক্ষেত্রঃ হরিহরনাথ, হ্ল্লিহক্র-ভহজেব
সমন, মাণিকটাদের পুক্করিণী, খাগ্ভ-খাদক, কম্করবাগঃ জেলখানা;
ডারুবাজগলার হোটেল; গোলাঘর, আফিসাদি, এজেন্ট আফিস, শাশুড়ে
বাবু; মেডিক্যাল হলঃ কলেজ, এমামবাড়ী, গোরস্থান, আফিম-গুদাম-
মানব-হন্ত্রী আবকারী, আফিম স্থষ্টি কেন ?--পাটনদেবী, এমামবাড়ী,
পয়গম্বর ও দেবগণ, খুষ্টের বুথ, পণ্যদ্রব্য১ রামনারায়ণের : কেল্লা
ব্যবসায়ের কেন্দ্রষ মারুগর্জঃ বেহারীর স্বাস্থ্যবোধ, হরমন্দির,
গুরুগোবিন্দের পাদুকা ও গ্রন্থ, গুরুগোবিন্দ কে ?--দশীন্বাস্নু-
বারিক, পাটনার প্রসিদ্ধ দ্রব্য, লবী্ড১ ফুলের তৈল, ্সিহিিজনা১





জনকপুরী, সতভি2গফজুঞ্যু্র* বেহারী যাত্রীর প্রকৃতি, গার্ড কর্তৃক
রেলযাত্রীর ব্যবস্থা ব্রহ্মার ছুর্দশা১ বেহারীর গাত্রগন্ধ, ভারত-ভাগ্যে
শনি; উপশনিঃ কেরানী-কথা । পৃঃ ১৭৪ ৮৯
ভ্কীাজলষ্টুল্র 1 ওয়ার্কশপের ভোঁঃ হেয়ালী, আবার কেরাণী-কথাঃ
রেলওয়ে ওয়ার্কশপ বা কারথানা, সাহা! ফ্রেগুস্‌১ অথান্ভে বিগ্ঠাবাগীশ,
গৌরমোহন সাহার কথা,সীতাকুণ্ডের সোড! লেমনেড,বাঙ্গালীর বাবুয্ানা
ও ইংরেজের হিসাব, বাঙ্গালীর অবনতির কারণ, বড়-বাবুঠ রেলওয়ে-
কোয়ার্টার, সাহেব-মেম-সংবাঁদ, কৃপণের কথা, ট্রাফিক বাবু, দেবগণের
নিবাস ও পরিচয়,অমরপুর-সমাচার, বৈদ্কের বিবাহ-বাজার, সন্তান-বিক্রয়,
সন্তান-বিক্রেতার প্রাক়শ্চিত্তবিধি, তাস খেলা, মেঘের বাস, আমোদ-
প্রমোদ, ভোমার অর্থ, রেলওয়ে হাসপাতাল, মেকানিক ইনৃষ্টিটিউট্‌,
ইরিসভা, হরিনাম-ফল, ঘৌঁড়দৌড়ের মাঠ, পাহাড়ে কালী, মুনি-কোটর,
চার্চ (রোমান ক্যাথলিক ও. প্রোটেষ্টাণ্ট ), শ্রমজীবী ঝ কুলি-কথা,
রেলওয়ে পাশের কথা; কাশীরামদাস, চাকরী-প্রসঙ্গ, উপশনি-কথা,বাবুর
পদ” কি? রেলওয়ে ট্যাস্ক, পম্পিং এগ্জিন ঘর, দ্েবগণ বাবুর "দস্তে,
বাবুস্ততি, চাকরীর. বাজার, গত্যন্তর; ব্রাহ্মমঠ) ব্রাঙ্মধর্মের সার্থকতা,
রাঙ্গধর্ম কি? বাঁধা বেশ্তার ব্যবহার, তাস, ওয়ার্কশপের পাশ, চাকরীর
বাজার, লোকোমোটিভ আফিস, রিডক্সন-বিভ্রাট, উমেদারের পরীক্ষা,
সম্ব্ীর তীক্ষু বুদ্ধি, চাকরীর বাজার, মেন লাইন্‌ ষ্টেশন প্র্যাটফন্ম, তার-
বাবুব উৎপত্তি, নিমন্ত্রণ-ভোজে পদ-তারতম্য, মুদ্রা-মাহাত্মা-ভর্ভৃহরির
শ্লোক) ওয়ার্কশপের কুলি--টিকিট, ওয়ার্কশপের অত্যন্তর, নিউ টনিং
শপ, ইরেক্িং শপ, ওল্ড টিং শপ, ব্রাস্‌.ফিনিসিং শপ) ফিটিং
শপত ব্ল্যাক্ম্মিথ শপ বোণ্ট মেকিং শপ :স্পিং শপ, স্থইল শপ
কপার্‌ স্মিথ শপ টিন্ম্মিথ শপ, প্যাটার্ণ- শপ, ব্রাস্‌ ফাউগ্ডি,
আয়র্ণ ফাউগ্ডি,, আফিস, বেতন বর্ধনের কৌশল, পিতা-পুক্র-







সংবাদ, মুঙ্গের, : ব্রাহ্ম-দম্পতি, ঢেবুয়া, জামালপুরের সর্খক্ষপ্ত
ইতিহাস। পৃঃ ১৮৯-__২৩৪

মুছে মুঙ্গের কেল্লা (জরাসন্ধের )। লালদরওয়াজা, রাজা রাজ-
বল্পভের হত্যার কারণ্মুজের-নামোৎপত্তিঃ হাসপাতাল, সৎকার প্রহসন,
কষ্টহারিণীর ঘাট, “বৌলী”, কষ্টহারিণী নাম কেন? মুদগল হইতে মু্গের
হইল কেন?, করণচড়া» গীপর পাতি, চণ্তীস্থান, বিক্রমচত্তী সম্বন্ধে গল্প,
দাতাকর্ণ ও বিক্রমাদিত্য-কাহিনী, শিব-অন্নপূর্ণা-পার্বতী-কালভৈরব,
শ্মশান- ঘাট, নবাবের . প্রাসাদ-চিহ্ন, জেল, পৈতা। ছে'ড়ার গল্প,
আদাল-তাদি, স্কুল, চিত্রশীলা, কেরাণী-সম্প্রদায় ছুই শ্রেণীর, উপরি
লাভ, পৌওংরহন্ত, স্থানীয় পণ্যদ্রব্য, ব্রাহ্ম সমাজ, ত্রাহ্মসংখ্যা, মুল্গেরের
সমাজ বিখ্যাতকেন ?_-প্রচারক পরিচয়, স্লীত্ভাকুু্ড ও পাগ্ডাগণ,
লক্ষষণকুণ্ড রামকুণ্ড, রামমন্দির, সীতাকুও, প্রেতনীলা, সীতাকুণ্ডের
উৎপত্তি, রামকুণ্ডের জল, সীতাকুণ্ড কি? পিতৃ-পিগুদান, পাগার
বসন্ত, গীর পাহাড়, প্রসন্নকুমার ঠাকুর, আধ্যসভা, বক্তৃতার নমুনা,
মুঙ্গেরের সংক্ষিগুবিবরণ, স্থানীয় পণ্যদ্রব্য, পাঁশ-পরিচয়ঃ টনেল বা
নুড়ঙ-পথ, সুেনক্ভাম্মগ্গগুঞ বা জহুআশ্রম, গৈরিকনাথ,
কিন্বদস্তী; রেলে বঙ্গ-রমণী | পৃঃ ২৩৪--২৬৭

ভ্ডাগ্গলপ্পুব্র__মাড়োয়ারী পটি, মাড়োক়্াড়ীর বিবাহ-বাত্রা,. যোগসর,
বুড়োনাথ, মাড়োয়ারীর ব্যয়, স্নানের ঘাট, মাড়োয়ারীণীর স্নান, মুসল-
মানের জবাই, সরাই, হিন্দুর বিপরীত মুসলমান, ৮স্পপাইল্গগল্র
কর্ণপুরী, বেহুলানদী, চম্পাইনগর নামের উৎপত্তি, কেল্লা, কর্ণের
গড়, চাদ সওদাগর, বেহুলার উপাখ্যান, সাতালি পর্বত, রাজবাড়ী,
রেল-বাবুদের কে বড়? রামবাত্রায় হনুমান, লাহহে-বগ৪--স্থানীয়

- পণ্যদ্রব্যঃ দেশীয় শ্রীষ্টান, কোম্পানীর বাগান, কর্ণেলের বাড়ী, জৈন
মন্দির, মনন্থরগঞ্জ, ভাগলপুরী_ উকীল, মডেল বাবু, রুটি বিস্কুট,







স্কুলের বালক, কলির কাপ, কপচায় ভাল, স্কুলের বালিকা, রমণীর
বিদ্যাশিক্ষা, বিদেশে বঙ্গরমণীর ধর্মবিশ্বাস, ব্রতনেম, রক্ষাকালী
পুজা, ব্রান্মের গৌঁড়ামী, খঞ্জনপুর, বর্ধমান রাজবাটী, মিঃ জঙ্জেল,
ভাগলপুরী গাই, বিচারালয় ও বিদ্যালয়, সেপ্টাল জেল, রমণীর
ছুর্বদ্ধি, দম্পতি-ব্যবহার প্রহসন, মুনিকোটর, ভাগলপুরের সংক্ষিপ্ত
বিবরণ, শূহ্ঠ কেল্লা, কাহালগাঁ, ভীম একাদশীর কথা, সীজরন্পীঁভি,
বৌদ্ধ মন্দির, পীরপৈতির পাণ, মেড়য়াবাজী যাত্রী, সাহেবগঞ্জ,
রেলওয়ে ডিঃ টিঃ আফিস, রেলওয়ে গার্ভ-নিবাস, সিক্রিগলি, কেল্লার
ভগ্রাবশেষ, : কৃষ্ণজী-মহাবীরজী, কারগোলা, মহারাজপুর, ভিল্ব-
সীভ্ঠাড্ড, রাজমহল, তেলিয়াগড়ির তুর্গ-চিহ্ণ, সিংহ দালান, নবাব-
দেলারি-চিহ্ন জুম্মা মসজিদ, রাঁজমহলের তামাক, নলহাঁটা, বেহারীর
টিকিট, আজিমগঞ্জের পথে, ব্রাঞ্চ লাইনের গাড়ী। পৃঃ ২৬৭-_২৯৫
সুর্শিদলীবাদি__আজিমগঞ্জ, ধনপৎ্ সিংহের কথা, ভিক্বাগঞ্জ, কেঁয়ে-
কথা, বালুচর, চেলি, লছমীপতের বাড়ী, মহিমাপুর, জগৎশেঠের
বাড়ী, জগৎশেঠ কে? নসাপুর রাজবাড়ী, "ুলম্পিদলী দি, নৃতন-
প্রাসাদ, অন্দর মহাল, এমাম বাড়ী, তোপধ্বনি, নিজামত স্কুল ও
কলেজ, নবাবের পেন্সন্-রহন্ত, কুনারোগ, আলিবন্দির কৃথা ও কবর,

সিরাজ-উদ্দৌল্লার কথা৷ ও কবর, আগ্গভ্ড? খাগড়ার ঘাট, খাগড়ার
বাসন, মুড়কী, জুয়াচোরের গল্প, বহরমপুর ব্যারাক, বাঙ্গালীর মিলি-

টারী ড্রেস, রামদাস সেনের জীবনী, বাইসাইকেল, মহারাণী স্বর্ণময়ীর
বাটা, রাণীর প্রকৃতি, স্বর্ণময়ীর জীবনী, রাণীর বদান্ততা দেওয়ান
রাজীবলোচনের জীবনী, কাশিমবাজারের রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা
দেওয়ান কুষ্ণকান্ত নন্দীর কথা, রাজা দিগন্বর মিত্রের শ্রীবৃদ্ধির স্ত্রপাত,
লক্ষমীনারা়ণজীর মন্দির, মুর্শিদাবাদের সংক্ষিপ্ত বিবরণ, ত্লাম্মুস্তা
জানি, দেওয়ান গঙ্গাগোবিন্দ সিংহ, বিজ্ুমুত্তি, মস্তরাম বাবাজী,







79/ ৩

ল্াস্গ্নুল্রহ্ীভি, হরিসভা ও. ব্রাঙ্মদমাজ, সিঙ্থিয়া বা. সাই থিয়া,
লীল্রকভন্ম, সিউড়ি, বীরভূমের রাজার কথা, বোলপুর) স্থপুর,
স্থুরথ রাজার কালীমুণ্তি, ব্ুনুুভকথস্নন্ম, হযাাহ্খ, বৈগ্ভ-
নাথের_ উৎপত্তি, কর্মনাশা, নদীর. উৎপত্তি, জয়ছুর্গী, রেলওয়ে স্থষ্টির,
কথা | পৃঃ ২৯৫--৩৯৯

বর্জুহস্বীন্ন_বাবুর ব্যাগ বিভ্রাট, রাণীদায়ের, ওলা শ্যামনায়ের, জেল,
বেশ্তাশক্তির. পরিণাম, সর্ধমঙ্গলার পুক্করিণী, কৃষ্ণসায়ের তোপ, .বেশ্তার
ব্যবহার, কৃষ্ণসায়েরের টাদনী, যমের সংবাদ, .গোলাপবাগ, দেলখোস-
বাগ, চিড়িয়াখানা, বাঘের কথা, বনমানুষের কথা, বানরের কথা,
রাজহংসের কথা, গোলোক_ ধার্ধা, গজগিরি, -গোলাবাড়ী, - রাজ-
প্রাসাদ, রাজবংশ-পরিচয়, -মহাতাপ মঞ্জিল, রাজার মহাভারত,
বারদ্বারী, ব্রাঙ্গদমাজ, নারাক্মণী-মঞ্জিল, রাজ-কাছারি, লক্ষ্মীনারায়ণজী:
বিগ্রহ ও পুজা, দুর্াবাড়ী, পটে পুজা, স্কুলবাড়ী, গোশালা, অন্রপুর্ণা,
ও রাঁধাবল্পভজী, রামছুলাল ময়রা, পাঁচন-রহস্ত, ডাক্তার, ওলা! উঠা,.
বাকা, বারদ্বারী_ বাগান, . মালিনীপোতী».. বি্ান্থুন্দর) ভারত-
চন্্র রায়ের জীবনী, সর্বমঙ্গলা ও তাহার বাড়ী, নবছুর্ণা, উইলবাড়ী,
হাসপাতাল, -বাপ-বেটার_.এয়ারকি, তেল মাড়াই, বেগ্তার ব্যবহার,
কলে -জল_ সরবরাহ, ব্রাহ্মণনমাজাদি, _ওয়েব্রেটের গির্জা, পুরাতন
বর্দমান, সর্বাসিং-কাহিনী, মের আফগানের কাহিনী, আজীম ওসমান
মসজিদ, কলির বৌ, বর্দমান ত্যাগ, উডডেন্‌ পেন্সিল, বাবুত্র ধোপানী-
গ্রীতি, বর্ধমানের সংক্ষিপ্ত বিবরণ, চল্জুিকছ্ি, চকদিধীর জমিদার |
বংশ-পরিচয়, হিঃ বৈচির জমিদারগণণ গ্রাওল্রাঙ্ক রোড নামকরণ,
কুকৃড়ো | পৃঃ ৩২০--৩৪৯

গালা, পেঁড়োয় মন্দির, গোধুদ্ধের বিবরণ, সা-সফি পীরপুকুর, 'রারুর
কাণ্ড, ফতেখার এমামবাড়ী, গীরপুকুরের.ফকীর ও কুমীর, শ্তামার






/৩/ ৩

মার সিন্নি ভামানঃ পেঁড়োর পুকুর» গোঁধুদ্ধ-ক্ষেত্র» রাখালের - গান
পরিখা, -কবরস্থান, ভিত্রতেেলী, পেঁড়োর. বিবরণ, নিধুবাবুব, টগ্লা,,
নিধুবাবুঃ পাওুয়ায় বম, যমের বৈমাত্রেয় ভ্রাতৃগণ, খন্ঠ্যেল্, ষ্টেশন
মাষ্টারদিগের উৎপত্তি, নগ্পল্রণ ডাকাতে কালী |. পৃঃ ৩৪৯--৩৬১,

টি্বেলী, গঙ্গা স্তব, মজুমদারের ঘাট, মুকুন্দদেবের ঘাট, বেহুলা .ও.
নেতো ধোপানীর কথা, গঙ্গাযাত্রায় পাট করা, ব্রহ্মাপুজাঃ পুরোহিতের
হিতকথা,.. পুজার বরাদ্দ, কুচা নৈবেছ্ঠ, দফরাগাজির উপাখ্যান,
গঙ্গামাহাত্মা, শিবেশ্বর, _কালীদ্রহ,.জগন্নাথ তর্কপঞ্চারনের. জীবনী
ডুমুরদহ, বিশ্বনাথবাবু বা বিশে ডাকাত, আশানন্দ_টেকী, বারোয়ারী-
তলায় যাত্রা, গীত ( দূতী-সংবাদ )১ গীত. ( কুষ্চলীলা),.ভ্রিবেণীর
বিবরণ, ব্রিবেণী-মাহাত্মা, প্রায়শ্চিত্ত তত্ব, কবিকঙ্কণে সপ্তগ্রাম, মুকুন্দরাম-
চক্রবর্তী কবিকন্কণ, ত্রিবেগীর সংক্ষিপ্ত বিবরণ । পুঃ.৩৬১--৩৭৮

জুগ্গীকনী, জীবন পালের.বাগান».জজ সাহেবের বাড়ী, রেভারেও লাল-
বিহারী দে, চক্‌, গড়খাই, ম্মিথ. সাহেবের ঘাটঃজুরি, কলির পিতা-পুত্র-
সংবাদ, খা জাহা খাঁ, ব্যাণ্ডেল: চর্চ, হুগলী. ..এমামবাড়ী, মহসীনের
উইল, ছাপাখানার স্থষ্টি, জেল, পটু গীজের কেল্লা, গীতি» রাম-
কমল সেন, ধর্মচ্যুতির খেসারত, হুগলীর অংক্ষিপ্ত বিব্রণ, : সপ্তগ্রাম-
তুর্ণের ধ্বংসাবশেষ | পৃঃ ৩৭৮--৩৮৯ জা,

চুঁ চিজ্ভা বারিক,. চু'চড়ার ইতিবৃত্ত” সোমেদের বিষয়» বঙ্গ সামাজিক
কলক্ক-কথা) কলেজ, প্রাণরুষ্ণ হালদার, মহসীনের বৃত্তির ফল) মৃহ-
সীনের জীবনী-__রামগতি ন্তায়রতত, ডচ্ণির্জা, কবরস্থান, আন্মানি গির্জা,
কন্তাবিক্রয় প্রথা, এডুকেশন গেজেট, ভূদেব মুখোপাধ্যায়ের জীবনী

ইংরাজ রাজত্বের তুত্রপাত-বার্তী, হুগলীর সংক্ষিপ্ত বিবরণ ।
পু, ৩৮৯৪০,

ভল্দুল্মল্গ্গল্র, তালভাঙ্গীর ফটক, তুড়,মূ, গুলির আড্ডা, বিচারক



টং

পণ্তিত, গবর্ণমেন্ট হৌস, ফরাসী জেল, দায়মালির দণ্ড, হাফ. ফীসী,
ফরাসী-কেল্লার ধ্বংসাবশেষ, গুলিখোর ব্রাহ্মণ, কুরজংএর বাটা,
ইতালীয় গির্জা, গুরুর কাণ্ড, - ব্ভিচারিণীর হর্দশা, চন্দননগরের
সংক্ষিপ্ত বিবরণ, ৫গ্গীদকলস্পীড্ডা, ভি্িন্নীস্পীক্ড়ী, অন্্পূর্ণা,
মাতৃদ্রোহীর পরিণাম, স্ত্ীস্বাধীনতার ফল, শুভজেশ্। শিব,

. . স্ত্রীস্বাধীনতায় বিপত্তি । পৃঃ ৪০১--৪১৬

ুল্চাঁডভী-_বাঁজার, মাঝির গান, নিমাইতীর্থের ঘাট, জ্রণহত্যার
জল্পনা, কাঁলীবাড়ী, বেশ্যার রঙ্গ, ৩ন-ভ্ীজ্ঞুভিন, নিস্তারিণী দেবী, ৃ
রায়বংশ-পরিচয়। উপস্পদকখল্নী, গরিটা, জিনজ্জু, ঘোগা,
ল্বাভিনকুলন। পৃঃ ৪১৬--৪২২

অ্ল্রক্েশ্রব্র ভিক্ষুকের গান, তাঁরকেশ্বরের কথা, পুজার ব্যবস্থা,
মোহীস্তের কথা, মোহান্ত-এলোকেশী-কাহিনী, তারকেশ্বরের সংক্ষিপ্ত
বিবরণ, কাঁলীবাঁড়ী, বর্ধমানের ইতিবৃত্ত । পৃঃ ৪২৩--৩৩৫

উ্নল্রাস্মপ্ুুলু কলেজ, কাগজের কল, বাজার, প্রাচীনগির্জজা, গোলোক
রা, গৌসাইদিগের পরিচয়, স্বাহেস্প লনভ্ডগ্ুত্র__রাধাবল্লভের
কথা। পূঃ ৪৩৫--৪৪০

হা্রাকপ্পুক্র_টাণক, বড়বাঁজার, চিড়িয়াখানা, বারিক, ্বনিল্লাস্ম-
গুল, ছুর্গাচরণ বন্য্যোপাধ্যায়ের জীবনী, রাজেন্দ্রনাথদত্ত, ব্রাহ্মণের
কাণ্ড, বাঙ্গালায় মিশনারী ইতিহাস, মাহেশ, ষ্টেশন । পৃঃ ৪৪১--৪৫১

হলাঁভিন-_পোঁল, অক্য্নদত্ত, শ-্ত্রম্পীড্ড়া॥» স্কুল, দাতব্য চিকিৎসালয়,
পবলিক্‌ লাইব্রেরী, রাঁমসীতা, জয়কৃঞ্ণ মুখোপাধ্যায়, রাজরুষ্ঙ মুখো-
পাধ্যায়, অন্বিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, লর্ড পদ্মলোচন মুখোপাধ্যায়,
কল্যাণেশ্বর, বীরেশ্বর চট্টোপাধ্যায়, মাধবচন্দ্র তর্ক সিদ্ধান্ত শ্রীচন্জ্র

বিষ্ভানিধি। পৃঃ ৪৫১--৪৬৭
গশ্ুঙ্কী,হাবড়ার পোল ব! ভুগলীব্রীজ, বরঙ্গী-স্থরধনী-সংবাদ । পৃঃ ৪০৫-৪১১।











০১০১০১১১০০2







কুভিনক্াত্ডী--পোর্ট কমিশনারের জেঠী, কেরাণী, কলিকাতা নির্মাণ,
হবত্ডলাভ্লীক্র-মাতীল -ও গুলিখোর, সেলার্স হোম, প্রীহ। ফাটা,
বেঙ্গল ব্যাঙ্ক, ভ্রষ্টা রমণীর কাণ্ড, হাউইক্কোৌটউি-_রমেশচন্দ্র মিত্র,
হেমচন্দ্র বন্য্যোপাধ্যায়ের জীবনী, মনমোহন .ঘোষ, রেজেস্্রী অফিস,
দ্বারকানাথ মিত্রের জীবনী, উ্াশ্ডন্ন হুল্ন- স্ুরেন্্রনাথ- বন্দ্যো-
পাধ্যায়ের জীবনী, উইড্ডে্ন গাঁত্্জ্ন- প্যাগোডা, উদ্ভানের
ইডেন নাম কেন, ব্যাণ্ড, গ্যাস, বেণের খদ্দের জুটাইবার জুয়াচুরি,
স্ব্ণময়ীর চক, মনোহর দাসের চক, দেওয়ান কাশীনাথ, মল্লিকদের
পরিচয়, শেঠেদের পরিচয়, বাঁথগেট কোং, হাতুড়ে ডাক্তার, হোয়াইট-

এওয়ে লেডলর আফ্স, হারম্যান কোম্পানী, ভামিণ্টন কোম্পানী,
'পাড়ারেয়ে জমিদার, সুশিক্ষিত অবতার, মুর্খ জমিদারেরা কে? টি

'টমসন্‌ কো, ধর্মাতলার বাজার, সোণাক়্ জুয়াটুরি, টাদকল্বীলর ছু
__যস্তরে বাঙ্গাল ও ঢাকাই বাঙ্গাল, মিউনিসিপাল আফিস, মিউনিসিপাল
কমিশনার, চ্মিজ্উন্লিজ্নি্পীভল স্পাক্কেউ-__রৌন্তমজী মাণিকজী,
সেরিফ কি? ফটে। তোলা, বাইবেল সোসাইটি, চিৎপুর রোড,
-বারাঙ্জনার বার, কেরাণী-কাহিনী, জুয়াচোর বাবু, মাতাল ও পুলিশ,
হলীলরজ্ী- মিউজিয়ম, জিওলজিকেল নার্ভে আফিস্‌, টি.কনো-
মেডিকেল সার্ভে আফিস্‌,পারকষ্টাট্‌, বাঙ্গালীর কোটসিপ্‌, জোড়াতালাও,
কলিঙ্গা, অপার-সারকুলার রোড, নাপিত বাজার, মোওলআলি দরগা,
'পদ্মপুকুর, জানবাজার, রাঁসমণির বাটা, প্রীতিরাম মাড়ের কথা, উপাধি
বিক্রয়, রাসমণি “রাণী” কেন, দক্ষিণেশ্বরের ঠাকুরবাড়ী, কভলাঁ
বিশদ বিবরণ, মন্তুমেন্ট, প্রেসিডেন্সি জেল, ফাঁসীর ঘর, ঘোড় দৌড়ের
মাঠ, ঘোড়ার বাজী, হিন্দৃস্থানীর উন্নতির উপায়, ইংরাজের উন্নতির
উপায়, গঙ্গার কাহিনী, জগন্নাথের ঘাট, ধর্মতলায় টিপু সুলতানের
-মসজিদ্‌, টিপু কে?-_কর্ণওয়ালিশের ভারত শাসন, কুকের আড়গড়া,
রখ গ







/

১৮০



ডিঃ গুপ্তের দোকান, এম্ঠি হৌস, লালবাজার পুলিশ, লক হাসপাতাপ,
পুলিশ কোর্ট, পুলিশকোটের উকিল, বি, এল, গুপ্ত, হরিমোহন সেন,
সাহেব কনষ্টেবল, প্ুলিশবেশে জুয়াচোর, গীঁটকাট।, পার্কার কোংর
নিলাম; স্মিথ ্ট্যানিষ্টিট কোৌত চুলের কলপ, রডা কোং, রাইটাস
বিল্ডিং, রেভেনিউ বোর্ড, বেঙ্গল সেক্রিটরিয়েট, টর্ণার মরিসন কোং,
পন্মিট রেলওয়ে অফিস, ওরিয়েণ্টাল__ব্যাঙ্ক, নৃতন চীনে বাজার”
কাপ্তেনণী আফিস কি?__সিপ্‌ সরকারের উপার্জন, কোম্পানীর
কাগজের আফিস, দালাল, বালক : জুয়াচোর, অবু্থ্নট কো.
জাড়িন্স্কিনার কোতু ফিন্লে মিউর কোং, টম্বাকু কোং পাটের কথা,
পুরাতন চীনাবাজার, দালাল, পদ্রাচন্দ্র নাথের দোকান, কলিকাতায়,
যম, ধরণী কথকের জীবনী, দীনবন্ধু মিত্রের জীবনী, গৃহস্থ ঘরের কেচ্ছা,
পুর্ববজন্ম-ফল, ত্রহ্মা-গঙ্জা-সংবাদ, বীরু মল্লিকের ঘাট, ইংরাজের রাজত্ব,
জুয়াচোর ধরার উপায়, থ্যাকার স্পিঙ্কং কোং, সলোমন কোং»,
বড়লাটের . আস্তাবল, গ্রন্বর্প্সেন্উ সগাজেলস্ন- সেক্রেটারি
আফিস, এডিকংদ্িগের আফিন, ছোট দেওয়ানের আফিস+ ষ্টেট হল,
ট্রেজারি. বিল্ডিং, গবর্ণমেণ্ট প্রিন্টিং আফিস্ঠ আমুটি কোং, পাথুরে:
গির্জা, কালেক্টারী, মোক্তারী না নচ্ছারী, ছোট আদালত. ও উকিল,
চাপরাসী, দস্তক কি? সিভিল এণ্ড মিলিটারি পে এক্জামিনারের
আফিস, রেভিনিউ বোর্ড, জেনেরেল পোষ্ট আফিস, অন্ধকুপ হত্যা,
কলেজ স্কোয়ার, ইউনিভারসিটি বিল্ডিং, ৫জ্বীস্িভ্ডেশ্স্লা
_ুেনতক, প্রসন্ন কুমার রায়ের জীবনী, প্রসন্নকুমার সর্বাধিকারী,
দাড়ি ও. চশমা, ভেয়ার স্কুল, ডেভিড. হেয়ার, স্কুলবুক সোসাইটা,
মেডিক্যাল কলেজ, বাবুজ্‌ ক্ল্যাশ, প্যারিচরণ সরকারের জীবন-চরিত,
বিজ্ঞাপনের জুয়োচুরী, হিন্দুঙ্কুল, ঈশ্বরচন্দ্র বিগ্যাসাঁগর-চরিত, ভরতনন্্র
শিরোমণির জীবনী, মহেশচন্ত্র স্তায়রত্বের জীবনী, দ্বারকানাথ বিষ্ঠারত্রের






জীবনী, স্হজ্ছুত কুেলভক- বাঙ্গালায় ইংরাজী বিগ্ভালয়ের
প্রতিষ্ঠা, মুলমানদিগের বিগ্তালয়, ইপ্ডিল্বিক্ীনিৎ লেনে,
স্কুল মাষ্টার, মাধব বাবুর বাঁজার, মেছুনী, ৫-্মভ্ভিক্্যাঁল
_ুব্নভক-_ফিভার হাসপাতাল, মিডুইফরি ওয়ার্ড, হল, চিত্রশালা,
মধুস্থদন গুপ্ত, চুনাগলি, হাড়কাট। গলি, বড়ালদের বাড়ী, বেগ্তাপল্লী,
বেম্তার পুরোহিত, বেস্তাপটীর, বাবু, হলীাভিলীলর- সায়েন্স সভা
বিড়ালের বিবাহ, বৈট কখানা, আর্টন্কুল, বাগানে যাওয়া, বাবুর জুয়াচুরি,
গীত (রামগ্রসাদী ), রামপ্রসাদ্দ সেনের.জীরনী, মদনমোহন তর্কালক্কার,
কলির মাহাত্ম্য, শিয়ালদহ ষ্টেশন, ক্যানিং বাজার, ক্যান্বেল হাসপাতাল
ও স্কুল, .লালবাজার, লালবাজার হোটেল, জুয়াচোর গরুর গাড়ির
গাড়োয়ান, টিরেটা৷ বাজার, ফৌজদারী বালাখানা, বঙ্গবাসী আফিম,
মতিশীলের- জীবনী, : বল্লালসেন, ওরিয়েণ্টেল ব্যান্ক ও আফিস
খালাসীটোলা, সিন্দুরেপটা, বেস্তাপল্লী, গীত, বেশ্তা ভর্তি, বিনা নিমন্ত্রণে
নিমন্ত্রণ রক্ষা): বারোয়ারি-তলা দাশরথিরায়ের- পাঁচালী, দীশরথির
জীবনী, সংবাদপত্রের সম্পাদকী, সংবাদপত্রের নমুনা ( বরুণোদয়
পত্রিক1 ।), চোরবাগান, রাজেন্্র মল্লিকের মার্ধেল প্যালেশ, মল্লিক
ংশ-পরিচয়, আদি ব্রাহ্মঘমাজ, রামমোহন রায়ের জীবনী, পাড়াণেঁয়ের
বিপদ্‌, দেবেজ্রনাথ ঠাকুরের জীবনী, কসাই কালী, শ্তাম মল্লিকের
বাড়ী, জোড়াসণকোর মল্লিক-বংশ-পরিচয়, জোড়া ীকোর জাঙ্েল-
ংশ-বিবরণ, আশ মল্লিকের ইও্ডয়ান প্যালেশ, নূতন বাজার, পুস্তকের
জুয়াচুরীর বিজ্ঞাপন, : ঠাঁকুর-বংশ-পরিচয়, যতীক্রমোহনের জীবনী,
সৌরীন্দ্রমোহনের জীবনী, দেওয়ান রামলোচন ঘোষ, রাজা সুখময়,
মোসাহেব কি? প্রসন্নকুমার ঠাকুরের বাড়ী, জ্ঞানেত্রমোহন ঠাকুরের
কথা, বীডন গার্ডেন, ছাতু বাবুর কথা, রামদুলাল সরকারের জীবন-
চরিত, থিয়েটার, বাঙ্গালার. নাটক কিরূপ? থিয়েটারে দেবগণ,




১1০

মাইকেলের জীবনী, বীডন স্ট্রীট, যাত্রা-বার্ডা, ব্রজমোহন রায়,
সিমলা, কৃষ্ণমোহন বন্দ্যোপাধ্যায়, ডাক্তার কৃষ্চহরি_ ভট্টাচার্য,
প্যারীটাদ্দ মিত্রের. জীবনী, বীণা থিয়েটার, বাজকুষ্ণ রায়ের
জীবন, সাধারণ ব্রাহ্মলমাজ, ছুর্ণীমোহন দাসের জীবনী, শিবনাথ
শান্ত্রীর জীবনী, ব্রাহ্ম ব্যারাক, ব্রাহ্গঘমাজে বিধবা-বিবাহ, ত্রাহ্মধর্মের
দুই এক কথা) একখানি মাসিক পত্রিক1, গোরাটাদ দত্তের কথা,
ছুর্দাচরণ লাহার জীবনী, ঠন্ঠনে, দিগস্বর মিত্রের জীবনী, ভারতবর্ষীয
ব্রাহ্মদমাজ তুলনায় সমালোচনা. কেশবসেনের জীবনী, “ভাই” কি?
লিলি কটেজ, স্বর্ণমপ়ীর বাগান-বাড়ী, স্বর্ণময়ীর দেবভক্তি, ্বর্ণময়ীর দান,
লং সাহেবের গির্জা, লং সাহেবের কথা, পুলিশ হাসপাঁতাল, আমহৌস,
:স্বারকানাথ ঠাকুরের জীবনী, মেট্রোপলিটান ইনষ্রিটিউশন্‌, ট্রেনিং
একাডেমী, রমীপ্রসাদ্র রায়ের বাটা, হরিমোহন রায়ের কথা, নিমতলা,
আনন্দময়ী, শিবরুষ্জ বন্দ্যোর বংশ-পরিচয়, মথুর ফেনের কথা,
নিমতলার ঘাট, রামগোপাল ঘোষের জীবনী, প্রসন্নকুমার ঠাকুরের
ঘাট, মেও হাসপাতাল, গীঁটকসা কল, বারোয়ারিতলা, জুয়াচোর,
কবির গান, কবিওয়ালা। রাম বস্তু, হিন্দু পেটিয়ট্‌, মিরার, বেঙ্গলী,
অমৃতবাজার পত্রিকা, কৃষ্ণদাঁস পালের জীবনী, হরিশ্চন্্র মুখোপাধ্যায়,
লোণার ভয়, রঙ্গলাল বন্দ্যোর জীবনী, দ্বারকানাথ অধিকারীর কথা,
হাটখোলা, হাটখোলার দর্ত-বংশ-পরিচয়, মদনমোহন দত্তের কথা,
দরমাহাটা, শোভাবাজার রাজবাটা, নবকুষ্ণের জীবনী, স্তৃতানুটি-
নামোৎপত্তি, রাধাকান্তদেবের জীবনী, সিদ্ধেশ্বরী ও মদনমোহন,
রাজা রাজবল্লভের কথা, দেওয়ান দুর্গাচরণ মুখোর কথা, গুহদিগের
কথা, গোকুল মিত্রের কথা; হরিঘোষের কথা, কালীকৃষ্ণ ঠাকুরের
কথা, বীরু মল্লিকের বাটা, রমানাথ ঠাকুরের জীবনী, কালী প্রসন্ন
সিংহের জীবনী, হরচন্দ্র ঘোষের জীবনী, তারক. প্রামাণিকের জীবনী,



রা ৮১১১2১88




গোপাল বন্দ্যোর কথা, পাল-গোষ্ঠীর পরিচয়, শ্রীশ বিদ্যারত্বের কথা,
শিবচন্ত্র গুহ, দেওয়ান কৃষ্তরাম বস্তু, গোবিন্নরাষ মিত্রের কথা, বনমালী
সরকারের কথা, বেণীমাঁধব মিত্রের পরিচয়, হেদোর পুকুর, নীলাম্বর
সেন, শল্তুনাঁথ পণ্ডিতের বিষয়, অনুকুল মুখোপাধ্যায় | ৪৬৮-৭৩৩ পৃঃ
্ললীছ্নাঁউ-_কালীর মন্দির, নাটমন্দির, ভালদার-গৃহিণী, কল্লী-
হ্বাটেল শ€স্পক্ভি, হালদারের উপায়, দেবগণের সঙ্গে কালীব
ছুঃখকাহিনী, হালদারি-কন্ঠ, আআভিনগ্নুরঃ জজ আদালত, স্কুল,
কাছারী, দেশী হাকিমদের উৎপত্তি-কাহিনী, জিওলজিক্যাল গার্ডেন
চিড়িয়াখানা; ছোটলাটের বাড়ী-_হেষ্টিংস হৌস, জেনেরেল হম্পিট্যাল,
হরিণ বাড়ী, জুয়াচুরি আটর বিজ্ঞাপন! ৭৩৪--৭৪৯ পৃঃ
০৪স্ীল-_-কলিকাতার ইতিবৃত্ত, নন্দকুমারের জীবন-চরিত, কপিকাতা-
কথা, এসিয়াটিক সোসাইটী, কেরী সাহেবের জীবন-চরিত, মাতলা!
লাইন, নাটুকে রামনায়ায়ণ তর্করত্বের জীবনী, নৈহাটা,
শ্ডাউস্পীন্ডা, কাটালপাড়া, _রাঁধাবল্লভজী, বঙ্কিম চট্টোপাধ্যায়ের
জীবনী, কীচড়াপাড়ার কৃষ্ণরায়জী, ঈশ্বর গুপ্তের জীবনী, না



পীড়া, কর্তীভজা-প্রচারক কে ?- প্রবর্তক আউলটাদরের কথা,
কর্তীভজার গান (১)-_কর্তীভজার কথা, গান (২ )-চাকদা
নামোৎপত্তির কথা, ভি্লেউ, গোগীনাথ, শ্রীপুর মুস্তফী-বংশ»
হরন্্রন্দরী, আনন্দময়, নিস্তারিণী, সোমড়া বৈস্যবংশঃ মহাবিদ্যা, বায়
রায়মূ্‌ রামচন্দ্র, লক্ষ্মীনারায়ণ জিউ, রাজরাজেশ্বরী, ব্রাঁীজ্মাউ,
রণা ডাকাত. দিদ্ধেশ্বরী, ক্ষ্ণপান্তির জীবনী ও. তদ্বংশ,
স্পীভিডগ্পলুল+ .. গ্ামসুন্দর১ ৪িস্পভ্ডীঁ, বানরের বিবাহ,
বুন্দাবনচন্ত্র, বাণেশ্বর বিছ্ালঙ্কার, বান্না, বর্ধমানের রাজার
কার্তিকলাপ, লালজী, মহাপ্রভুর মুত্তি, শসীভ্চাট্রা» যুগলকিশোর»
উলভ্নী, উলুই চণ্ডী, মুখোপাধ্যায়-গোষ্ঠী, ব্রুস গ্গক্র”গীড়াল,



১1০/৩

পলাগীর কামান, কৃষ্চন্দ্রের জীবনচরিতঃ শিবচন্দ্র-কথাঃ আনন্দময় শিব,
দীন্প, নবদ্বীপনাথ, ভবতারিপী, ভবতারণ, মুক্তারাম মুখো,
গোপালভীড়-কথা, চৈতন্তদেবের জীবনী, নৃতন নবদ্বীপ, বিল্বগ্রাম ও
টি রাজা কাশীনাথের কথা, চৈতন্থের ধর্ম, সতীদাহ, পাচসিকায়
বৈষ্ণবী, পোড়া মা, গুরুদাস কীসারি, জান্নগর, ব্রাহ্মণতলায় ুর্গী,
ঝাঁপান, অগ্রদ্বীপ, গোগীনাথ, ঘোষঠাকুরের বিষয়, কী তুজো জা,
চৈতন্ত ও নিত্যানন্দ-মৃত্তি, সলাম্নীল্র সা, বিশ্রামতলা,
শিবনিবাস, রাজরাজেশ্বরী, রাজ্ঞীশ্বর ও রামচন্দ্র-ুর্তি, গোড়ো৷ গোয়ালা,
চুক্সাজ্ডাভ্জ, মেহেরপুর, মল্লিক ও মুখোপাধ্যায়-বংশ, বলরাম-ভজন
দলের ইতিকথা, দশস্মুকিতআীছবাউ, পন্মা-নারাক়ণ-সংবাদঃ
স্বাাছাউি, পুজা, : আভ্ছপ্পুক্র) শ্পিনিন্ওজ্ভি,
চকখতিিভিনগ, সাধারণ দৃশ্ত, নাম কেন ?-_ এখানে ইংরাজ-রাজত
কেন ?-_লেপচা, ভূটিয়া, পাহাড়িয়া, মেয়ে পুরুষ, বিবাহ, মল্রোড
গবর্ণমেন্ট _ হৌস, বোটানিকেল: গার্ডেন, : গাছপালার দৃগ,
ভিডিক্ট নিজ ভুভ্নও্রঞ্পভিড, এলো হিন্দি মধ্য শ্রেণীর
বিগ্ভালয়, ভূটিয়া বোণ্ডিং স্কুল, কমিশনারের গরীম্মবাটিকা, অক্জারভেটারী
হিল, দুর্জয়লিঙ্গ, তূটিয়া-বস্তি, গুল্ফা, চক্র, লামা, বর্ধমান রাঁজবাটা,
পর্বত দৃশ্ত, ডাঙ্ডি, সিঞ্চল, এবলভলপ্িনিল ও াীএিওত্ড্বা-
দৃশ্ত; লিন্দু 'জাতি, : বিবাহব্যয়,- বিবাহের প্রকার-ভেদ, দ্াজিলিঙ্গের
ইতিহাস, এভাবেষ্ট শৃঙ্গ, তিস্তানদী, ভ্রামরী দেবী ও অন্বল ভৈরব,
স্থানীয় পণ্য দ্রব্য । ৭৪১--৭৮৬ পৃঃ ্‌
জ্রগ্প-_স্বর্গে সভা--নানাঁতত্-সমালোচনা | ৭৮৭--৭৯২ পৃঃ ।




মত্ত্যে আগমনে দেবগণ যে যে মুত ও জীবিত খ্যাঁতনাম

ব্যক্তিদিগের জীবনচরিত শুনিয়াছেন-_

নাম
লালাবাবু

রাজকুমার সর্বাধিকারী
বাগুদেব শাস্ত্রী

আনন্দময় মিত্রপরিবার
রাজা শিবপ্রসাদ
কাশীরাম দীস
প্রসন্নকুমার ঠাকুর

ধনপৎ সিং

জগৎ শেঠ

রামদাস সেন

যহারাণী স্বর্ণময়ী

রায় রাজীবলোচন রায়
দেওয়ান কৃষ্ণকান্ত নন্দী
ভারতচন্দ্র রায় গুণাকর
'ললিতমোহন সিংহ রায়
রামনিধি গুপ্ত ( নিধুবাবু)
জগন্নাথ তর্কপঞ্চানন

ম্কুন্দরাম চক্রবর্তী

. পরষ্টা

৪৮
৮৫
১২৭

৮৯২৮7

৯২৮


১৬৫)
২৯৩

২৯৭

৬)০৫

০১|7০৯

৬১০৯

১ ০

নাম পৃষ্টা
রেভারেও্ড লালবিহারী দে ৩৭৯

মহম্মদ মহসীন ৩৮৪,৩৯৪
রামকমল সেন ৩৮৬
রামগতি স্ায়রত্ব ৩৯৫
ভূদেব মুখোপাধ্যায় ৩৯৮
শ্রীরামপুরের গোস্বামী ৪৩৮
ডাক্তার হুর্মাচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় ৪৪৩
অক্ষয়কুমার দত্ত ৪৫২
জয়কৃষ্ণ মুখোপাধ্যায় ৪৫৫
লর্ড পদ্মলোচন মুখোপাধ্যায় ৪৫৭
রমেশচন্দ্র মিত্র চাহ গাইব
হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় ৪৭৯
মনোমোহন ঘোষ ্‌ ৪৮১
দ্বারকানাথ মিত্র ২৪৮৪
স্বরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ৪৮৮
দেওয়ান কাশীনাথ ৪৯৫
বড়বাজারের মল্লিক ৪৯৩

বড়বাজারের শেঠ ৪৯২



নাম

পৃষ্ঠা

প্রীতিরাম মাড় ও রাণী রাসমণি ৫২৪

বি, এল, গুপ্ত
হরিমোহন সেন

৫৪৫
৫৪৫

ধরণীধর তর্কচূড়ামণি € 7, ৫৬৩

দীনবন্ধু মিত্র

পি,.কে, বায়

ডেভিড্‌ হেয়ার
প্যারীচরণ সরকার
ঈশ্বরচন্ত্র বিদ্ভাসাগর
ভরত শিরোমণি
দ্বারকানাথ বিদ্াভূষণ
মহেন্দ্রলাল সরকার
সাধক রাম প্রসাদ সেন
মদনমোহন তর্কালঙ্কার
রাভেন্জ দর্ত

মতিলাল শীল

দাশরথি রায়
রাজেন্দ্রলাল মল্লিক.
রাজা রামমোহন রায়
দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর
পাথুরেঘাটার মল্লিক
পাথুরেঘাটার সাগ্ডেল

মুহারাজ যতীন্্রমোহন ঠাকুর

রাজ! শৌরীন্দ্রমোহন ঠাকুর

৬৬৪.

৬৬৬.

৬৬৯

৬৭২
৬৭৩

৬৭৩৬

৬৭৮



নাম

দেওয়ান রামলোচন ঘোষ
রাজ সুখময়
রাষছুলাল সরকার
মাইকেল মধুন্দন দর
রেভারেও কৃষ্ণবন্ট্যো
পযারীটাদ মিত্র

কবি রাজরুঞ্জ রায়
ছুর্গাচরণ লাহা

রাজা দিগন্বর মিত্র
কেশবচন্ত্র সেন
দ্বারকানাথ ঠাকুর
শিবকুষ্ণ বন্দ্যোপাধ্যায়
মথুরামোহন সেন
রামগোপাল ঘোষ
কঞ্চদাস পাল
হরিশ্চন্দ্র মুখোপাধ্যায়
রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়
হাটখোলার দত্ত
মহারাজ নবকৃঞ্ণ বাহাছুর
রাজ। রাধাকাত্ত দেব
রাজা রাজবল্লভ
রামকান্ত গুহ
গোকুলচন্দ্র মিত্র :
দেওয়ান হরিঘোষ ;


পৃষ্ঠা
৬৭৮.
৬৭৯.
৬৮১
৬৮৫

৬৮৮

৬৯৯

২৬৯৩ -


7১৬
[5
৭২১.
৭২১

৭২২

শিস ৯



নাম

রমানাথ ঠাকুর
কালীপ্রসন্ন সিংহ
হরচক্ত্র ঘৰ
তারকনাথ প্রামাণিক
কালীচরণ পাল
শিবচন্দ্র গুহ

দেওয়ান কৃষ্ণরাম বস্তু
গোবিন্দরাম মিত্র
বনমালী সরকার
গঙ্গা প্রসাদ সেন

১]1,/5

৭২৩
৭২৪
৭২৫
৭২৬
৭২৬
নাহ
৭২৮
৭২০


7.৩)১

নাম

শস্তুনাথ পণ্ডিত
অনুকুল মুখোপাধ্যায়
মহারাজ নন্দকুমার
কেরী সাহেব ্‌
রামনারায়ণ তর্করত্ব
বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত
কৃষ্ণচন্দ্র পাস্তি

রাজ! কৃষ্ণচন্দ্র রায়
চৈতন্দেব

পৃষ্ঠা
৭৩১
৭৩২
988
৭৪৬.
৭৫১
৭৫২
৭৫৪-

৭৬৫









২ 2)

৩
১২
৯৩
১৪
৯৫

১৬


চিভ্জৈস্ক্রুচ্গী

দেবগণ__বন্ধা-নারায়ণ-ইন্দ্র-বরুণ-_ প্রচ্ছদ্বপট
ই্্-বরুণ সংবাদ__অমরাবতী
বরহ্ধাসমীপে ইন্দ্রবরুণ_ ব্রক্মলোক
লক্ষ্ী-নারায়ণ সংবাদ-_বৈকু্
হরপারব্ধতী সংবাঁদ-_-কৈলাঁপ
কুশাবর্ত ঘাট-__হরিদ্বার
ভীমগদা__হরিদ্বার

লছমন ঝোল।-_তরিদ্বার
হৃষধীকেশ মন্দির__হরিদ্বার
সপ্তধারা-_হরিদ্বার

নীলধারা ঘাট-_হরিদ্বার
বিন্বকেশ্বর-_হরিদ্বার

জর্জ আদালত-_সাহারাণপুর
দিল্লী রেলওয়ে ষ্টেশন-_ দিল্লী
ইন্দ্রপ্রস্থ পুরান কিল্লা-_দিল্লী
কাশ্মীর গেট

দিল্লী তোরণ-_কেল্লা, দিল্লী
আলাউদ্দীনের গেট-__দিল্লী
নিজীমউদ্দীনের কুপ- দিল্লী
জাহানারার সমাধি__দিলী
ফিরোজ সা ছড়ি বা অশোক পিলার দিল্লী
হুমাযুনের সমাধি__দিল্লী

মতি মস্জিদ_ দিল্লী






ষ্ঠ ০৯

৩২
৩৩
৩৪
৩৫

৩৬


চা্দনী চক দিল্লী .

চাদনীচকের ঘড়িঘর-_দিল্লী : .)
মিউনিসিপ্যাল অফিস-_ দিল্লী

আলিগড় কলেজ-__দিল্লী
বিশ্রীমঘাট__মথুরা

মথুরাঁ যমুনার পারের দৃশ্ঠ

গোবিন্বজীর পুরাতন মন্রির_ বৃন্দাবন -*"
গোবিন্দজীর মন্দির__বুন্বাবন

কেনীঘাট _বুন্দাবন

লালাবাবুর কুঞ্জ__বুন্দাবন

শেঠেদের মন্বির- বৃন্দাবন

আগ্রা! ছূর্গ হইতে আগ্র। নগরের সাধারণ দৃগ্
আগ্রা_ মতি মস্জিদ্‌

তাজ- আগ্রা

তাজমহল-_আগ্রা

কৈশরবাগ্‌- লক্ষ

শাহনজফের সমাধি__লক্ষৌ
বেলিগার্ড__লক্ষৌ

লক্ষৌ__হোসেনাবাদ তোরণের অভ্যন্তরে
ল-মার্টিন কলেজ-_ লক্ষৌ

ক্যানিং কলেজ__লক্ষৌ

কাঁশীর সাধারণ দৃশ্ঠ

বিশ্বেশ্বরের পুরাতন মন্দির__কাণী
অন্নপূর্ণার মন্দির_-ভিতরের দৃ্ি__কাণী
সেণ্টাল হিন্দু কলেজ-_কাশী



৫১
৫৩
৫৫
৫৭

৫৯

৬৯
৭১
৭৩

৭৫




৯০৫
১২৬.



৪০৯

৫১
৫২
৫৩
৫৪
৫৫

৫৬

৬৩
৬৪
৬৫
৬

৬৭


মানমন্দির ঘাট-__কাশী
যধুনা-সেতু-_এলাহাবাদ
শিবকোঁটী-__এলাহাবাদ
হাইকোর্ট__এলাহাবাঁদ
খক্রবাগ__ এলাহাবাদ
এলফ্রেডপার্ক__এলাহাবাদ
গুলজাঁর বাগ--পাটনা

নবাব মিরণের সমাধি__মু্ের
জামালপুর ট্যানেল
মহিমাপুর-_মুশিদাবাদ
নিজামৎ কিল্লা ইমামবাড়ী--মুশিদাবাদ
নিজামৎ কিল্লা- মুনিদাবাদ
খুসবাগ-_ মুশিদাবাদ

রাস্তার দৃম্ত-_বদ্ধমান
শ্যামসায়ের_ বদ্ধমান
গজগিরি পুক্ষরিণী__বর্ধমান
দেলখোস হাউস-_ বদ্ধমান
বদ্ধমান রাজবাঁটা

শিবমন্দির বর্ধমান
চাকদিঘী-_মেমারী-_ বর্ধমান
ইমামবাড়ী-_হুগলী
ফরাসডাঙ্গ৷ _বারদ্বারী
শ্রীরামপুর কলেজ-_ শ্রীরামপুর
ব্যারাকপুর-__-লাট-প্রাসাঁদ
দায়েদের ঠাকুরবাড়ী__বালী

টি,

১৬১১৬

১০৩


১৪৭


৩২১৯

৩২৩

৬৫

৬২৭

৩১০৮
৩৪৫
৩৮৫
৪০৮
৪৩৬

৪৪২





০৮৩)


7৮৫

7৮৬


৮১

৪২

৯৪

2৫


১1/7০/ ৩

অক্ষয়কুমার দত্তের বাড়ী --বালী

কল্যাণেশ্বর শিবমন্দির_ উত্তরপাড়া

হাবড়া রেলস্টেশন

হাবড়। সেতু-_কলিকাতা

কলিকাতা! হাইকোর্ট

টাউনহল্‌্-__-কলিকাতা৷

জেনারেল পোষ্টআফিস, লালদীঘি--কলিকাতা৷

বন্মিজ-প্যাগোডা, ইডেনগার্ডেন__-কলিকাতা

যাদুঘর--চৌরঙ্গীরোড-_কলিকাতা

ডালহৌসী সেনা-নিবাস-_ফোর্টউইলিয়মদুর্গ __ কলিকাতী

অক্টার্লনী মনুমেন্ট-_-কলিকাতা র

গবর্ণমেন্ট হাউস্‌-_কলিকাতা

পটলডাঙ্গা, গোলদীঘির উত্তর পশ্চিম অংশ-_হিন্দক্কুল
স্কৃত কলেজ-_-কলিকাতা ৃ |

ক্যান্থেল মেডিক্যাল স্কুল ও হাসপাতাল-_-কলিকাতা

বিডন উদ্াঁন-_-কলিকাতা

রাজ! দিগন্থর মিত্রের বাটা-_কলিকাতা

ভারতবর্ষী় ব্রাহ্মমন্দির ( নববিধান )-_কলিকাতা

ভূতপূর্ব্ব আমস্‌ হাউস ( অধুনা স্থকিয়াজ স্ীট থানা)

মেট্রোপলিটান. কলেজ-_( অধুনা বিগ্াসাগর কলেজ )

৬কালীরমন্দির-_-কালীঘাট

অন্ধকুপ_-কণিকাতাঃ

দেবগণের সভা-_ স্বর্ণ

৪৬২৩৬
৪৫৮
৪৫৯
৪৬৩
৪৭গ'
৪৮ রব

৪৮৭

৫১৯,

৫২৮


৬৩০৫
৬৮১.

২৬৯৫


৭৩৫

9৮৪8




| দেবাধের ্ত ঘান
মা.













দেবগণের মতে আগমন


কয়েক বৎসর গত হইল, পৌষ মাসে একদিন শচীপতি ইন্দ্র নিজ
বৈঠকখানায় বরুণসহ উপবিষ্ট ছিলেন। শীতকালে পৃথিবীতে জলের
তাদৃশ প্রয়োজন নাই বলিয়াই হউক কিংবা অপর কোন কারণে, তখন
জলাধিপতি কিছুদিনের ছুটী লইয়া বাঁটী আপিয়াছিলেন। বহুদিনের পর
প্রবাস হইতে বাটা আপিয়! বেকার অবস্থায় বসিয়া থাকাও বড় কষ্টকর,
এজন্য তিনি প্রত্যহ দেবরাজের নিকট আসিয়া দাবা খেলিতেন ৷ অগ্ভ
খেলা বন্ধ করিয়া পরস্পরে অনেক প্রকার গল্প হইতেছিল এবং ঘন ঘন
পান তামাক চলিতেছিল । কথায় কথায় ইন্দ্র কহিলেন, “বরুণ! সত্য,
ত্রেতা, দ্বাপর যুগ গত হইয়াছে, এক্ষণে কলিও যায় যায়; পুর্ববকালের
রাজারা অশ্বমেধ প্রভৃতি যজ্ঞ উপলক্ষে আমাদিগকে আহ্বান করিতেন,
তজ্জন্ত সময়ে সময়ে আমাদের মত্ত্যভূমি-দর্শন ঘটিত; কিন্তু সম্প্রতি সে
সমস্ত বাগযজ্ঞ নাই, আমাদেরও যাঁওয়াটা একপ্রকার রহিত হইয়াছে।।
এখন লোকে সামান্ত সামান্ত কর্ম উপলক্ষে “ওঁ প্রজাপতে,” “ও ইন্্রাদি-
দশদ্রিকৃ্পালেভ্যঃ” বলিয়া! ক্মরণ করে বটে, কিন্তু যাইয়া পাছে সন্তোষকর
আহারাদি না পাই, তাই ভাবিয়া যাইতে নিরস্ত হইয়াছি। তুমি সর্বক্ষণ
পৃথিবীতে থাক ৷ কারণ, তোমাকে তথায় সর্বদেশে, সর্ববস্থানে সর্ধজনকে
যথাসময়ে জল যোগাইতে হয়। অতএব বল দ্রেখি, এক্ষণে মত্ত্যের রাজা
কে ?” বরুণ কহিলেন, “ইংলগুনামক-দ্বীপবাসী ইংরাজ নামে এক জাতি











দেবগণের মত্ত্ে আগমন

আছে; সম্প্রতি তাহারা ভারতে আপিয়! একাধিপত্য বিস্তার করিয়াছে ।
এ প্রকার বুদ্ধিমান্‌ ও প্রতাপশালী রাজা আমি কখন কোন যুগে চক্ষে
দেখি নাই । . পৃথিবীর মধ্যে এমন স্থান নাই, যেখানে ইহাদের রাজ্য
নাই। স্বর্গে ইংরাজাধিক্কত স্থান নাই-বটে, কিন্তু সত্বরেই রোধ করি,
স্বর্গরাজ্যও ইংরাজরাঁজের করতলগত হইবে |»

ইন্দ্র হাস্ত করিয়া কহিলেন, “বরুণ! তুমি নিতান্ত বালকের স্থায়
কথা কহিতেছ। স্বর্গে ইংরাজের আসিবার পথ কই ?৮

বরুণ। পথ না জানাতেই এতদিন ইংরাজেরা এখানে আসিতে
পারে নাই, কিন্তু তাহার! বেপ্রকার ফিকিরবাজ ও নাছোড়বান্দা দেখি-
তেছি, তাহাতে বেশ. বোধ হইতেছে যে, শীগ্ভ পথটা না জানিয়া তারা আর
ছাড়িবে না। তাহারা স্বীয় পথের আবিষ্কার জন্য “ব্যোমযান” নামক
শৃন্তে উঠিবার এক প্রকার রথ তো বহুদিন. পূর্বেই প্রস্তুত করিয়াছে,
আবার ইদানীং একপ্রকার. পব্যোম জাহীজ”৮ তৈয়ারি করিবার চেষ্টার
আছে * |. তাহাতে মনের ভার, কোন রকমে একবার. পথটা চিন্তে
পার্লেই একদিন সদলে আধিয়া স্বর্গ অধিকার করিবে ।

ইন্দ্র । . ভাল, মনে কর, ইংরাজেরা!-্বর্গীয় পথ আবিষ্কৃত করিল এবং
স্বর্গেও সদলে আসিয়া উপস্থিত হইল, কিন্তু কি প্রকারে আমার বজের
হাত.এড়াইবে? তুমি-কি ইহার প্রভাব জান না?

. বরুণ. সব জানি, কিন্ত ইংরাজেরা৷ তেমন পান্র নয়; তোমার -বজে
ভীত হইবার লোর নহে। তাহারা তোমার বজকে টোড়া করিবার এক
ফিকির বাহির করিয়াছে । অর্থাৎ রে অনেক বুহৎ বৃহৎ অট্টালিকা,
মন্দির, মস্জিদ নষ্ট করে দেখিয়া তাহারা এক প্রকীর 'লৌহ-শীক প্রস্তত
করিয়াছে । এ শীক.দোতাল তেতাঁলা (কোঠার গাত্রে লাগাইয়া দিলে
রজের বিষ্ঠা আর খাটিবে না|. অতএব যদি এ নীক ব্যোম্ষানে লাগাইয়।

%. -এ-চেষ্ট। এক্ষণে সফল ভ্হয়াছে ।


























অমরাবতী

১ ঁ

উঠে, তোমার বজে কি করিবে? তুমি ইংরাজ জাতির _কল-কৌশল
দেখিলে না, শুনিলে না রলিয়়াই গর্ব কর এবং মনে ভাব তোমার
অমরাবতীর অপেক্ষা সুন্দর স্থান আর নাই ; কিন্তু যদি একবার ইংরাঁজ-
রাজধানী কলিকাতা দেখ, অমরাবতীতে আর আসিতেও চাহিবে না।
এখানে তুমি সামান্ঠ সুন্দরী শচীকে পাইয়া! ভুলিয়া আছ ; কিন্ত কলিকাতায়
যাইয়া যদি আরমানি বিবি দ্রেখ, হয়তো আর শচীর প্রতি ফিরেও
তাকাইবে না । এখানে তুমি সামস্তি বন নন্দন-কাননে যাইয়া অনেক
রাত্রি পর্য্যন্ত বসিয়া থাক, কিন্তু কলিকাতায় যাইয়া যদি একদিন ইডেন
গাঙেনে প্রবেশ কর, তাহলে হয়তো আর ফিরে আস্তে চাইবে না।
তুমি স্বীয় ধেনো! মদকে সুধা বল, কিন্তু ইংরাজ রাজ্যে যাইয়া যগ্ঘপি
থেরি, স্তাম্পেন, ত্রাণ্ডি পান কর, হয়তো আর এ সুধা মুখেও কঃর্বে না।
ইংরাজেরা.তৈল-শলিতা-বিহীন লর্ঠনে আলো জালে । লৌহ-তারে খবর
আনে । জলে কলে তরী চালায় । কুইনাইন নামক ওষধে সগ্ভঃ জ্বর
আরাম করে। ইংরাজকৃত কুইনাইনের শিশি সম্বল - করিয়া কত শত
গণ্ডমূর্থ ধন্বস্তুরি হইয়া পথে পথে ডিস্পেন্সরি খুলে বিরাজ করিতেছে
এক পাইপের ক্বষ্টি ক'রে আমার মাথাটা একেবারে খেয়েছে।
ইন্ত্র। পাইপ-কি 1.

বরুণ জলের কল।. এই কল মাটির মধ্য দিয়া টানিয়া আনিয়া
প্রজার বাড়ী বাড়ী জল দিতেছে । লোকে যেখানে-সেখানে স্েচ্ছামত নল
রসাইয়া জল লইতেছে। বিদ্যুৎ ধরিয়া, তদ্দারা তারে খবরাখবর পাঠাইতেছে,
বস্তায় আলো দিতেছে । উহার নাম বৈদ্যুতিক সংবাদ ও বৈদ্্যতিক- আলো! ।
ঘেরূপ দেখিতেছি, ক্রমে পবন ভায়ারও চাক্রি থাকে-কি না থাকে ।

ইন্দ্র॥. বরুণ! তোমার -মুখে ইতরাঁজ জাতির ও কলিরাতার যেরূপ
সুখ্যাতি শুনিলাম, তাহাতে আমার রুলিকাতা দেখিতে বড় ইচ্ছা ,হইতেছে।

ররুণ। বেশ তো চল..না, তোমাকে ইংরাজবুত -বাঙ্পীয় .শকটে,













দেবগণের মত্ত্যে আগমন



আরোহণ করাইয়া কলিকাতায় লইয়া বাই। বাইতে কোন কষ্ট হইবে
না আমরা রাস্তার ধারে ধারে ভাল ভাল ষ্টেশনে নামিয়া ছু এক দিন
করিয়া বিশ্রাম করিব, তাহা হইলে দিল্লী, আগরা, মথুরা, বুন্বাবন, মুঙ্গের,
ভাগলপুর, বাঁরাণসী প্রভৃতি প্রাচীন সহর সকলও দেখা হইবে এবং
অসময়ে আহারাদি করার জন্তও কোন কষ্ট হইবে না ।

ইন্্র॥ আমারও একান্ত ইচ্ছা-_পূর্ধরাজ্যগুলি বর্তমানে কিরূপ
অবস্থা ধারণ করিতেছে দেখি । ভাল, বাম্পীয় শকট কি?

বরুণ। ইংরাজকূত একপ্রকার রথ। ইহা চালাইবার জন্য ঘোড়া
ও হাতীর দরকার করে না। বাম্পে চলে বলিয়া ইহার নাম বাম্পীর়
শকট হইয়াছে । কলে বাম্পের দ্বার! চলে বলিয়া অনেকে ইহাকে কলের৷
গাড়ীও বলে ।. ইহার যাতায়াতের বস্তা লৌহের রেল। এজন ইহা!
রেলওয়ে ট্রেণ বলিয়াও অভিহিত হয় । ট্রেণ অর্থাৎ বহুসংখ্যক প্রথম দ্বিতীয়
তৃতীয় শ্রেণীর গাড়ী একক্র লইয়া যাওয়া হয় । লোকে যে যেমন পয়সা!
ব্যয় করে, সে সেইমত গ|ড়ীতে যাইতে পারে । বোঝাই যত দেওয়া যায়,
স্বচ্ছন্দে লইয়া যায় ।

ইন্্র। আহা! এমন আশ্তর্ধ্য রথও ইংরাজেরী নির্মাণ করিয়াছে!
চল একদিন মর্ত্যে যাইয়া চক্ষের সার্থকতা সম্পাদন করি ও মনের সাধ
মিটাইয়া লই । আপাততঃ চল ব্রহ্মলোকে যাইয়া পিতামহকে সঙ্গে লইয়া'
'ধাইবার চেষ্টা পাই ।. আমাদের দেখিবার অনেক সময়. আছে। পিভা- | |
মহের যেরূপ অবস্থা-_আজ কালের মধ্যে দি ফুক করিয়া মারা যান,
প্রত স্থুখের কলিকাতা আর দেখিতে পাইবেন না। বড় আলো |
থাকৃবে। আমরা পিতামহকে এ সব কথা৷ ভেঙ্গে দর না কের ৃ
কৌশলে লইয়া বাইবার চেষ্টা পাইব। তাহা হইলে তিনি মতে যাইয়া
হঠাঁৎ নিজ স্যষ্টির মধ্যে আশ্চর্য্য স্ষ্টি দেখিয়া চমতকৃত হইবেন ।

এই কথা বলিয়া দেবরাজ মাতলিকে রথ সাঁজাইতে আজ্ঞা দিলেন এবং ॥
7















ব্রহ্মাসমীপে ইন্দ্রবরুণ-_ব্রহ্মলোকি








বক্ষলোক

বরুণসহ অন্দরে প্রবেশপুর্ধক কিঞ্চিৎ জলযোগ করিয়া রথারোহণে
ব্রহ্দলৌকের অভিমুখে যাত্রা করিলেন ।

ব্রল্মালোক



ব্গার মানস-সরোবরে অত্যন্ত পানা হইয়াছে, বিশেষতঃ কয়েক বর্ষ
ভাল বর্ষা না হওয়াতে জলকষ্টে তাবৎ মতস্ত মরিয়া যাইতেছিল। পদ্মযোনি
বাঁধাঘাটে বিয়া হুস্‌ হুস্‌ শব্ধ কাঁক ভাড়াইতেছিলেন এবং যে মাছটা
মরিয়া ভাসিয়া উঠিতেছিল, তৎক্ষণাৎ তুলিয়া একস্থানে একত্র করিয়া
রাখিতেছিলেন। তথাপি চীল, মাচরাল্গা ও শিকৃরে পাখিতে ছো মারিয়।
দু একট! লইতে ছাঁড়ছিল নী । অপরাহ্ণ পিতামহ আর কয়েকটা বুদ্ধ-
সম্ভিব্যাহারে তীহার মানস সরোবরের উগ্ভানে ভ্রমণ করিতেছিলেন।
ইহার পরিধানে বেলি ব্রাদারের ধোয়া থান, * বঞ্ষঃস্থলে শ্বেত লোমের
উপর শ্বেত যজ্ঞোপবীত, পায়ে শিং-তোলা জুতা,হাতে তালের ছড়ি।
এমন সময়ে ইন্দ্র ও বরুণ আসিয়। সাষ্টাঙ্গে প্রণিপাত করিয়া কহিলেন
পপিতামহ ! প্রণাম করি ।৮

ব্রহ্মা । কেহে তোমরা?

ইন্্র। আজ্জে, চিন্তে পার্চেন না? বরুণ আর ইন্দ্র ।

ব্রক্া। আরে এস এস! আর ভাই, চোকে ভাল দেখতে পাইনে,

এখন তোমাদের রেখে যেতে পাল্লেই বাচি। তবে অসময়ে আসিবার
কারণ কি--স্বর্গে তো দৈত্যেরা কোন উপদ্রব আরম্ভ করে নাই?

ইন্্। করে নাই বটে, কিন্তু কর্বার উপক্রম ।

ব্রহ্মা। কারা উপদ্রব করবে ? |

_*. দেবগণের জুতা, কাপড় প্রভৃতি যাহা যাহা আবগ্তক হইত, বরুণ তাহা কলিকাতা
হইতে আনিয়া দিতেন ।




দেবগণের মর্তেযে আগমন

ইন্দ্র। ইংরাজ জাতি ।

এই কথা শুনিয়। ব্রহ্মার মুখ মলিন হইয়া গেল। পুর্ব পূর্ববকার
দৈত্যদিগের উপদ্রব তাহার স্মরণ হওয়াতে থর থর্‌ করিয়া কাপিতে
লাগিলেন এবং “চল দেখি--বেদে কি লেখা আছে” বলিয়া, ইন্দ্র ও বরুণ
সহ ভবনাভিমুখে চলিলেন ৷ তথায় উপস্থিত হইয়া চালের বাতা হইতে
পুরাতন বস্ত্র বাধা কতকগুলি বেদ বাহির করিয়া চন্মা চক্ষে দিয়া
দেখিতে দেখিতে কহিলেন “না, ইহাদের হইতে দেবগণের কোন ভয়
_নাই। এই ইংরাজজাতির রাজ্যসময়ে মনসা, জগন্নাথ প্রভৃতি গ্রাম্য
দেবগণ স্বর্গে চলিয়া আদিবেন 1” বলিয়া হান্ত করিলেন ।

ইন্্র। দাঁদা মহাশয়! আপনার তাতে এত সন্তোষ যে?

্রহ্মা। ভাই, এই রাজ্যসময়ে পতিতপাঁবনী দ্রবময়ী স্থুরধুনীকে আমি
পুনরায় কমগ্লুতে প্রাপ্ত হইব । আহা! মাকে যখন ভগীরথ মর্ত্যে

লইয়া বায়, বাছা কত কেঁদেছিলেন, «বাবা ! মনে রেখো, পত্র লিখিলে
উত্তর দিও!” এইরূপ কত কথাই ঝলেছিলেন। এইবার এত দিনের

পর মী আমার গৃহে আসিবেন-_-এত দিনের পর আমার সর্বছঃখ দূর
হইবে; আর তিনি.কয়েক বৎসরমাত্র নরলোঁকে আছেন । *

বরুণ। মার ছুঃখের পরিসীমা নাই। তাকে কলিকাতার মল মূত্র
বহনের কাজ ক/র্তে হচ্চে। পূর্বে এরাবত যে প্রবাহ ধারণ ক/র্তে
পারে নাই, সেই প্রবাহ ইতরাজের নিকট পরাস্ত হইয়াছে । ইংরাজের'
তাকে বথ। ইচ্ছা খনন করিয়া লইয়া বাইতেছে। আবার হাঁবড়া ও হুগলীর,
নিকট বাধিয়াছে।

বন্ধ কাদিয়া কহিলেন, '্যা, বেঁধেছে! তুমি নিকটে বাইলে কিছু
বলেন ?”

. বরুণ । কল কল শব্দে কাদিতে কাদতে বলেন, “বরুণ! আমার











+ নুতন পঞ্জচিকাতেও এইরূপ বলে বটে ।




ব্রল্মালোক

বোধ হয় কপাল পুড়েছে-_বাবা বুঝি বেঁচে নাই ; নচেৎ আমার এ দুঃখের
দশা দেখে কখনই নিশ্চিন্ত থাকতেন না”

ইন্্র। আপনার এক এক বার যাওয়া, উচিত ।

ব্রহ্ম। কি ক'রে ভাই যাই, জান তো. আমার ঘুমেতেই মাথা
খেয়েছে । *%

বরুণ। আপনি একদিন্‌ চলুন, নচেৎ লোকে ব্যঙ্গ করে প্রায়ই ঝলে
থাকে _-“বুড়ো, মেয়েটাকে জলে দিয়ে কেমন ক?রে নিশ্চিন্ত আছে ?”

ব্রহ্মা । ক্ষমতা থাকিলে কি যাইতে অসাধ? ঘুমকে যদিও পারি
প্রাচীন শরীরে এক পাঁও চলিবার শক্তি নাই ।

বরুণ। চলুন__আঁপনাকে হাঁটুতে হবে না, কলের গাড়ীতে নিজকে
বাব। প্রাচীন শরীরে পিন্তি পড়ে পাছে অস্ত হয়, এজন্য ভাল ভাল
ষ্টেশনে বিশ্রাম করিব ।

ব্রহ্মা। কলের গাড়ী কি?

বরুণ। ইংরাজকৃত একপ্রকার রথ। এর রথ কলে চলে বলিয়া
“কলের গাড়ী” নাম হইয়াছে ।

ব্রহ্মা । মাকে আমার বেঁধেছে শুনে মন যেরূপ চঞ্চল হঃয়ে উঠলো,
তাহাতে একবার মর্ত্যে যাওয়া নিতান্ত আবগ্তক হচ্চে। তোমরা! বৈকুগ্ে
বাইয়া নারায়ণকে আমার নাম করিয়া ডাকিয়া আন ।. দৈত্যেরা তাহার
পরিবারবর্ণের উপর ষে নানাপ্রকার অত্যাচার করিতেছে, তিনি কি
তাহার খবরটাও রাখেন না ?- ঃ

এই কথার পর দেবগণ. পুনরায়: রখাররোহণে ভি অভিষুখে
চিলিলেন |

* ৪৩২০৯ বৎসরে 5 যুগ। এই ৪ যুগে দেবতাদিগের ১ যুগ । এইরূপ হাজার যুগে
ব্রহ্মার এক রা ।




ধৈকুগ্ঠ

আহারান্তে লক্ষ্মী নিজ কক্ষে পালক্কে বসিয়া আলুলায়িত কেশে কার্পেট
বুনিতেছিলেন। তাহার .পরিধানে রেলপেড়ে শাটা, হস্তে হাজরমুখে।
ডায়মন্‌ কাটা বলয়, কর্ণে ছটা সুন্দর এয়ারিং, গাত্রের বর্ণ বন্ত্রমধ্য দিয়া
ফুটিয়া৷ বাহির হইতেছিল। বিশ্বোষ্ট স্বাভাবিক লাল, তাহাতে আবার
তাণ্ধুল চর্বণ করাতে আরো টুক্টুক্‌ করিতেছিল। নারায়ণ নিকটে বসিয়া
তাকিয়! ঠেস দিয়া আল্বোলার নল মুখে «খবরের: কাগজ”: দেখিতে-
ছিলেন এবং মধ্যে মধ্যে নারায়ণীর বদন প্রতি চাহিয়া কি ভাবিতেছিলেন।

এই সময়ে ভৃত্য আসিয়া কহিল “দেবরাজ ও বরুণ ঠাকুর আপনার
নিকটে আসিয়াছেন।৮

নারায়ণ এ সংবাদে কিছু বিষণ্ন হইলেন এবং ভৃত্যকে বিদায় দিয়া
নারায়ণীকে কহিলেন পরিয়ে! বোধ হয়, স্বর্গে পুনরায় অস্থবেরা উপদ্রেব
আরন্ত করিয়াছে ! তুমি কিঞ্চিৎ অপেক্ষী কর, আমি তত্বান্ুসন্ধান করিয়া
আসি” বলিয়! দ্রুতপদে প্রস্থান করিলেন এবং ১৫ মিনিটের মধ্যে প্রত্যাগমন
করিয়া কহিলেন পপ্রিয়ে ! আমাকে বিদায় দেও, মর্ত্যে যাইতে হইবে ।”

এই কথা শুনিয়! নারায়ণী কহিলেন, “কেন-_-এখন মর্ত্যে কেন ?-_
তোমার তো কক্কিরূপে জন্মগ্রহণ করিবার বিলম্ব আছে ।”

নারায়ণ। একবার কোল্কেত! দেখিতে ও কলের গাড়ীতে চড়িতে
বড় সাধ হইয়াছে,_-বেড়াইতে যাব ।

“পাঁচ জনেই তোমাকে খারাপ কল্পে” বলিয়া নারায়ণী হস্তস্কিত
কার্পেট দূরে নিক্ষেপ করিলেন এবং চক্ষু রক্তবর্ণ করিয়া বলিতে লাগিলেন__
“ছিঃ কালামুখ! মর্ত্যে যাইতে, মর্ভ্ের নাম করিতে তোমার কি ভয়
হয় না,_ তোমার কি লজ্জা হয় না? ভাব দেখি, সত্য, ত্রেতা, দ্বাপর
যুগে সেখানে গিয়ে কত ঢলাঢলি করেছ এবং আমাকেও কত কষ্ট দিয়েছ !
সে সব কি একেবারে ভুলে গেলে ? তাই মর্ত্যের নাম মুখে আন্চ |”






























বৈকুগ)

নারায়ণ । কেবল তিন-দ্িন,-আমি প্রতিজ্ঞা করে যাচ্চি, তিন
দিনের মধ্যে ফিরে আস্বৌ। কলিকাতা৷ দেখা আর কলের গাড়ীতে
উঠা আমার নিতান্ত সাধ, তাই-কেবল যাচ্চি।

নারায়ণী । ভাল__সাধ হয়েছে, আর কিছু কাল ধৈধ্য ধরে থাক, তার
পর কক্ষিরূপে জন্মিয়া কত কলের গাড়ীতে উঠবে, কত কলিকাতা দেখুবে ।

নারায়ণ। সে পরের কথা, এক্ষণে কেবল তিন দিনের জন্য বিদীর়,
দেও; আমি নিশ্চক্স ঝল্চি, এই মেয়াদের মধ্যে হাজির হক । রা

নারারণী। নাথ! আর কেন জ্বালাও? সেখানে গেলে তুমি যদি
তিন দিন ছেড়ে তিন শত বৎসরের মধ্যে ফিরে এন--এক কলম আমি
লিখে দ্রিতে পারি । সেখানে গিয়ে যদি আরমানি বিবি পাঁও, আর কি
আমায় মনে ধরবে? না, স্বর্গের প্রতি ফিরে চাইবে? হয়তো, তাদের
সঙ্গে মিশে মদ, মুরগী, বিসকুট, পাঁউরুটা খেয়ে ইহকাল, পরকাল ও জাত
খোয়াবে ! শেষে জেতে উঠা ভার হবে, আর দেখতে দ্েখৃতে বে বিষয়টুকু
আছে তাও ক্ষোয়া যাবে । এমনও হতে পারে,_ব্রাঙ্গনমাজে নাম
লিখিয়ে বিধবা বিয়ে করে কস্বে॥. কিংবা থিয়েটারের দলে মিশে
ইয়ারের চরম হয়ে রাতদিন কেবল ফুলুট বাজাবে ও লক্ষমীছাড়া হবে।
শুন্ছি, কৌল্কাতার শীল, নোড়া না কারা ৭৫ হাজার টাকায় কোন্‌
থিয়েটার কিনে ছুই তিন লক্ষ টাক! উড়াইবার যোগাড় করেছে, আমিও
শীঘ্র তাহাদের বাড়ী পরিত্যাগের ইচ্ছা করেছি । সে যা হউক নাথ!
আমি তোমাকে প্রাণ থাকিতে বিদায় দেব নাঁ। ২ ্‌

বলিয়া নারায়ণী চক্ষে অঞ্চল দিয়া, ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাদিতে লাগিলেন ।

নারায়ণ বিবেচনা করিলেন, যদি নারায়ণীর প্রেমে মুগ্ধ হইয়া তাহার
মনোমত কাজ করেন, তাহা হইলে একপাল মহিষী * লইয়া কোনক্রমেই














* কথিত আছে, নারায়ণের ষাট হাজার মৃহিষী ছিল ।






১

১০ দেবগণের মন্যে আগমন





সংসার নির্বাহ করিতে সক্ষম হইবেন না; অতএব নারায়ণীকে আর কোন
কথা না' বলিয়া নিজ বন্ত্রা্দি ও পাথেয় লইয়! বহির্ববাটীতে গমন করিলেন ।

নারায়ণী নারায়ণের এই প্রকার নিষ্ঠুর কার্য দেখিয়া অরাক্‌ হইলেন
এবং কীদিতে কাদিতে বলিলেন, “শেষা পৌষে বাড়ী হতে যাচ্ছো খুব
সাবধানে থেকো, নৃতন সহরে চর্বি মিশান ঘিয়ে ভাজা ময়রার দৌকানের
জিনিস গুলো বেণী খেও না, গেটের অন্ুখ হবে । আসিবার সময় বদি
মনে থাকে, বেশী ক'রে পুতি আর পঁচি রডের উল কিনে আনি ;
তোমার জন্য জুতো বুন্বো ।”





নারায়ণ, ইন্দ্র ও বরুণের নিকটে উপস্থিত হইয়া কহিলেন “চল
ভোলা দাঁদীকেও সঙ্গে লইতে হবে, তা না হঃলে আমোদ হবে নী।৮
এ প্রস্তাবে বরুণ প্রভৃতি সম্মত হইলেন এবং তিন জনে কৈলাসে চলিলেন ।

ঠকলাস

অগ্য _ পৌষ মাসের - সংক্রান্তি, পার্ধতী পিঠেপুলি প্রস্তুত করি-
তেছেন ১ আর -দেবাদিদ্েব- মহাদেব নিকটে বসিয়া কাণ্তিককে গালি
দিতেছেন।

পার্বতী কহিলেন “ওকে ব/কো- ঝ/কো। না) আইবুড় ছেলে ঘরে
আঁছে-এই যথেষ্ট ; আবার রাগ..কঃরে বদি. এক দিকে চলে যায়,
তোমাকেই ভূগৃতে হবে|”

এই সময় নন্দী আসিয়া কহিল “ছোট কর্তী এবং আর. ছুটা ঠাকুর
আপনার নিকট আসিয়্াছেন ৮ ৃ
এই কথা! শুনিয়া সদাশিব অত্যন্ত ভীত হইলেন এবং ভগবতীকে
সম্বোধন করিয়া কহিলেন “পরিয়ে ! - বোধ হত, স্বর্গে পুনরায় দৈত্যেরা
উপদ্রব আরন্ত করিয়াছে ; নচেৎ অসময়ে ইহাদের আপিবার কারণ কি?
বাহা হউক, তুমি কিঞ্চিৎ অপেক্ষা কর, আমি সবিশেষ জানিয়া আদি ।”

ঠ




































কৈলাস

টি

বলিয়া নন্দী সহ প্রস্থান করিলেন । তিনি বহির্ববাটাতে উপস্থিত হইবামীক্র
দেবগণ একে একে প্রণাম ও সাদর সম্ভাষণ হি |

শিব। স্বর্ণের কুশল তো?

নারা। আজ্ঞে হা ।

শিব। তবে অসময়ে আসিবার কারণ কি?

নারা। আমরা কলিকাতা দর্শন করিতে যাব, দেই জন্যে বড়দাদা,
আপনাকে ডাকিতে পাঠাইয়াছেন ।

শিব। ভাই, এ অপেক্ষা আর সুখের বিষয় কি আছে; তবে বাড়ী
ফেলে আমার একদণও্ড কোন স্থানে যাবার যো নাই ৷. আমি গেলে বিষয়,
কর্ম দেখে, এমন লোক একটীও নাই ।

নারা। কেন, কান্তিক ও গণেশ বাবাজীরা আছেন, উহ্বারা দেখিবেন।
উপযুক্ত হইয়াছেন, এখন হতে বিষয়কর্ম্ম না, দেখিলে চলিবে কেন?

শিব। মহাভারত! ও-বেটারা মানুষ হলে: ভাবনা কি? ছুটো।
ছেলের একটাও মানুষের মত হল না । কান্তিকেটা তো ঘোর ইয়ার
হয়ে উঠেছে, রাত দিন কেবল আয়না বস নিয়েই আছে; আৰ ল্যাবেণ্ডার
ওডিকলম প্রভৃতি কি ছাই তম্ম গুলো মাথার লেপ্ছে॥ বেটা কালাপেড়ে.,
দিমলার ধুতি না হ'লে পরেন না৷ এবং পাঁচ: টাকা দামের চীনেম্যানের
বাড়ার জুত না হলে পায়ে দেন না। আমি পয়সা বাচিয়ে বাঘছালে
লজ্জা নিবারণ ক”রে বেড়াই-_বেটা আমার সিক্কের পাণ্তীবী পোরে তেড়ী
কেটে বাবু সেজে বেড়ান | *7-:7.

ইন্্র। আপনি খরচপত্র দেন কেন?
শিব ।, আমি কি দিই; আশ্বিন মাসে ওর মামীর বাড়ী গিয়ে নিয়ে
আপে।: আমার সবশুরই তো ছেটেগলৌর বাথ থাচ্চেন; ঝল্লে শুনেন







* কাত্তিক যে ঘোর ইয়ার, তাহ। আমর।পৃূজীরসময়,দেখিয়াই টের পাইয়াছি।




/

দেবগণের মত্যে আগমন

না, লুকিয়ে লুকিয়ে রেজেষ্টরি করে নোট পাঠান।. আবার গিন্সি মাঁগীও
কম নন,__যা ছুই এক পয়সা পান, কাত্তিক ও গণেশকে দেন ।

ইন্দ্র। গণেশটা কেমন?

শিব । দাদার ভাই । বেটা প্রত্যহ আদ মণ করে সিদ্ধি খায় । দুঃখের
কথা কল্‌বো কি,--আজকাল আবার নাম হয়েছে সিদ্ধিদাতা গণেশ ।

নারা ৷ বেশ হয়েছে, যেমন বুড়ো বয়সে বে বে করে হেদিয়েছিলেন,
তেমনি ফলভোগ করুন। বৌ আবার মধ্যে মধ্যে রাগ করে এ ছেলেদের
কোলে নিয়ে বাপের বাড়ী যান নয়? ৃ

শিব।. এখন আর সে রোগটা নাই ।
নারা। সাধ করে নাই ? বুড় বয়সে বাপের. বাড়ী গেলে বাপে জায়গা

দেবে কেন? আর ক্রমে ক্রমে ঘে রকম মাগ্যিগণ্ডার দিন হ/য়ে উঠছে!
ইন্দ্র। - তবে আমরা উঠি।
শিব। না নাঁযাঁবে কেন? পিঠেপুলি হচ্চে খেয়ে যাবে না?
নারাঁ। আজ্ঞে, তা হবে না । আমাদের আবার সত্বর মর্ত্য হতে
ফিরে আস্তে হবে ।
দেবগণ এই কথা বলিয়া মানস সরোবরে যাত্রা করিলেন । সেই রাত্রি
তথায় অবস্থিতি করিয়া! তৎপরদিন ব্রহ্মার সহিত সকলে হরিদ্বারে আসিয়া
উপস্থিত হইলেন 1৯





হরিদ্বার

হরিদ্বারে প্রবেশ করিয়া ব্রঙ্গা কহিলেন “এ যা! আসিবার অময়
আমাদের পুণঘট-দর্শন এবং সিদ্ধি ও বিন্বপত্রের আদ্রাগ গ্রহণপুরর্বক সাতবার


*« কথিত আছে, হরিদ্বীরের অনতিদৃরে মানস সরোবর । এবং হরিদ্বারই স্বর্গের
দ্বারস্বরূপ, সেই কারণে বৌধ হয় দেব্গণ- প্রথমে উ স্থানে আসিয়া উপস্থিত হন।





হরিদ্বার

১৩

দুর্গী নাম জপ করিয়া যাত্রা করা হয় নাই । এক্ষণে মন খারাপ ইইতেছে,.
চল ফিরে যাই ।৮

নারায়ণ । আমরা উষাতে বাটা হইতে বাহির হইয়াছি। উষাকাল
না দ্রিন, না রাত্রি। অতএব উত্তম যাত্রা করাই হইয়াছে । আপনি,
অনর্থক মন খারাপ করিবেন না।

বরুণ। হরিদ্বারের ছুই দ্রিকে পর্জতশ্রেণী, মধ্যে ত্রিধারা হইয়া গঙ্গা
প্রবাহিতা। শ্রতিন ধারা কঙ্খলে আসিত্বা মিলিয়াছে। পর্বতসমূহে
অনেকগুলি বাস করিবার উপযুক্ত গুহা আছে। তাহাতে সাধুগণ বাস
করিয়া থাকেন । হরিদ্বারে সাধুগণের অনেক মঠ ইত্যাদি আছে, কিন্তু গৃহস্থ
কেহ বাস করে না ।

আমাদের দেবগণ ১লা মাঘ সেই হরিদ্বারে আপিয়া উপস্থিত হইলেন ।.
একে প্বীতকাল, তাহাতে পাহাড়ে দেশ; অতএব পাঠিকগণ তথায় কিরূপ
শীতের প্রাছুর্ভাৰ বিবেচনা করিয়া দেখুন । আমাদের দেশে “মাঘের শীত
বাঘের ভয়” যে চলিত কথা আছে, তাহার প্রত্যক্ষ ফল যদি কেহ পরীক্ষা!
করিতে চাহেন, শীতকালে একবার হরিদ্বার ভ্রমণে গমন করুন। দেবগণ
যদ্দিও অনেক শীতবস্ত্র সঙ্গে করিয়া আনিষ়াছিলেন, তথাপি বুদ্ধ ব্রহ্মার
বিশেষ কষ্ট হইতিছিল 1 তিনি যাইতে যাইতে কহিলেন, “ও. বরুণ!
এ কোথায় আন্লি ?”

বরুণ। হরিদ্বার।

ব্রহ্মা । হরিদ্বার না যমের দ্বার । দেখ্‌ দেখি, আমার ঠন্ঠনের চটাতে
বরফ উ্ছে, আর শাতে হাত পা টি মধো প্রবেশ কচ্চে। আগুন,
কর্‌, না হলে মারা যাই।

নারায়ণ ব্রহ্মার প্রতি তাকাইয়। বিশেষ ছুঃখিত হইলেন এবং কহিলেন,
“আপনাকে শীতকালে মর্ত্যে আদিতে কে বলেছিল ?” ূ

ব্রহ্মা । সাধে কি যাচ্চি? গঙ্গাকে ঘে বেঁধেছে !






১৪ দেবগণের মত্তে আগমন

বরুণ ।.. আমরা ভাল ভেবে শীতকালে মত্ত্যে আসিতে চাহিয়াছিলাম,
কিন্তু কপালক্রমে মন্দ হইল ।

ব্রহ্ধা।. আপাততঃ আমাকে আগুন করে সেক তাপ দিয়ে বাঁচাও ।

এই সময় অদূরে কতকগুলি কুটার দেখিয়া বরুণ. কহিলেন, প্চলুন এ ;
-কুটাবের মধ্যে যাইয়া আপাতত আশ্রর লই | বোধ হয়, সম্প্রতি হরিদ্বারের
মেলা হইয়া গিয়াছে ।৮ এই কথা৷ বলিয়া সকলে কুটীরের মধ্যে উপস্থিত:
হইলেন এবং চকমকী বাহির করিয়া ঠুকিতে লাগিলেন। শোলাগুলি
খারাপ হইয়াছিল, আগুন পড়িবামাত্র ভিতরে প্রবেশ করিয়। নিব্ৰাণ
হইতে লাগিল ।. অতএব শোলাতে আগুন পড়িবামাত্র পরস্পরে “শোলার
গলা টিপে ধর” “শোলার গল] টিপে ধর” বলিয়া চীতকার.-ও. তদ্দরপ চেষ্টা
করিতে. লাগিলেন। কিছুতেই কিছু হইল না। অবশেষে অতি কষ্টে
নারায়ণ অগ্নি রাহির করিলেন । তখন দেরগণ_ খানন্দ চিত্তে আগুন
ধূরাইয়া তামার টানিতে লাগিলেন ।

ব্রহ্মা । বরুণ, তখন তুমি বঃল্ছিলে-_হরিদ্বারে কুম্ত মেলা হইয়া
গিয়াছে । মেলা কি, এবং হয় কেন, আমাকে বিশেষ করিয়া বল।

বরুণ ।. ভগীরথের তপস্তায় ভাগীরথী সন্তুষ্ট হইয়া যখন মত্ত্যে আগমন
করেন, প্রথমে এই স্থানে পতিত হন ।. তজ্জন্ত এখানে অগ্যাপি -দ্বাদ্রশ
বৎসর অন্তর একটী করিয়া প্রসিদ্ধ মেলা হইয়া থাকে |. এ মেলারে
'কুস্তমেলা কহে। যাত্রিগণ মেলার সময় আসিয়া ম্হাবিষুব সংক্রান্তির
দিন কুস্তযৌগে স্নান করিয়া থাকে । সেই সময়ে এখানে সমারোহের
পরিসীমা থাকে না। ভারতের প্রত্যেক প্রদেশের বাজারাই প্রায় এ
উপলক্ষে অসংখ্য অসংখ্য দাস, দাসী, হস্তী, অশ্ব, বাঞ্ভাও সমভিব্যাহারে
আতিয়া-দীন.দরিদ্রদিগকে অসংখ্য ধন দান করিয়া থাকেন এবং নানা
প্রদেশ হইতে শৈব, শাক্ত, নাগা, সন্ধ্যাসী, দণ্তী, মোহান্ত, পরমহংস,
অবধূত ও রামায়তগণ আসিয়া উপস্থিত হন. কেবল আধুনিক ত্রাঙ্গ
































হরিদ্বার .

১৫



নামক এক সম্প্রদায় গঙ্গাকে নদী বলিয়! অবহেলা করিয়া মেলায় আসিয়া
যোগ দেন না। মেলার ময় এস্কান নগররূপে পবিণত হয়, তখন
চতুদ্দিকে নৃত্য গীত আমোদ উৎসবের আর সীম! পরিসীমা থাকে না।

ব্রহ্মা । তবে অগ্ঠাপি গঙ্গার পৃথিবীতে কিছু মান আছে!

বরুণ। সেই জঙ্ঠ পৃথিবী আছে; লোকের শ্রী ভক্তিটুকু গেলেই
পৃথিবীও যাবেন ।

ব্রহ্মা । যাত্রীরা মেলায় আসিরা কোন স্থানে স্নান করে?

বরুণ। যেস্থানে গঙ্গা পর্ধত ভেদ করিয়া প্রথমে পতিত হন,
তাহাকে ব্রন্মকুণ্ড কহে। বাত্রীরা শী কুণ্ডে স্নান করিয়া থাকে । ত্র
স্থানের প্রকৃত নাম মায়াপুরী * | উহার অধীশ্বর দক্ষ প্রজাপতি ছিলেন ।
এই মায়াপুরী আপনার সপ্ত পুরীর মধ্যে পরিগণিত ।

ব্রহ্গা। চল আমর ব্রহ্মকুণ্ডে স্নান করিয়া আসি ।

দেবগণ তথায় গমন পূর্বক স্নান আহিক করিলেন এবং ব্যাগ হইতে
ফল মূল সন্দেশ বাহির করিয়া গঙ্গাদেবীর প্রতিমুত্তিকে 1. উৎসর্গ করিয়া
সকলে আহার করিতে বসিলেন ॥ আহারান্তে তামাকু সেবন করিয়া
দেবগণ নারায়ণশিলা দর্শনে চলিলেন। ্‌ |

বরুণ। পিতামহ! এই যে নারারণের প্রতিমুত্তি 'দেখিতেছেন, ইহা
দক্ষপ্রজাপতি পুজা করিতেন। এখানে গোদান ও অন্নদান করিলে
লোকে বিঞ্ু-লোক প্রাপ্ত হয় ।

সে স্থান হইতে দেবগণ কুশাবর্তের ঘাট দর্শন করিতে চলিলেন ॥ £

নারায়ণ। এই ঘাটের নাম কুশাবর্ত ।


* মায়াপুরীর পূর্ব নীলপব্ববত, পশ্চিমে বিল্রকেশ্বর, দক্ষিণে পিছোড়নাথ এবং
উত্তরে লম্ষ্মপণঝোল|। র র

1 ত্রহ্মকুণ্ডের নিকটস্থ মন্দিরে বিফুপদচিহ এবং গঙ্গাদেবীর এক প্রতিমুত্তি আছে।

3 হরিদ্বারের অদ্দ ক্রোশ দক্ষিণে |. ্‌




৯৬

দেবগণের মরতে আগমন

ব্রহ্মা ॥. এ ঘাট এত প্রসিদ্ধ কেন?

বরুণ। - এই স্থানে জনৈক খষি সমাধিস্থ হইয়া যোগসাধন করিতে-
ছিলেন, সেই সময়ে গঙ্গা হিমালয় হইতে পতিত হইয়া তাহার কুশ আ্োতে
ভাসাইয়া লইয়া বান। ধ্যানভঙ্গে মুনি নিজ কুশ না৷ দেখিয়া ক্রোধে কুশ
সহ গঙ্গাকে আকর্ষণ করেন। ভগবতী হৃষ্টচিত্তে খষির নিকট আসিয়া
তাহাকে কুশ প্রত্যর্পণপুর্ব্বক বর দেন যে, অগ্ হইতে এ স্থানের নাম
কুশাবর্ত হইল ; অতঃপর এই স্থানে যে কোন ব্যক্তি আপন পিতৃগণের
উদ্দেশে শ্রাদ্ধ-তর্পন করিবে, তাহার পিতৃগণ বিষুণতুল্য হইয়া বিষুধামে বাস
করিবে । এ জন্য অগ্ঠাপি যাত্রিগণ এখানে শ্রাদ্ধ-তর্পণ করিয়া থাকে ।

রঙ্গা। ইহাতে কত মত্ত দেখ ! |

বরুণ। তীর্থের মৎন্ত বলিয়া কেহ ইহাদের প্রতি অত্যাচার করে না,
এবং মতস্তেরাও মনুষ্য দেখিয়া, ভর পায় না। যাত্রীরা এখানে আসিয়া
মহন্ত সকলকে চি'ড়ে মুড়ি খাইতে দেয় । হাজার হাজার মৎস্য সেই সময়
তীরে আসিয়া উপস্থিত হয় ।

ইন্দ্র। দক্ষ প্রজাপতির গৃহ কোথায়? ্‌

বরুণ। “এই স্থানের পুর্ব-দক্ষিণ কোণে” বলিয়া সকলের সঙ্গে সেই
দিকে চলিলেন এবং উপস্থিত হইয়া কহিলেন, “পিতামহ ! এই আপনার
প্রিয় পুজের গৃহ।”

ইন্্র। এই স্থানেই কি শিবরহিত বজ্ঞ হইয়াছিল? ৰ

বরুণ |. স৷ ভাই, এই স্থানে দক্ষ প্রজাপতি শিবরহিত যজ্ঞ করিলে :
দেবাদিদেব মহাদেব সতীবিরহে দক্ষবজ্ঞ ভঙ্গ ও দক্ষের মুণডচ্ছেদনপুর্ববক
তাহাতে অজমুণ্ড সংযোগ করেন। পরিশেষে দক্ষ দিব্যজ্ঞান প্রাপ্ত হইয়া
দক্ষেশ্বর নামক এই শিব * সংস্থাপিত করেন । ূ

ইন্দ্র । সতী কি এই স্থানে প্রাণ পরিত্যাগ এরিদাভিরেন |



দক্ষ প্রজাপতির গুহে অগ্যাপি এ শিব-মুপ্তি বর্তমান আছে।














২11.

42101;
51711010155,

৮৮১৯


















































হরিদ্বার

বরুণ না, তিনি ইহার পুর্বদক্ষিণ কোণে সীতাকুণ্ড নামক, স্থানে
প্রাণ ত্যাগ করেন॥ অগ্ঠাপি প্রবাদ আছে, স্ত্রীলোকেরা সাত রবিবার প্র
ইণ্ডে স্নান করিলে সতীর স্তাঁয় সৌভাগ্যশালিনী হইয়া! থিবলোক প্রাপ্ত ইয়।

ইন্জ। আহা! এই সব স্থান দর্শন করিয়া পাছে পুর্বব শোক মনে
পড়ে ভেবেই বোধ করি সদাশিব আসিতে সম্মত হন নাই।

বক্ণ। স্ত্রীবিয়োগ-শোক কি কম শোক 1. লোকে যদিচ দ্বিতীয় পক্ষে
বিবাহ করে বটে, কিন্ত প্রথমা স্ত্রীর বিরহ্যন্ত্রণা তাহাকে আজীবনই দগ্ধ
করতে থাকে । আমাদিগের সদাশিবের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী গৌরী যদি
প্রথমা গ্তায় সর্ধগুণাল্কতা, তথাপি দাদার মনে যখন পুর্ব পরিবারের
গুণসমূহ উদয় হয়, তখন কি কম কষ্টবোধ করেন? গতিনিন্দায় সতীর
প্রাণ পরিত্যাগ, একি কম কথা, অগ্ভাপি কৌন সত্রীলোঁক পেরেছে?
দাদা, আর বিবাহ না করিলে সতীর উপর পতির প্রণয় দেখান হই হইত বটে,
রি উনি একেবারে অধঃপাতে যাইতেন। সংসারধর্ম্মে আর য ষত্ব থাকিত

ন, অর্থকে অর্থ ঝলে জ্ঞান করিতেন না) আর একে ত নেশাখোর
মাধ, গাজা টেনে টেনে শরীরটে শীর্ণ করিতেন। বলিতে কি, বর্তমান
ভগবতী দাদাকে বেশ ভুলাক্ে রেখেছেন, নতুবা সতীর মৃতদেহ মন্তকে
করিয়া ক্ষেপে বাহির দা দেখে পর্ধযত্ত আমর! “উনি পুনরায় যে এমন

সংসারী হবেন»_-একদ্রিনও মনে করি নাই।

দেবগণ ইহার পর কঙ্ল * অভিমুখে চলিলেন।: তথাত্ম উপস্থিত
হইয়া ব্রহ্মা কহিলেন, “এখানে কি হইয়াছিল ?”

বরুণ । এইস্থানে বিছ্বর যোগসাধন করেন এবং এই স্থানেই বিছ্র-

মৈত্রেয়-সংবাদ হয় । এই যে কুণ্ড দেখিতেছেন, ইহাতে কেহ সাত
রবিবার নান করিতে পারে না । ৃ

তখন সকলে ভীমগঞ্রা 1 দর্শন করিতে চলিলেন |

















*. শারায়ণশিলার এক ক্রোশ দক্ষিণে । 1 হরিছারের এক ক্রোশ দক্ষিণে ।
স্‌




১.

দেবগণের মরতে আগমন

ব্রহ্মা । এস্থানে কি হইয়াছিল?

বরুণ। ভীম স্বর্গারোহণকালে এই স্থানে তাহার ছুর্জর গদা পরিত্যাগ
করিয়া গিয়াছিলেন । এই যে প্রকাণ্ড গদার আকৃতি প্রস্তর দেখিতেছেন,
লোকে ইহাকেই ভীমের গদা কহে।

ব্রহ্মা । কুরুক্ষেত্র এখান হইতে কত দুর ?

বরুণ। বেণী দূর নয়, দেখিতে যাইবেন ?

্হ্মা। এখন নয়, কলিকাতা! হইতে ফিরে এসে যাহা হয় করিব।

বক্ষণ। দেখুন ঠাকুরদীদা! এই ভীমের গদায় আঘাত করিলে
ঝঁ1 ঝঁ। করে শব্ধ হয়। কিন্তু কেন হয়, লোকে তাহ বলিতে পারে না ।

এই কথায় দেবগণ আঘাত করিয়া! দেখিতে লাগিলেন এবং ক্রমান্বয়ে
ঝঁ। ঝা] শব্দ বাহির হইতে লাগিল; তখন তাহাদের আর আমোদের
পরিসীমা রহিল, নী ।. ইনি একবার, উনি একবার, এইরূপ সকলে
ক্রমান্বয়ে আঘাত করিতে আরম্ভ করিলেন ।

বরুণ। পিতামহ! এই স্থানের পুর্ব-দক্দিণ কোণে সুর্যকুণ্ড, এবং
ইহার দুই ক্রোশ উত্তরে সণ্তমোত (সপ্তধারা)। ইহার নয় ক্রোশ
উত্তরে, হুধীকেশ” ১. তথায় সগুধিমগ্ুলের তপন্তার স্থান অগ্যাপি বর্তমান
আছে । প্রস্থানের তিন ক্রোশ উত্তরে লক্ষ্ণঝোল! নামক স্থান আছে।
তথায় বসিয়া লক্্রণ তপস্তা করিয়াছিলেন। ইহার নিকট গঙ্গার উপর
বেতের সেতু আছে । * তাহা পার. হইয়া ব্দরিকাশ্রমে যাইতে হয়।
কথিত আছে, যাহারা মহাপাগী তাহারা এই সেতু পার হইতে পারে না;
পাঁর হইতে গেলে তাহারা জলে পতিত হয় ।

ইন্দ্র। চলুন, বেতের সেতু পার হজ্জ! বদরিকাশ্রম দেখে আসি।

ব্রহ্মা । নাঁ ভাই, যদি পা ফস্‌কে জলে পড়ি, লোকে চিরকাল বলিবে















%. এখানে এখন অন্যপ্রকার নিরাপদ্‌ সেতু প্রস্তুত হইয়াছে ।















'লছমন ঝোঁলা__হরিদ্বার ১৮এপূঃ








কও



















হৃষকেশ মন্দির _হরিদ্বার

৮











!
& 4810৭
57800165,

€০1$০০9১




















রি?

০০
0নাচাখা॥£ ;
&/801041খ-
5700155,

€০4099















































কা

হরিদ্বার : ১৯
সেষ্টিকর্তা পাপী ছিলেন». বরুণ! নিকটে যদি কোন ভাল স্থান থাকে,
দ্েখ্য়ে আন ।

এই কথাতে বরুণ তাহাদিগকে সঙ্গে করিয়া নীল পর্বত
থার় উপস্থিত হইয়া কহিলেন, “এই দেখুন নীলপর্বত

এবং এই নদী নীলধার! নামে প্রসিদ্ধ। এটা গঙ্গার একটা ধারা মাত্র ।



* দেখাইতে

এবং ত

এখানকার জল স্বাভাবিক নীলবর্ণ।

বক্গা। এ ঘাটের নাম কি?

বরুণ। এ ঘাটের নাম নীলধারার ঘাট ।
দোপানে দ্রইটা শিবমুস্তি দেখিতেছেন, ইহার একটার নাম গৌরীশস্কর, .
অপরটার নাম বিভ্বকেশ্বর ৷ + এই স্থানের এক ক্রোশ পশ্চিমে বিন্বকেশ্বর
তিনি মায়াপুরীর ক্ষেত্রপাল দেবতা ।
দক্ষিণে পিছোড়নাথ নামক শিব

এই বে প্রস্তর-নিন্মিত

নামক এক মহাদেব আছেন ।
এতভিন্ন নারার়ণশিলার বার ক্রোশ

আছেন। তথায় যাইবার রাস্তা বড় দুর্গম |
এই সময়ে ঝমূর মর শব্দে কয়েকখানি একা আসিয়া উপস্থিত হইল।

পিতামহ তত্দর্শনে হান্ত করিতে করিতে বরুণকে কহিলেন, “বরুণ! এ
রথের নাম কি ?”
বরুণ । ইহার নাম একা |

ব্রহ্মা । ও নাম হইল কেন?
বরুণ। বোধ হয় একজনের বেণী বসিতে পারে না বলিয়া এক

নাম হইয়াছে । এই রথকে বাঙ্গালীরা ঠাট্টা করিয়া পুষ্পরথ কহে এবং

এই ঘোটককে তারা পক্ষিরাজ ঘোটক বলে।
রন্মী। এরূপ বলার অর্থ কি? এই ঘোটক কি পক্ষিরাজের স্তায়

দ্রুতগারী? না, এ রথ পুষ্পরথের ন্যায় দেখিতে সুন্দর

?

নারায়ণশিলার ছুইক্রোশ পূর্বে ।
+ নীলধারাঁর ঘাঁটে দুইটা শিবলিঙ্গ বর্তমীন আছেন ।

২





দেবগণের মত্ত আগমন

বরুণ। আজ্তে বাঙ্গালীরা ঠাট্টা করিবার সময় প্রায়ই উত্তমের সহিত
অধমের তুলনা করে। বথা, পক্ষিরাজের সহিত সামান্য ঘোটক, পুষ্পরথের
সহিত: একী, নির্ধবোধের সহিত বৃহস্পতি, হাতুড়ে কবিরাজের সহিত
ন্বস্তরি ইত্যাদি ।
চারিখানী এক! ছয় আনা করিয়া ভাড়া চুক্তি হইলে দেবগণ উঠিয়া
বসিলেন। তখন সারথি সজোরে অশ্বপুষ্ঠে উপর্ধ্যপরি কশাঘাত করিলে অতি
কষ্টে অশ্বিনীকুমারগণ ধীরে ধীরে ঝমর ঝমর শব্দে গমন করিতে লাগিন।
ইন্ত্র।_ বরুণ, এদের অপেক্ষা কি পৃথিবীতে পাপী আছে?
বরুণ । আছে ।
ইন্ত্র। কারা?
বরুণ । বাহার কেরাণীগিরি কর্ম করিয়া জীবিকা নির্বাহ করে এবং
বাহার! বড়লোকের মোসায়েবী করে । |
এই সময়ে দুরে একটা খাল দেখিয়া! ব্রহ্মা বরুণকে জিজ্ঞাসা করিলেন,
বরুণ এ খালটার নাম কি?
বরুণ। এই খালকে লোকে কট্লিরখখার খাল কহে। কট্লিখী
নামক একজন যবন এই খাল খনন করাইয়া কানপুর পর্য্যন্ত লইয়া
গিয়াছে। যখন খনন আরন্ত হয়, হরিদ্বারের পাগ্ডার! কাটাখালে গঙ্গ'
বাবেন না বলিয়া দস্ত করিয়াছিল। তাহাতে কট্লি হান্ত পুর্ব্বক এই
উত্তর দেয় “ভগীরথ যাকে শঙ্খের শব্দে লইয়া গরিয়াছিল, আমি তাহাকে






চারুকের জোরে অনায়াসেই লইয়! যাইতে সঙ্গম হইব।” প্ররুত তাহাই

ঘটিয়াছে। বিজ্ঞানবিদ্‌ কটুলি এ মনোহর খাল খনন করাইয়া স্থানবিশেধে

নদ্রীর নিম্ন ও মধ্যদেশ দিয়া এমি লইয়া গিয়াছে যে, দেখিলে হতবুদধি

হইতে হয়।
ব্রহ্মা । আহা! মার আমার অধর্মও কম নয়! মূর্ত্যে আগিয়
তাহাকে যবনেরও চাবুক খাইতে ও ইংরাজ-গারদেও াইতে হইল ।





সাঁ

হারাণ

পুর

হি

দেখিতে দেখিতে বেলা তিনটার সময় দেবগণের একা. সকল
সাহারাণপুরের বাজারে আসিয়া উপস্থিত হইল, এবং চতুর্দিক হইতে
খাবারওয়ালা দোৌকানদারগণ, প্বাঁবু এদ্রিকে আস্তুন, বাবু এদিকে আস্গুন”
বলিয়! চীৎকার করিতে আরম্ত করিল ।

সাহারাণপুর

. দেবগণ একা হইতে অবতীর্ণ হইয়া নিকটস্থ একটা দৌকান-ঘরে
উপবেশন করিলেন । একটা ছেলে ডাব! হু'কায় তামাক সাজিয়।
দেবগণের নিকটে আসিয়া “বাবু, ব্রাহ্মণের হু'কা দেব?” বলিয়া
পান্মযোনির হস্তে হু'কা প্রদান করিল।

দেবরাজ ইন্্র ব্যাগ খুলিয়া গাড়োয়ানকে টাকা দিতে গিয়া বিপদে
পড়িলেন। কারণ স্বর্গীয় টাকার পাঁশ কাটা এবং মহারাণী ভিক্টোরিয়া
শাম নাই; গাড়োয়ান “এতে বিবির মুখ কই” বলিয়া, তাহা প্রত্যর্পণ
করিল। তখন দেবগণ গালাইয়া বিক্রয় করিয়া দ্রেণীয় টাকা লইবেন
সিদ্ধান্ত করিয়া সকলে বেণের দোকানে চলিলেন। সেখানেও মন্দ বিপদ্‌
নহে। বণিক্‌ স্বর্গীয় টাকার বদলে কয়েকটা দ্রেশীয় টাক? ও নোট প্রদান
করিল। দেবগণ কহিলেন, টাকা নিয়ে কাগজ দিয়ে ঠকাবে-_আমাদের
এত বোকা পাওনি।” তখন পোদ্দার ব্যাখ্যা করিয়া দিল, “মহাশয় ।
ইহার নাম নোট) নোট ভারতবাসীদিগের বড় আদরের ধন। অতএব
এই নোট ভারতবর্ষের থে প্রদেশের যে ব্যক্তিকে দিবেন, সে সন্তোষের
সহিত গ্রহণ করিবে। বাড়ীতে খরচ পাঠাইবার এবং পথ-খরচের জন্য
সঙ্গে লইবার এমন সুবিধা আর কিছুতেই নাই |” তখন দেবরাজ মনে
মনে স্থির করিলেন, স্বর্গে যাইয়া নোট প্রচলিত করিবেন, অনর্থক ্্ণ
রৌপ্য আর ধনাগার. হইতে বাহির করিবেন না।

এই ঘটনার পর সকলে আহারাঁদি করিয়া নগর ভ্রমণে বহির্গতি






স্‌

দেবগণের মর্ত্যে আগমন



_ হইতেছেন, এমন সময় ডাকের রণার্কে ক্রুতপদে বাইতে দেখিয়া বরহ্গা
কহিলেন “বরুণ! ওকে? আর এত দ্রুতই বা যাইতেছে কেন ?”

বরুণ। ও ডাকঘবের রণার্‌, নির্দিষ্ট স্থানে ডাক পঁছুছিয়। দিবার
নিমিত্ত দ্রুতবেগে যাইতেছে ।

ব্রহ্গা। ডাককি?

বরুণ। ছু এক পয়সা লইয়া পত্রাদি ভারতের এক প্রান্ত হইতে অন্ত
প্রান্তে নির্ষিদ্ধে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে পঁহুছিয়া দিবার জন্ট ইংরাঁজরাজ
ভারতবর্ষের প্রত্যেক স্থানে চিঠি পত্র জমিবার একটি আড্ডা করিয়াছেন)
এ আজ্জাকে ডাকঘর কহে। |

ব্রহ্মা । ছু এক পয়সায় যেখানে সেখানে পঁছছে দেয়, য়্যা। খরচ:
পোষায় তো? ৰ ্‌ :
বরুণ । বরং লাভ থাকে । 4
ইন্দ্র। পয়সা. উপায়ের মন্দ উপায় নয়! আমি স্বর্গে যাইয়া গো
আফিস স্থাপন করিব । ্‌ নি
বক্গা। দোত ও কলম পাইলে বাটাতে এক খান পত্র লিখিতাম, পে
দিতে পারে ভাল, নচেৎ ছু পয়সা অপব্যয় হইলে কিছু মারা যাবো না ।
বরুণ। “ইংরাজরাজ্যে দোত কলমের অভাব নাই, ভারতের প্রত্যেক
দোকানে প্রায় বিলাতি কালি, কাগজ, কলম বিক্রয় হইয়া থাকে !
বলিয়! পিতামহকে একখানি পোষ্ট কার্ড আনিয়া দিলেন. .
ব্রক্মা। এখানির দাম কত? /
বরুণ। এক পয়সা! মাত্র - ..
ব্রহ্মা । বিন্ময়ে কার্ড খানির এ গীঠ ও পীঠ টি | পরে তিনি
হাগডেলে নিব্‌ বপাইতে গিয়া_এষ্যা! কাটতে হয় না?” এই কথা,
বলেন আর কৌতুকে বিস্ময়ে দম আটকে মারা যান । পরে বলিলেশ
পবরুণ। আমাকে বেণী করে ্রিল্পেন নিবু কিনে এনে দেও- স্বরে































সাহারাণপুর



লইয়া যাইব নচেৎ আর সমস্ত দিন পরিশ্রম করিয়া বাখারি চেচে
টেচে কলম্‌ তৈয়ার করিতে পেরে উঠিনে ।৮ ্‌

সাহারাণপুর একটি বিখ্যাত জেলা । এখানে গবর্ণমেণ্টের জজ আদালত
প্রভৃতি যাহা আবঠ্যক সমস্তই আছে । দেবগণ অপরাহে নগর ভ্রমণ করিয়া
বিশেষ পরিতুষ্ট হইলেন এবং পুনরায় বাজারে প্রত্যাগমন পূর্বক কাষ্ঠের
ফুলকাট! বাঝ্স দেখিয়া বিশেষ প্রশংসা করিলেন এবং প্রত্যাগমন-সময়ে
প্রত্যেকে এক একটি খরিদ করিয়া স্বর্গে লইয়া যাঁইবেন স্থির হইল । *

বরুণ । “দেখ কৃষ্ণ, রাজ্রিযোগে ধূমপান করিতে হইবে । অতএব এক
পয়সায় দুইটা ম্যাচ বক্স লওয়া যাক্‌” বলিয়া ছুইটি খরিদ করিলেন ।

ব্রহ্মা । এক পয়সা দুইটি বাক্সের দাম । এর চেয়ে আধ পয়সার
গন্ধক কিনে ঘরে দেশলাই তৈয়ার ক*র্লে কি সম্তা পড়ে না?

বরুণ। “ইহার বিশেষ গুণ এই, ইহা! জালিতে আগুনের প্রয়োজন হয়
না, বাক্সের গাত্রে ঘর্ষণ করিবামাত্র আগুন হয় ৮. বলিয়া, যেমন একটি
কাটি ঘিলেন, অমনি দপ করিয়া জলিয়া উঠিল ।

দেবগণ তদদর্শনে বিশ্ময়্াভিভূত হইয়া “দেখি, আমি পারি কি না”
বলিয়া ইনি একটি, উনি একটি জ্বালেন আর কচি ছেলের মত ফিক্‌ ফিক্‌
করিয়া হান্ত করেন। তৎপরে তীহারা ষ্টেশন অভিমুখে চলিলেন।

এই স্থান দিয়া সিন্ধুপঞ্জাৰ রেলওয়ে যাইয়াছে। দেবগণ ষ্টেশনে
উপস্থিত হইলে ত্রন্গা। “এট! কি, ওটা কি, এ কেন, ও কেন” ত্রমান্য়ে প্রশ্ন
করিতে লাগিলেন, এবং বরুণ যথাযথ প্রত্যুত্তর দিলেন। এ দিন
কাধ্যগতিকে ট্রেণ আসিতে বিলম্ব হওয়ায় বরুণ বলিলেন, “পিতামহ !
অনর্থক এখানে দীড়াইয় থাকার অপেক্ষা চলুন আমরা ওয়েটিং রুমে যাইয়া
বিশ্রাম করি” বলিয়া, যেমন সকলে প্রবেশ করিলেন; অস্ষি চাপরাসী
নিষেধ করিয়া কহিল “এ তোমাদের জন্য নহে ।”











+. সাহীরাণপুরের ফুলকাটা৷ বাক্স বড় বিখ্যাত ।




হাড়ি দেবগণের মর্ড্যে আগমন

বরুণ। আমাদের জন্ত নহে কেন? এই ত স্পষ্টাক্ষরে লেখা
রহিয়াছে “ওয়েটিং রুম ফর্‌ জেন্টেল্মেন্‌।”

চাপ | জেপ্টেলম্যান শব্দে ইরাজ জাতি, অন্য নহে।

বরুণ। “তবে “ওয়েটিং রুম ফর্‌ ইংলিস্‌ জেন্টেল্মেন* লেখা নাই কেন ?৮
বলিয়া বলপুর্ব্বক প্রবেশ করিতেছেন, এমন সময় চাপরাসী পুনরায় কহিল,
“প্রবেশ করিবেন না, প্রবেশ করিলে অপমানিত হইবেন 1৮

বরুণ। তুমি জান--সদাশয় কোম্পানির এরূপ নিয়ম নয়; আমাদের
প্রতি তোমার ছুর্বব্যবহারের কথা কোম্পানিকে জানাইলে তোমার কর্ম
যাইবার সম্ভাবনা । ূ

ইন্্র। ওহে ভাই, ফিরে এস) ও ঘরে বসে কি আমরা চতুভূর্জ
হর? ্‌

দেবগণ অন্ত দিকে প্রস্থান করিতেছেন, এমন সময় বরুণ গৃহের ভিতর
দ্রিকে উকি মারিয়া উচ্চ হান্ত করিয়া উঠিলেন। ৰ

ইন্। কিহে?

বরুণ। ভিতরে একজন জেপ্টেল্ম্যান বসে আছে দেখেছো ?

ইন্র। কই না) কে কদে আছে?

বরুণ। তোমার স্মরণ থাকতে পারে, জয়ন্তের বিবাহের সময় মেয়েদের
উপরোধে মীলয় হ'তে যে একদল ইংরাজী বাজাওয়ালা আনা হয়, তন্মধ্যে
ডিক্রু নামক যে ব্যক্তি জরঢাক বাজার, তাঁর পুল্র পিক্রু জেন্টেল্ম্যান সেজে
ঝসে আছে।

চাপ। টুপির এন্সি গুণ!

বরুণ টুপির এত আদর ? ্‌ ্‌

চাঁপ। হ্যা, মাথা খোলা পা খোলা অসভ্যদিগকে সুসভ্য ইংরাজজাতি















বিশেষ ঘ্বণা করেন, এজন্য গবর্ণমেন্ট আফিসের চাঁপরাসীরা পর্যন্ত মস্তকে

পাঁক্ড়ি ধারণ করে ।







দল্লী

২৫

ইন্্র। আহা! এমন জান্লে আমরা! সেজেগুজে টুপী মাথায় দিয়ে
আসিতাম ।

এই সময়ে ট্রীং ল্যাটাং, ট্রীং ল্যাটাং করিয়া টিকিট দিবার ঘণ্টা
দেওয়া হইল। দেবতারা বাইয়া দিল্লী পর্য্যন্ত টিকিট লইলেন । যথাসময়ে
হুপ হুপ্‌ গুপ. গুপ. শবে ট্রেণ আদিয়া উপস্থিত হইল । দেবগণ সত্বরে
ট্ণে উঠিয়া বসিলেন, চারিদিক হইতে “চাই জলখাবার” “চাই পাণ” শব্দ
হইতে লাগিল, এবং একজন “দাহারাণপুর” বলিয়া, চীৎকার করিতে
লাগিল । ক্রমে নীল রঙের লগ্ঠন দ্রেখান হইল । ওদিকে ডাইল সাতলানোর
তায় যেমন একটা! ভয়ঙ্কর শব্দ হইল, সেই সঙ্গে বংশীধ্বনি হইয়া ট্রেণ পূর্বের
তায় হুপ্‌ হুপ গুপ গুপ্‌ শব্দে চলিতে লাগিল । ট্রেণের চলন দেখিরা
দেবগণ হেসে বাঁচেন নাঁ। ক্রমে ক্রমে ট্রেণ দিলীতে আসিয়া উপস্থিত হইল 1











দিল্লী

ট্রেণ হইতে অবতীর্ণ হইয়া সকলে গেটের নিকট টিকিট দিয়া বাহিরে
বাইয়া দেখেন, অসংখ্য গাড়ী দণ্ডায়মান । গাঁড়োয়ানেরা “বাবু, এ বগীতে
আন্ুন, এ বগীতে আস্তুন” বলিয়া চীৎকার করিতেছে । * দেবগণ একখানি
গাড়ীতে উঠিবামাত্র গাড়োয়ান দ্রুতগতি নগরাভিমুখে লইয়া টলিল।
তাহারা যনুনাতে শ্লান আহ্ছিক করিয়া বৈকালে নগর ভ্রমণে চলিলেন।

যাইতে যাইতে ব্রহ্ধা 1 কহিলেন “বরুণ! এ সহরে তিনপ্রকার মন্দির
ষ্ট হইতেছে কেন ?” ৃ

বরুণ। আজ্ঞে দিল্লী পর্যায়ক্রমে হিন্দু, মুসলমান এবং ইংরাজ
জাতির বাজধানী হয়; সেইজন্য প্রথমে মন্দির পরে মস্জিদ এবং
সর্বশেষে চর্চ নির্মিত হইয়াছে । র্‌
ইন ॥ কোন্‌ হিন্দু রাজা এখানে রাজত্ব করিয়াছিলেন?





* দিলীতে সকল প্রকার গাড়ীকেই বগী কহে |
1 দিল্ী যমুনার উপর।







২৬ দেবগণের মর্ত্যে আগমন



বরুণ। এ নগরকে পুর্বে ইন্দ্রপ্রস্থ কহিত। রাজী যুধিষ্ঠির এই
স্থানে রাজত্ব করিয়াছিলেন ।

বক্গা। ইন্দ্রপ্রস্থ কোন্‌ স্থানকে বলে?

নারা। সেস্থান যমুনা নদীর দক্ষিণ দিকে ছিল।

বরুণ। “বর্তমান দিল্লী হইতে এ স্থান এক ক্রোশ দুরে । চলুন আপনা-
দিগকে দেখাইয়া আনি,” বলিয়! সকলকে লইয়া তদ্ভিমুখে চলিলেন ।

ব্রহ্মা । এ ধ্বংসাবশেষ গৃহাদি কোথাকার?

বরুণ। এই ইন্দ্প্রস্থের রাস্তা । রাজা ধৃতরাষ্ট্র পঞ্চপাগ্ডবকে পাণিপত,
সোনপত, ইন্দ্রপত, টিলপত, এবং ভাগপত, নামক যে পাঁচখণ্ড জমী দিয়া-
ছিলেন, তন্মধ্যে টিলপত ও ভাগপত নামক এ দেখুন ছুই খণ্ড জমী অগ্ভাপি
বর্তমান আছে। অবশিষ্ট তিন খণ্ড বমুনা-গর্ভে লীন হইয়াছে । এই
স্থানে চতুর্দিকে গড়-বেষ্টিত পুরাতন কেল্লা ছিল । এক্ষণে কেল্লাটা মুলমান-
দিগের কৌশলে এত পরিবর্তিত হইয়াছে যে, পূর্বের বলিয়া কিছুমাত্র
চিনিবার যো নাই । পিতামহ! এ যে হুমাধুনের মস্জিদ দেখিতেছেন, এ
স্থানে মহাবীর অজ্ঞুনের কেল্লা, ছিল! আর যে সের-শার রাজবাটা
দেখিতেছেন, স্থানে পাওুপুভ্রগণ নারায়ণ এবং মহধি ব্যাস প্রভৃতি কর্তৃক
পরিবেষ্টিত হইয়া অবস্থিতি করিতেন । আর যে স্থানে রাজন্য় যজ্ঞ উপলঙ্গে
অঙ্গ, বঙ্গ, কলিঙ্গ প্রভৃতি দেশের রাজারা আসিয়! উপস্থিত হইতেন,
তথাকার কোন চিহ্ন নাই ; তথায় বর্তমান দিল্লী নগরী নির্শিত হইয়াছে।
যে ঘাটে যুধিষ্টির অশ্বমেধ যজ্ঞের হোম করেন, সে ঘাট অগ্ভাপি বর্তমান
আছে, তাহাকে আগমযোডের ঘাট কহে।

বহ্ধা। এস্থানের বর্তমান নাম কি? সের-শা বাটা নির্মাণ করায়
নামের কি কোন পরিবর্তন হইয়াছে ?.
বরুণ । আজ্ঞে, যদিচ সের-শা, নাম পরিবর্তন জন্ত অনেক চেষ্টা, পান
এবং নিজ নাম অনুসারে ইহার সিয়ারগড় নাম দেন, কিন্তু অগ্ভাপি লোকে




















০07121181.

/% 1
6/17110


































দিলী
ইহাকে পুরাতন কেনা বা ইন্্রপত কহে। এ

উহ যমুনার সহিত সংলগ্ন ।
এই স্থ্‌

৭
কেল্লার চারিদিকে গড় আছে ।
এবং

ইহাঁর চারিটি তোরণ বা গেট
নে হুমায়ুন বাদসা অশ্ব হই

আছে।
ইহতে পতিত হইয়!

প্রাণত্যাগ করেন।
খরুণ। ইনি একজন বিখ্যাঁতি বাদগা ছিলেন । ছেলে মেয়ে অত্যন্ত
দৌরাআ্ম্য করিলে অগ্তাপি বঙ্গবাসীরা, প্র হুমো আঁস্ছে” বলিয়া, তাহা-

১ ১০

ল্লীহইল কেন ৯

খলে--ডিলু_ বাজার... নাম অনুসারে
এখানে একটি
'তান্দীতে এই নগ

যে হিন্দু রাজার নিম্মিত

ইহার নাম
লোহার পিল্পের, উপর লেখা
রর সংস্থাপিত হয়।

ইহাতে সন্দেহ নাই।

বশ্দা। লোহার পিল্পে?

1 পড়িতে পারা বায় না, এ

জন্য ইহা যে কি তাহা
ইহার পর দেবগ

ণ লালকোট দর্শন করিতে চলিলেন |

পন, হহারই নাম কি লালকোট ?৮





২৮

দেবগণের মর্ভ্যে আগমন

১৯৫২ ফিট গভীর । ইহা রাজা : দ্বিতীয় অনঙ্গপালের কৃত । এই
দ্বিতীয় অনঙ্গপালের পুক্র তৃতীয় অনজপালের সময় মহম্মদ ঘোরী দিল্লী
অধিকার করেন। আক্রমণ-ভয়ে রাজা সপরিবারে লালকোট তুর্গে
আশ্রয় গ্রহণ করেন। এ কেল্লাকে লোকে অগ্যাপি “কেল্লা রায় পৃথু-
রাজের” কহিয়া থাকে । কেল্লার যে গেট দিয়া, মুসলমানের! প্রবেশ



করে, তাহাকে “গিজনি গেট” কহে ।



এই বলিয়া সকলে গমন করিতে লাগিলেন ।

ইন্্র। বরুণ! এস্থানের নাম কি?

বরুণ। ইহার নাম ভূতখানা ! পৃথুরাজের তারাও ২৭টি সুন্দর
হিন্দুর মন্দির ছিল। সেই সমস্ত মাল-মসলায় ভূতথানা প্রস্তত হইয়াছে ।

অনন্তর সকলে উহাতে প্রবেশ করিলেন ।

্রহ্মা। ইহার মধ্যে এ সর প্রতিমুত্তি কাহাদের ?

বরুণ। এই যে পর্য্যস্কে মহাপুরুষ শয়ন করিয়া আছেন, বাহার নাভি-
(দশে পদ্মফুল এবং মস্তকে ও পদতলের নিকট ছুই জন বিয়া আছেন,
ইনি আমাদের বর্তমান নারায়ণ |

নারা। আমাকে এনে শেষে ভূতথানায়্ হাজির করেছে ! হা ছুরদুষ্ট!

বরুণ । কাহারও পরিত্রাণ নাই, এই দেখুন প্রাবত-পৃষ্ঠে আমা-
দিগের দেবরাজ, এবং এই হংসপৃষ্ঠে পিতামহ আপনি, আর এই খাঁড়ের
পৃষ্ঠে নন্দী সহ আমাদের দেবাদিদেব মহাদেব | *

নারা। এ মস্জিদটে কি?

বরুণ। কুতুব ইন্লামের মস্জিদ। ইনিই দিল্লীর প্রথম মুসলমান
রাঁজ| ছিলেন । ইহাতে প্রবেশ করিবার তিনটী গেট ছিল । ইহা হিন্দু
দেব-মন্দিরের মাল-মসলায় তিন বৎসরে গ্রস্তত হয়| এক সময় ইহার এত







** ভূতখানায় উপরি উক্ত দেবমূত্তি সকল আছে।





দিল্লী

সৌন্দর্য ছিল যে, তৈমুরলঙ্গ স্থমারকন্দে ইহার প্রতিরপ একটি মস্জিদ
নিন্মাণ করিতে মনস্থ করিয়াছিলেন ।

ইহার পর দেবতারা কুতুব-মিনার দেখিতে চলিলেন। ব্রহ্মা কহিলেন,
ইহার নামই কি কুতুবমিনার? আহী! দেখিবার উপযুক্ত বটে, পাঁচ
থাক ক্রমান্বয়ে লাল, সাদা এবং রক্তবর্ণ পাথরে নির্মিত ।

বরুণ। পিতামহ! এই মিনার ১৫২ হাত উচ্চ এবং ইহার
পরিধি প্রায় ৯৮ হাত। এ যে বিবিধ রঙ্গের প্াচটি থাক দ্েখিতেছেন,
উহ পাঁচটি কুঠারি । এ কুঠারিগুলির মধ্যে কোনটা: কোণবিশিষ্ট,
কোনটা কিঞ্চিৎ অর্দচন্দ্রাকার, কোনটা বা সম্পূর্ণ অর্ধচন্দ্রাকার,
কোনটা বা গোল এবং কোনটা বা কোণের গ্ভায় |. ইহার উপরে
উঠিবার ৩৭৬্টা ধাপ-বিশিষ্ট সিড়ি আছে।

ইন্দ্র । ইহার নির্মীণ সম্বন্ধে অনেক কথা৷ নাগরী অক্ষরে লেখা আছে।
কেহ বলে “এই মিনার, কোন হিন্দু রাজা, তাহার কন্ঠ সূর্য্য উদয়ের সময়
উপর হইতে গঙ্গা দর্শন পূর্বক উপাসন! করিবেন বলিব, নিন্্মীণ করেন 1»
কেহ বলে “সায়দ আহম্মদ মুন্দী নামক এক ব্যক্তি আকবর শার সরকারে
কম্মী করিত, সে এই নগরের লোকের সাহায্যে ইহা নির্মীণ_ করে 1৮
মিনারের উত্তর দিকের দ্বারগুলি হিন্দুদ্ধারের স্তায়, তত্তিন্ন এখানে একটি
ঘণ্টা আছে। এ সমস্ত দেখলে ইহা যে হিন্দুর তৈরি, তা বেশ গ্রতীত
হয়; কিন্তু মুদলমানদিগের কৌশলে হঠাৎ হিন্দুদিগের বলিয়া বোধ হয় না।
ইহার উপর হইতে বমুনাকে স্থৃতার স্ায় এবং মনুষ্যকে পুত্তলিকার শ্ঠায়
দেখায়। ইহার চতুর্দিকের ধ্বংসাবশেষ দেখিলে বোধ হয় এমন সহবর
পৃথিবীতে আর ছিল না।

বহ্ধা। ইহার নিকটে ও উচ্চ স্কানটা কি?

বরুণ। ইহাকে লৌকে অসমাপ্ত মিনার কহে। কথিত আছে,
আর একটি হিন্দুবালিকা পূর্বোক্ত মিনার দেখিয়া নিজ পিতাকে প্রকার













দেবগণের মত্ত্যে আগমন

একটি করিয়া দিতে বলে। অর্ধেক আন্দাজ প্রস্তৃত হইলে মুসলমানের!
নগর আক্রমণ করে, সুতরাং অসমাপ্ত রহিয়া যায় ।

ইন্্র। দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে তরী কুপ এবং কবর কাহার ? আর এ
ধ্বংসাবশেষ জমীই বা কি?

বরুণ। কুপটি দ্বিতীয় অনঙ্গপালের, এবং কবরটি আদম খ
নামক এক ব্যক্তির। এই স্থানে ভুমায়ুন বাদসারও কবর আছে ।

পরে দেবগণ যাইতে যাইতে এক স্থানে দেখেন, একটি অন্ধকার
গৃহে হনুমানের প্রতিমুত্তি রহিয়াছে; তদ্দর্শনে বরুণ হান্ত করিয়া
কহিলেন--“হনু, তুমি লঙ্কার দুর্জয় সমরে জয়লাভ করিয়াছ এবং
পৃষ্ঠদেশে গন্ধমীদন পর্ধতও বহন করিয়াছ, কিন্তু আজ দিল্লীতে অন্ধ-
কার ঘরে বসে কেন?” বলিয়া সকলে অগ্রসর হইলেন ।

ইন্্র। বরুণ, সন্মুখে বাহ! দেখা যাইতেছে উহা কি?

বরুণ। “উহার নাম জাহানপান্না। এখানে ৫২টি গেট আছে, এবং
সাতটি কেল্লা আছে, এজন্য ইহাকে “সাত কেল্লা দেওয়ান দরজা” কহে।
এবং ইহারই নাম অনুপারে লোকে অগ্ঠাপি কহে “দিল্লী সাত কেল্লা
সহর 1৮. বলিয়া, যাইতে যাইতে কহিলেন “এই ফে কবর দেখিতেছেন,
ইহা রাঁজপুল্রী জাহানারার । ইনি সম্রাট সাঁজাহানের কন্ঠ, পিতার
কারাবাঁস-সময়ে সেবা! করিবার জগ্ঠ ইনিও কারারুদ্ধ হন। ইহার নাম
দিল্লীতে আদরণীয় |”

দেবগণ একটি বৃহৎ কুপের নিকট উপস্থিত হইলে ব্রন্গা' কহিলেন।
“বরুণ !. এ কুপটা কি ?%.

বরুণ। ইহাকে লোকে “নিজাম উদ্দীনের কুপ” কহে । প্রতি-বতদর
এখানে একটি বিখ্যাত মেলা হয়, দেই সময় বাত্রীরা আসিয়া স্নান করে।
ওদিকে দেখুন ফিরোজাবাদ সহর, উহ! ফিরোজ শাহের কৃত । প্র স্থানে
২০টি রাঁজবাটী, ১০টি মনুমেন্ট, পাঁচটি কবর, ততিন্ন কাঁলেজ, হাসপাতাণ